,

image-547152-1651376062

যে কারণে ইউক্রেন সফরে অ্যাঞ্জেলিনা জোলি

হাওর বার্তা ডেস্কঃ সাবেক বিশ্বসুন্দরী ও হলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলি যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেন সফর করেছেন। শনিবার দেশটির ক্ষতিগ্রস্ত লিভিভ শহরে যান তিনি। সফরে বাস্তুচ্যুতদের সঙ্গে কথা বলে তাদের দুর্দশতার কথা জানের জাতিসংঘের শরনার্থী বিষয়ক সংস্থার বিশেষ এ দূত। খবর রয়টার্সের।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার তথ্য মতে, দুই মাসের বেশি সময় ধরে চলা এই যুদ্ধে ইউক্রেনের এক কোটিরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। এ সংখ্যা ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর আগের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৩০ শতাংশ।

সফরকালে বাস্তুচ্যুত মানুষদের নিয়ে কাজ করা স্বেচ্ছাসেবীদের সঙ্গে কথা বলেন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। তারা জোলিকে জানান, কর্তব্যরত একজন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ প্রতিদিন ১৫ জন মানুষের সঙ্গে কথা বলেন। স্বেচ্ছাসেবকেরা তাকে আরও জানান, রেলস্টেশনে আশ্রয় নেওয়াদের মধ্যে বেশির ভাগ শিশু, যাদের বয়স দুই থেকে ১০ বছর।

শিশুদের এমন ভয়াবহ পরিস্থিতি দেখে সহমর্মিতা প্রকাশ করেন জোলি। বলেন, ‘এ ধরনের ঘটনা শিশুদের মনোজগতের জন্য একটা ধাক্কা। আমি জানি মানসিক ধাক্কা কীভাবে শিশুদের জীবনে প্রভাব ফেলে। আমি জানি তারা কতটা গুরুত্বপূর্ণ, তাদের কণ্ঠ কতটা গুরুত্বপূর্ণ।’

ইউক্রেন সফরে রুশ বাহিনীর হামলায় ঘরবাড়ি হারিয়ে লিভিভের একটি রেলস্টেশনে  আশ্রয় নেওয়া মানুষের সঙ্গে দেখা করেন জোলি।

এ সময় স্টেশন চত্বরে থাকা একটি ছোট শিশুকে কোলে তুলে নেন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। তার কোলে ওঠার পর শিশুটিকে খুবই উচ্ছ্বসিত দেখাচ্ছিল। স্টেশন ত্যাগের আগে স্বেচ্ছাসেবী ও শিশুদের সঙ্গে ছবি তোলেন এ অভিনেত্রী।

লিভিভের আঞ্চলিক গভর্নর ম্যাক্সিম কোজিৎস্কি টেলিগ্রামে জোলির শিশুদের সঙ্গে খেলাধুলা করা ও স্বেচ্ছাসেবীদের সঙ্গে দাঁড়িয়ে থাকার ছবি এবং ভিডিও প্রকাশ করেছেন।

তিনি লিখেছেন, আমাদের সবার জন্যই তার এই সফর বিস্ময়কর ছিল।

পরে রাশিয়ার হামলায় আহত শিশুদের দেখতে একটি হাসপাতালে যান জোলি। তিনি বাস্তুচ্যুতদের মানসিকভাবে সাহায্য করার জন্য স্বেচ্ছাসেবীদের প্রতি আহ্বান জানান।

গত মাসে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেন সফর করেন জোলি। যুদ্ধের কারণে দেশটির লাখ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর ঘোষণা দেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এর পর থেকেই পশ্চিমাদের বাধা উপেক্ষা করে পূর্ব ইউরোপের দেশটিতে চলছে রুশ সেনাদের সামরিক অভিযান।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর