,

download (1)

মার্কিন প্রতিবেদনে ভারতে ব্যাপক মানবাধিকার লঙ্ঘনের চিত্র

হাওর বার্তা ডেস্কঃ মানবাধিকার বিষয়ক মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের সর্বশেষ প্রতিবেদনে ভারতে বড়ধরনের মানবাধিকার লঙ্ঘনের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে সরকারি এজেন্টদের দ্বারা বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, মুসলমানদের বিরুদ্ধে সহিংসতা এবং অধিকৃত কাশ্মীরে সরকারি ও বেসরকারি বাহিনীর দ্বারা ব্যাপক হত্যাযজ্ঞ। ভারত রাশিয়া থেকে তেল রপ্তানি বাড়ালে এই পরিণতি হতে পারে বলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একজন সিনিয়র কর্মকর্তার সতর্ক বার্তার সাথে মিলে যায় এই সপ্তাহের শুরুর দিকে প্রকাশিত প্রতিবেদনটি। -ডন, সাসটিভি

মার্কিন মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলিও উল্লেখ করেছে যে, সম্প্রতি ভারত সরকার কর্ণাটক রাজ্যে শিক্ষার্থীদের হিজাব পরা নিষিদ্ধ করার অনুমতি দিয়েছে। এটি এমন একটি পদক্ষেপ যা বিশ্বব্যাপী সমালোচিত হয়েছে কিন্তু রাজ্য উচ্চ আদালত তা বহাল রেখেছে। মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট ভারতের কিছু অংশে মুসলমানদের টার্গেট করার বিষয়ে বিশ্বাসযোগ্য তথ্য পেয়েছে বলেও জানিয়েছে প্রতিবেদনটি। রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে, কিছু নির্দিষ্ট এলাকায় মুসলিম সম্প্রদায়গুলেঅ সাম্প্রদায়িক সহিংসতার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ এবং মুসলিম সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে বৈষম্যমূলক সহিংসতা, শারীরিক নির্যাতন, বৈষম্য, জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুতি এবং সন্দেহভাজন গরু চোরাচালানের নামে গণহত্যা এ ঘটনাগুলোর সাথে অব্যাহত ছিল।

স্টেট ডিপার্টমেন্ট ভারতে “উল্লেখযোগ্য মানবাধিকার লঙ্ঘনের” রিপোর্ট পেয়েছে, যার মধ্যে বেআইনি ও নির্বিচারে হত্যা, সরকার বা এর এজেন্টদের দ্বারা বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড; পুলিশ এবং কারাগারের কর্মকর্তাদের দ্বারা নিষ্ঠুর, অমানবিক বা অবমাননাকর আচরণ বা নির্যাতন এবং মামলা উল্লেখযোগ্য। কঠোর এবং জীবন-হুমকিপূর্ণ কারাগারের অবস্থা; সরকারী কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নির্বিচারে গ্রেফতার ও আটক; রাজনৈতিক বন্দী বা বন্দী এবং গোপনীয়তার সাথে স্বেচ্ছাচারী বা বেআইনী হস্তক্ষেপ প্রভৃতির কথা প্রতিবেদনে উদ্বেগের সাথে তুলে ধরা হয়।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে পরিচিত হলেও ভারত সহিংসতা, সহিংসতার হুমকি, সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অযৌক্তিক গ্রেপ্তার বা বিচার, সামাজিক মিডিয়ায় বক্তব্যের জন্য বিচার, ফৌজদারি মানহানিকর আইনের ব্যবহার এবং ইন্টারনেট স্বাধীনতার উপর বিধিনিষেধসহ, স্বাধীন মতপ্রকাশ এবং মিডিয়ার উপর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। ভারত বেসরকারি সংস্থা, সুশীলসমাজ, সংস্থাগুলির অর্থায়ন বা অপারেশন এবং উদ্বাস্তুদের পুনর্বাসনের উপর অত্যধিক নিষেধাজ্ঞামূলক আইন আরোপ করেছে। গুরুতর সরকারি দুর্নীতির অস্তিত্ব; দেশীয় ও আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলোকে সরকারিভাবে হয়রানি করার আরেকটি বড় উদ্বেগের তথ্য প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর