ঢাকা ১২:২৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভারত ছাড়াও নয় দেশ থেকে আসবে পেঁয়াজ

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ০৬:০৪:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৪ অগাস্ট ২০২৩
  • ৯৬ বার

হাওর বার্তা ডেস্কঃ দেশে পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে ভারত ছাড়াও আরও ৯ দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি দিয়েছে সরকার।

ভারতের চীন, মিশর, পাকিস্তান, কাতার, তুরস্ক, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে পেঁয়াজ আনা হবে দেশে।

এ পর্যন্ত মোট ১৩ লাখ ৭৩ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানির অনুমতির বিপরীতে দেশে এসেছে ৩ লাখ ৭৯ হাজার টন।

বৃহস্পতিবার (২৪ আগস্ট) কৃষি মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ভারত ছাড়াও আরও ৯ দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে চীন থেকে ২৪০০ টন, মিশর ৩৯১০টন, পাকিস্তান থেকে ১১৮২০ টন, কাতার ১১০০ টন, তুরস্ক ২১১০ টন, মিয়ানমার ২০০টন, থাইল্যান্ড ৩৩ টন, নেদারল্যান্ডস ৪ টন ও ইউএই থেকে ৩ টনের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

এদিকে, অভ্যন্তরীণ বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেঁয়াজ রপ্তানিতে ৪০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করেছে ভারত। এতে বাংলাদেশের বাজারে বেড়েছে আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজের দাম। সে সুযোগ দেশি পেঁয়াজেরও দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজে ৪০ শতাংশ শুল্ক আরোপের পর দেশের বাজারে কেজিতে দাম বেড়েছে প্রায় ১০-১৫ টাকা। তবে গত দুইদিনের তুলনায় আজ কিছুটা দাম কম আছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর বাজারে ঘুরে দেখা যায়, মানভেদে আমদানি করা প্রতি পাল্লা (৫ কেজি) ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৮০ টাকা থেকে ৩০০ টাকায়। যা কেজিতে পড়ছে ৫৬ টাকা থেকে ৬০ টাকা। অথচ গত সপ্তাহে অর্থাৎ ভারত সরকারের শুল্ক আরোপের আগে এই এই বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ২৪০ টাকা থেকে ২৬০ টাকা পাল্লা। কেজিতে পড়েছিল ৪৮ টাকা থেকে ৫২ টাকা।

এদিকে ভারতীয় পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির সুযোগে দেশি পেঁয়াজেরও দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। কারওয়ান বাজারে বর্তমানে প্রতি পাল্লা ফরিদপুরের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩৮০ থেকে ৩৯০ টাকা, কেজিতে পড়ছে ৭৬ থেকে ৭৮ টাকা। এছাড়া পাবনার হাইব্রিড পেঁয়াজের পাল্লা বিক্রি হচ্ছে ৪০০ টাকা, কেজিতে ৮০ টাকা এবং পাবনার (অরজিনাল) পেঁয়াজ ৪৪০ টাকা, কেজিতে ৮৮ টাকা। অথচ গত সপ্তাহে এই বাজারে ফরিদপুরের পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হয়েছে ৭০ থেকে ৭২ টাকায়, পাবনা (হাইব্রিড) পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৭৫ টাকা এবং পাবনার (অরজিনাল) পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৮০ টাকা।

উল্লেখ্য, গত ১৯ আগস্ট হঠাৎ করে দেশে পেঁয়াজ রপ্তানিতে ৪০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করে ভারত। যা চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বহাল থাকবে। এর আগে শুল্কমুক্তভাবেই দেশটি থেকে পেঁয়াজ আসতো বাংলাদেশে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

ভারত ছাড়াও নয় দেশ থেকে আসবে পেঁয়াজ

আপডেট টাইম : ০৬:০৪:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৪ অগাস্ট ২০২৩

হাওর বার্তা ডেস্কঃ দেশে পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে ভারত ছাড়াও আরও ৯ দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি দিয়েছে সরকার।

ভারতের চীন, মিশর, পাকিস্তান, কাতার, তুরস্ক, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে পেঁয়াজ আনা হবে দেশে।

এ পর্যন্ত মোট ১৩ লাখ ৭৩ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানির অনুমতির বিপরীতে দেশে এসেছে ৩ লাখ ৭৯ হাজার টন।

বৃহস্পতিবার (২৪ আগস্ট) কৃষি মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ভারত ছাড়াও আরও ৯ দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে চীন থেকে ২৪০০ টন, মিশর ৩৯১০টন, পাকিস্তান থেকে ১১৮২০ টন, কাতার ১১০০ টন, তুরস্ক ২১১০ টন, মিয়ানমার ২০০টন, থাইল্যান্ড ৩৩ টন, নেদারল্যান্ডস ৪ টন ও ইউএই থেকে ৩ টনের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

এদিকে, অভ্যন্তরীণ বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেঁয়াজ রপ্তানিতে ৪০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করেছে ভারত। এতে বাংলাদেশের বাজারে বেড়েছে আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজের দাম। সে সুযোগ দেশি পেঁয়াজেরও দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজে ৪০ শতাংশ শুল্ক আরোপের পর দেশের বাজারে কেজিতে দাম বেড়েছে প্রায় ১০-১৫ টাকা। তবে গত দুইদিনের তুলনায় আজ কিছুটা দাম কম আছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর বাজারে ঘুরে দেখা যায়, মানভেদে আমদানি করা প্রতি পাল্লা (৫ কেজি) ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৮০ টাকা থেকে ৩০০ টাকায়। যা কেজিতে পড়ছে ৫৬ টাকা থেকে ৬০ টাকা। অথচ গত সপ্তাহে অর্থাৎ ভারত সরকারের শুল্ক আরোপের আগে এই এই বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ২৪০ টাকা থেকে ২৬০ টাকা পাল্লা। কেজিতে পড়েছিল ৪৮ টাকা থেকে ৫২ টাকা।

এদিকে ভারতীয় পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির সুযোগে দেশি পেঁয়াজেরও দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। কারওয়ান বাজারে বর্তমানে প্রতি পাল্লা ফরিদপুরের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩৮০ থেকে ৩৯০ টাকা, কেজিতে পড়ছে ৭৬ থেকে ৭৮ টাকা। এছাড়া পাবনার হাইব্রিড পেঁয়াজের পাল্লা বিক্রি হচ্ছে ৪০০ টাকা, কেজিতে ৮০ টাকা এবং পাবনার (অরজিনাল) পেঁয়াজ ৪৪০ টাকা, কেজিতে ৮৮ টাকা। অথচ গত সপ্তাহে এই বাজারে ফরিদপুরের পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হয়েছে ৭০ থেকে ৭২ টাকায়, পাবনা (হাইব্রিড) পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৭৫ টাকা এবং পাবনার (অরজিনাল) পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৮০ টাকা।

উল্লেখ্য, গত ১৯ আগস্ট হঠাৎ করে দেশে পেঁয়াজ রপ্তানিতে ৪০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করে ভারত। যা চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বহাল থাকবে। এর আগে শুল্কমুক্তভাবেই দেশটি থেকে পেঁয়াজ আসতো বাংলাদেশে।