ঢাকা ১০:৩২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পেঁপের বীজের নানান উপকারিতা

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ০১:০৩:২০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৯
  • ২৬১ বার

হাওর বার্তা ডেস্কঃ কাঁচা বা পাকা পেঁপে স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারি। পাকা পেঁপে হজম ও দৃষ্টিশক্তি বর্ধনসহ নানা উপকার করে। কিন্তু পেঁপের বীজের গুণাবলী জানলে আপনিও হয়ত আর ফেলবেন না। পেঁপের বীজে রয়েছে ভিটামিন ও মিনারেল।

পেঁপের বীজের নানান উপকারিতা নিচে দেওয়া হল –

দৃষ্টি ভালো করে: প্রতিদিন পেঁপে খাওয়ার ফলে দৃষ্টিশক্তি ভালো হয়। এর মধ্যে থাকা ভিটামিন এ, সি, ই এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্টের কারণে এটি চোখের জন্য ভালো। এটি রেটিনাকে সুরক্ষা দেয়। এ ছাড়া ছানি এবং গ্লুকোমা প্রতিরোধে কাজ করে।

হৃদরোগ প্রতিরোধ: নিয়মিত পেঁপে খাওয়া হলে হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্যকে ভালো রাখে। এর মধ্যে রয়েছে ভিটামিন এ, সি, ই এবং শক্তিশালী অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। এটি শরীরের বাজে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমাতে সাহায্য করে।

যকৃতের সুরক্ষায়: ত্বকের যত্ন থেকে ক্যান্সার প্রতিরোধ, সবেতেই পেঁপের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে। বিশেষজ্ঞেরা জানাচ্ছেন, পানি ও দইয়ের সঙ্গে পেঁপে বীজের মিশ্রণ তৈরি করে নিয়মিত পান করলে যকৃত ভাল থাকে।

চুলের যত্নে: পেঁপে ও এর বীজ চুলের জন্যও বেশ ভালো। এটি দ্রুত চুলের বৃদ্ধিতে কাজ করে। এটি চুল ঘন হতেও সাহায্য করে। এটি খুশকি দূর করে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, চুলের স্বাস্থ্যকে ভালো রাখতে প্রতিদিন বীজসহ পেঁপে খান।

হজম শক্তি: এর মধ্যে থাকা পেপেইন হজমের প্রক্রিয়াকে ভালো করে। হজম দ্রুত করে, কোষ্ঠকাঠিন্য রোধেও সাহায্য করে। এটি অন্ত্রের ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।

ত্বকের যত্ন: তেলতেলে ত্বক এবং ব্রণের সমস্যা দূর করতে পেঁপে বীজ দিয়ে বানিয়ে ফেলুন ঘরোয়া মিশ্রণ। পেঁপে বীজ এবং পাতা বেটে ফেসপ্যাক বানিয়ে মুখে লাগিয়ে রাখুন ১০ মিনিট। ত্বকের হারানো ঔজ্জ্বল্য ফিরে আসবে।

আরথ্রাইটিস: পেঁপের মধ্যে রয়েছে প্রদাহরোধী উপাদান। এটি আরথ্রাইটিসের ব্যথা প্রতিরোধ করে এবং প্রদাহ কমাতে কাজ করে।

কৃমিনাশক হিসেবে: কাঁচা পেঁপের আঠা বীজ কৃমিনাশক। কাঁচা পেঁপের আঠা চিনি বা বাতাসার সাথে মিশিয়ে খেলে অর্শ ও জন্ডিস সহ লিবারের নানা রোগ ভালো হয়। এ আঠা প্রতিদিন সকালে ৫-৭ ফোটা বাতাসার সাথে মিসিয়ে খেলে অর্শের রক্ত পড়া বন্ধ হয়। ব্রন আচিল জিভের ঘায়ে এ আঠা লাগলে খুব উপকার হয়।

কোলেস্টেরল কমায়: অন্যান্য ফলের মতই পেঁপেতে কোনো কোলেস্টেরল নেই। আর পেঁপেতে আছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার। তাই কোলেস্টেরলের সমস্যায় যারা দুশ্চিন্তায় আছেন তারা প্রতিদিনের খাবার তালিকায় পেঁপে রাখুন। অন্যান্য কোলেস্টেরল যুক্ত খাবারের বদলে পেঁপে খান। তাহলে আপনার কোলেস্টেরলের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়: পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, বিটা ক্যারোটিন, ফ্লেভানয়েড, লুটেইন, ক্রিপ্টোক্সান্থিন আছে। এছাড়াও আরো অনেক পুষ্টি উপাদান আছে যেগুলো শরীরের জন্য খুবই উপকারী। ক্যারোটিন ফুসফুস ও অন্যান্য ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।

ডেঙ্গু জ্বর: ডেঙ্গু প্রতিরোধে পেঁপের বীজের তুলনা নেই। ডেঙ্গু জ্বর হলে প্লেটলেট কমতে শুরু করে। এ সময় নিয়মিত পেঁপের পাতা ও বীজ খেলে প্লেটলেট স্বাভাবিক মাত্রায় ফিরে আসে।

ক্ষতিকর জীবাণুনাশ: পেঁপে ফলের বীজ প্রচুর প্রোটিওলাইটিক উৎসেচক। তাই দেহের ক্ষতিকর জীবাণু ধ্বংস করতে এর জুড়ি নেই। ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ থেকে রক্ষা করে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

পেঁপের বীজের নানান উপকারিতা

আপডেট টাইম : ০১:০৩:২০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

হাওর বার্তা ডেস্কঃ কাঁচা বা পাকা পেঁপে স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারি। পাকা পেঁপে হজম ও দৃষ্টিশক্তি বর্ধনসহ নানা উপকার করে। কিন্তু পেঁপের বীজের গুণাবলী জানলে আপনিও হয়ত আর ফেলবেন না। পেঁপের বীজে রয়েছে ভিটামিন ও মিনারেল।

পেঁপের বীজের নানান উপকারিতা নিচে দেওয়া হল –

দৃষ্টি ভালো করে: প্রতিদিন পেঁপে খাওয়ার ফলে দৃষ্টিশক্তি ভালো হয়। এর মধ্যে থাকা ভিটামিন এ, সি, ই এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্টের কারণে এটি চোখের জন্য ভালো। এটি রেটিনাকে সুরক্ষা দেয়। এ ছাড়া ছানি এবং গ্লুকোমা প্রতিরোধে কাজ করে।

হৃদরোগ প্রতিরোধ: নিয়মিত পেঁপে খাওয়া হলে হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্যকে ভালো রাখে। এর মধ্যে রয়েছে ভিটামিন এ, সি, ই এবং শক্তিশালী অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। এটি শরীরের বাজে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমাতে সাহায্য করে।

যকৃতের সুরক্ষায়: ত্বকের যত্ন থেকে ক্যান্সার প্রতিরোধ, সবেতেই পেঁপের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে। বিশেষজ্ঞেরা জানাচ্ছেন, পানি ও দইয়ের সঙ্গে পেঁপে বীজের মিশ্রণ তৈরি করে নিয়মিত পান করলে যকৃত ভাল থাকে।

চুলের যত্নে: পেঁপে ও এর বীজ চুলের জন্যও বেশ ভালো। এটি দ্রুত চুলের বৃদ্ধিতে কাজ করে। এটি চুল ঘন হতেও সাহায্য করে। এটি খুশকি দূর করে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, চুলের স্বাস্থ্যকে ভালো রাখতে প্রতিদিন বীজসহ পেঁপে খান।

হজম শক্তি: এর মধ্যে থাকা পেপেইন হজমের প্রক্রিয়াকে ভালো করে। হজম দ্রুত করে, কোষ্ঠকাঠিন্য রোধেও সাহায্য করে। এটি অন্ত্রের ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।

ত্বকের যত্ন: তেলতেলে ত্বক এবং ব্রণের সমস্যা দূর করতে পেঁপে বীজ দিয়ে বানিয়ে ফেলুন ঘরোয়া মিশ্রণ। পেঁপে বীজ এবং পাতা বেটে ফেসপ্যাক বানিয়ে মুখে লাগিয়ে রাখুন ১০ মিনিট। ত্বকের হারানো ঔজ্জ্বল্য ফিরে আসবে।

আরথ্রাইটিস: পেঁপের মধ্যে রয়েছে প্রদাহরোধী উপাদান। এটি আরথ্রাইটিসের ব্যথা প্রতিরোধ করে এবং প্রদাহ কমাতে কাজ করে।

কৃমিনাশক হিসেবে: কাঁচা পেঁপের আঠা বীজ কৃমিনাশক। কাঁচা পেঁপের আঠা চিনি বা বাতাসার সাথে মিশিয়ে খেলে অর্শ ও জন্ডিস সহ লিবারের নানা রোগ ভালো হয়। এ আঠা প্রতিদিন সকালে ৫-৭ ফোটা বাতাসার সাথে মিসিয়ে খেলে অর্শের রক্ত পড়া বন্ধ হয়। ব্রন আচিল জিভের ঘায়ে এ আঠা লাগলে খুব উপকার হয়।

কোলেস্টেরল কমায়: অন্যান্য ফলের মতই পেঁপেতে কোনো কোলেস্টেরল নেই। আর পেঁপেতে আছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার। তাই কোলেস্টেরলের সমস্যায় যারা দুশ্চিন্তায় আছেন তারা প্রতিদিনের খাবার তালিকায় পেঁপে রাখুন। অন্যান্য কোলেস্টেরল যুক্ত খাবারের বদলে পেঁপে খান। তাহলে আপনার কোলেস্টেরলের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়: পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, বিটা ক্যারোটিন, ফ্লেভানয়েড, লুটেইন, ক্রিপ্টোক্সান্থিন আছে। এছাড়াও আরো অনেক পুষ্টি উপাদান আছে যেগুলো শরীরের জন্য খুবই উপকারী। ক্যারোটিন ফুসফুস ও অন্যান্য ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।

ডেঙ্গু জ্বর: ডেঙ্গু প্রতিরোধে পেঁপের বীজের তুলনা নেই। ডেঙ্গু জ্বর হলে প্লেটলেট কমতে শুরু করে। এ সময় নিয়মিত পেঁপের পাতা ও বীজ খেলে প্লেটলেট স্বাভাবিক মাত্রায় ফিরে আসে।

ক্ষতিকর জীবাণুনাশ: পেঁপে ফলের বীজ প্রচুর প্রোটিওলাইটিক উৎসেচক। তাই দেহের ক্ষতিকর জীবাণু ধ্বংস করতে এর জুড়ি নেই। ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ থেকে রক্ষা করে।