,

555555

এক কোটি ৩৬ লাখ কভিট টিকা ফেলে দিচ্ছে কানাডা

হাওর বার্তা ডেস্কঃ অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রোজেনেকার এক কোটি ৩৬ লাখ ডোজ করোনা টিকা ফেলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কানাডা। সংবাদসংস্থা এপি কানাডা সরকারের এ সিদ্ধান্তের কথা প্রকাশ করেছে। টিকা নেওয়ার লোক না থাকা ও কম চাহিদার কারণে এগুলোর মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে।
করোনা সংক্রমণ রুখতে ২০২০ সালে ২০ মিলিয়ন ডোজের জন্য অ্যাস্ট্রোজেনেকার সঙ্গে চুক্তি করে কানাডা। বর্তমানে ২.৩ মিলিয়ন কানাডার মানুষ করোনার প্রথম ডোজ পেয়েছেন। আর সেটা দেওয়া হয় ২০২১ সালের মার্চ থেকে জুনের মধ্যে।
কিন্তু অ্যাস্ট্রোজেনেকার টিকায় রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে কানাডা প্রশাসন। এরপর দেশটির সরকার করোনা টিকার জন্য ফাইজার ও মর্ডানার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়।
২০২১ সালের জুলাইয়ে ফের নতুন করে করোনা টিকাদানের সূচির কথা ঘোষণা করে কানাডা। যারা প্রথম ডোজ পাননি কিংবা দ্বিতীয় ডোজ নেবেনে এমন ১৭.৭ মিলিয়ন ডোজের প্রয়োজন পড়ে।
সরকারি প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী টিকা দেওয়া হলেও দেখা গেছে ১৩.৬ মিলিয়ন ডোজের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। ফলে সেগুলো ফেলে দেওয়ার ছাড়া আর কোনো উপায় নেই বলে জানানো হয়েছে। এত টিকা নষ্ট হওয়ার মূল কারণ ছিলই অ্যাস্ট্রোজেনেকার প্রতি অনীহা।
এপি আরও জানিয়েছে, কানাডা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রোজেনেকার কোভিড ভ্যাকসিনের ৮.৯ মিলিয়ান ডোজ ব্যবহার করা সম্ভব হয়েছে। বর্তমানে কানাডায় ৮৫ শতাংশ মানুষের করোনার দ্বিতীয় ডোজ নেওয়া সম্পূর্ণ হয়েছে। সারা বিশ্বে এর পরিমাণ মাত্র ৬১ শতাংশ। আর দরিদ্র দেশগুলোর মাত্র ১৬ শতাংশ মানুষ করোনার দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন।
করোনা সংক্রমণ রুখতে ব্যাপতভাবে ব্যবহার করা হয়েছিল অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রোজেনেকার কোভিড ভ্যাকসিন। তিনটি ট্রায়াল সম্পূর্ণ করার পরই দেওয়া হয়েছিল ছাড়পত্র। তার পরেও কানাডায় কেন অ্যাস্ট্রোজেনেকা ব্যবহার করা হলো না, তা নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু করেছে জল্পনা। বর্তমানে করোনা সংক্রমণ রুখতে বের হয়েছে একাধিক টিকা।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর