ঢাকা ০৬:১২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সে প্রায়ই আমার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতে চায়, অত:পর…

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ১১:৪৯:২৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০১৫
  • ৩১১ বার

১৮ বছরের এক তরুণী জড়িয়ে পরে ২২ বছরের এক যুবকের প্রেমে। এরপর তাদের মাঝে আস্তে অস্তে গভীর প্রেমের সম্পর্কের পর ছেলেটি প্রায়ইমেয়েটির কাছে তার দেহের ছবি দেখতে চায়। এমন অবস্থায় একসময় মেয়েটি বাধ্য হয়ে কিছু ছবি ছেলেটিকে দেয়। এভাবে চলতে চলতে ছেলেটিএবার মেয়েটির সাথে প্রায় সময়ই শারীরিক সম্পর্ক করতে চায়। এমন সমস্যায় কি করা উচিত জানতে চেয়ে চিঠি লিখেছেন সেই তরুণীটি। সামাধানদিয়েছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. মোহিত কামাল।

সমস্যা:
খুব বেশি দিন হয়নি আমাদের সম্পর্কের। একটি ছেলেকে ভালোবসি। আমার বয়স ১৮ আর ওর বয়স ২২। সেও আমাকে অনেক বেশি ভালোবাসে। তবে ওর কিছু আচরণ আমাকে প্রচন্ডভাবে কষ্ট দেয়। মাঝে মাঝে খুব ঝগড়া হয়। যদিও এই ঝগড়া খুব বেশিক্ষণ থাকে না। কিন্তু সমস্যা এটাও না, সমস্যাটা ওর, ও প্রায়ই আমার কাছে আমার দেহের ছবি দেখতে চায়, যা আমি দিতে কখনই রাজি নই। অনেক জোর করার পর এক কথায় বাধ্য হয়ে কিছু ছবি দেই। তারপরও সে ক্ষ্যান্ত হয়নি। এখন প্রায় সময় ও আমার দেহের ছবি চায়।

বতর্মানে প্রায় সময়ই আমার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতে চায়। কিন্তু আমি বিয়ের আগে এরকম কোনো সম্পর্কে জড়াতে চাই না। আমি আরো পড়াশোনা করতে চাই। তাই এখন বিয়ে ভাবতেই পারছি না। এতে, ও আমাকে সন্দেহ করে। আর বলে, আমি নাকি ওকে ভালোবাসি না। এখন ঝগড়া হলে আমি কথা বলা বন্ধ করে দেই। এতে আমার অনেক খারাপ লাগে। সত্যি বলতে বুঝতে পারছি না, ও কি আমাকে সত্যিই ভালোবাসে? নাকি আমার সঙ্গে নোংরামি করতে চায়। এখন আমার কি করা উচিত।

সমাধান:
আসলে বর্তমান টেকনোলজির যুগে সব বয়সী ছেলে-মেয়ের মাঝে ছবি আদান প্রদানের প্রবণতা অনেক বেড়ে গেছে। যার ফলাফল ছেলে-মেয়ে উভয়ের আপত্তিকর ছবি দেখার ইচ্ছা। আর এই ভয়াবহ অবস্থার ভুক্তভোগী আপনি। পুরো বিষয়টি পড়ে যা বুঝলাম, আপনার প্রতি যে সময়ের আগেই প্রচন্ড আসক্তি হয়ে যাচ্ছে। তবে আমার মতে ছবি না দেওয়াই ভালো। কারণ এখনি যদি আবার আপনি তাকে ছবি দেন তাহলে আরো বেশি বেপোরোয়া হয়ে উঠতে পারে। আপনাকে আর পাত্তাই দেবে না। পরবর্তীতে ব্ল্যাকমেইলের স্বীকারও হতে পারেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকিও দিতে পারে।

আপনিতো তাকে ভালোবাসেন আর সেও আপনাকে। তবে আামার ধারণা ছেলেটি চরিত্রবান নয়। আপনার কথায় চরিত্রবানের কোনো বৈশিষ্ট্য লক্ষ করা যায়নি। আর আপনি আপনার পড়াশোনা ঠিকভাবে করে যান। নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করুন। আর হ্যাঁ, অবশ্যই আপনার আগের দেয়া ছবিগুলো ফিরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করুন। তাকে ভুলে থেকে নিজেকে ভালোবাসতে শিখুন, সুন্দর জীবন গড়ুন। দেখবেন ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হবে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

সে প্রায়ই আমার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতে চায়, অত:পর…

আপডেট টাইম : ১১:৪৯:২৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০১৫

১৮ বছরের এক তরুণী জড়িয়ে পরে ২২ বছরের এক যুবকের প্রেমে। এরপর তাদের মাঝে আস্তে অস্তে গভীর প্রেমের সম্পর্কের পর ছেলেটি প্রায়ইমেয়েটির কাছে তার দেহের ছবি দেখতে চায়। এমন অবস্থায় একসময় মেয়েটি বাধ্য হয়ে কিছু ছবি ছেলেটিকে দেয়। এভাবে চলতে চলতে ছেলেটিএবার মেয়েটির সাথে প্রায় সময়ই শারীরিক সম্পর্ক করতে চায়। এমন সমস্যায় কি করা উচিত জানতে চেয়ে চিঠি লিখেছেন সেই তরুণীটি। সামাধানদিয়েছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. মোহিত কামাল।

সমস্যা:
খুব বেশি দিন হয়নি আমাদের সম্পর্কের। একটি ছেলেকে ভালোবসি। আমার বয়স ১৮ আর ওর বয়স ২২। সেও আমাকে অনেক বেশি ভালোবাসে। তবে ওর কিছু আচরণ আমাকে প্রচন্ডভাবে কষ্ট দেয়। মাঝে মাঝে খুব ঝগড়া হয়। যদিও এই ঝগড়া খুব বেশিক্ষণ থাকে না। কিন্তু সমস্যা এটাও না, সমস্যাটা ওর, ও প্রায়ই আমার কাছে আমার দেহের ছবি দেখতে চায়, যা আমি দিতে কখনই রাজি নই। অনেক জোর করার পর এক কথায় বাধ্য হয়ে কিছু ছবি দেই। তারপরও সে ক্ষ্যান্ত হয়নি। এখন প্রায় সময় ও আমার দেহের ছবি চায়।

বতর্মানে প্রায় সময়ই আমার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতে চায়। কিন্তু আমি বিয়ের আগে এরকম কোনো সম্পর্কে জড়াতে চাই না। আমি আরো পড়াশোনা করতে চাই। তাই এখন বিয়ে ভাবতেই পারছি না। এতে, ও আমাকে সন্দেহ করে। আর বলে, আমি নাকি ওকে ভালোবাসি না। এখন ঝগড়া হলে আমি কথা বলা বন্ধ করে দেই। এতে আমার অনেক খারাপ লাগে। সত্যি বলতে বুঝতে পারছি না, ও কি আমাকে সত্যিই ভালোবাসে? নাকি আমার সঙ্গে নোংরামি করতে চায়। এখন আমার কি করা উচিত।

সমাধান:
আসলে বর্তমান টেকনোলজির যুগে সব বয়সী ছেলে-মেয়ের মাঝে ছবি আদান প্রদানের প্রবণতা অনেক বেড়ে গেছে। যার ফলাফল ছেলে-মেয়ে উভয়ের আপত্তিকর ছবি দেখার ইচ্ছা। আর এই ভয়াবহ অবস্থার ভুক্তভোগী আপনি। পুরো বিষয়টি পড়ে যা বুঝলাম, আপনার প্রতি যে সময়ের আগেই প্রচন্ড আসক্তি হয়ে যাচ্ছে। তবে আমার মতে ছবি না দেওয়াই ভালো। কারণ এখনি যদি আবার আপনি তাকে ছবি দেন তাহলে আরো বেশি বেপোরোয়া হয়ে উঠতে পারে। আপনাকে আর পাত্তাই দেবে না। পরবর্তীতে ব্ল্যাকমেইলের স্বীকারও হতে পারেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকিও দিতে পারে।

আপনিতো তাকে ভালোবাসেন আর সেও আপনাকে। তবে আামার ধারণা ছেলেটি চরিত্রবান নয়। আপনার কথায় চরিত্রবানের কোনো বৈশিষ্ট্য লক্ষ করা যায়নি। আর আপনি আপনার পড়াশোনা ঠিকভাবে করে যান। নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করুন। আর হ্যাঁ, অবশ্যই আপনার আগের দেয়া ছবিগুলো ফিরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করুন। তাকে ভুলে থেকে নিজেকে ভালোবাসতে শিখুন, সুন্দর জীবন গড়ুন। দেখবেন ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হবে।