,

IMG_20211112_095351

করিমগঞ্জের ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ৫, জাতীয় পার্টি ১, স্বতন্ত্র ৪ চেয়ারম্যান নির্বাচিত

হাওর বার্তা ডেস্কঃ কিশোরগঞ্জ করিমগঞ্জ উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের নির্বাচনে ফলাফল ৫ টিতে আওয়ামী লীগ, ১ টিতে জাতীয় পার্টি ও ৪ টিতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। বাকি একটি ইউনিয়নের এক কেন্দ্রের ভোট স্থগিত রয়েছে। স্বতন্ত্র প্রার্থী যারা বিজয়ী হয়েছে তাদের মধ্যে বিএনপির তিন জন ও একজন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন।

আওয়ামী লীগের বিজয়ীরা হলেন, গুজাদিয়া ইউনিয়নে সৈয়দ মাসুদ, বারঘরিয়ায় কামরুল আহসান কাঞ্চন, নিয়ামতপুরে মো. হেলিম, গুনধর ইউনিয়নে আবু সায়েম রাসেল ও জাফরাবাদে আবু সাদাৎ মো. সায়েম।

কিরাটন ইউনিয়নে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী রফিকুল ইসলাম বিজয়ী হয়েছেন।
স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে কাদিরজঙ্গল ইউনিয়নে আরিফ উদ্দিন কনক, দেহুন্দায় এম এ হানিফ, জয়কা ইউনিয়নে হুমায়ুন কবির ও নোয়াবাদে মোস্তফা কামাল বিজয়ী হয়েছেন।

সুতারপাড়া ইউনিয়নের একটি কেন্দ্র স্থগিত থাকায় চুড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি। তবে গ্রহণকৃত ভোটের মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কামাল হোসেন এগিয়ে রয়েছেন।

কিরাটন ইউনিয়নে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী রফিকুল ইসলাম (লাঙ্গল) ২ হাজার ৮৩২ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী সাইদুর রহমান (চশমা) পেয়েছেন ২ হাজার ৭৯৬ ভোট।
বারঘড়িয়ায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কামরুল আহসান কাঞ্চন (নৌকা) ৫ হাজার ৩৩৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন । তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আইয়ুব উদ্দিন (লাঙ্গল) পেয়েছেন ৪ হাজার ৭৮ ভোট।

গুনধর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আবু ছায়েম রাসেল (নৌকা) ৫ হাজার ১৫৮ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী আমিনুল হক কাদের (ঘোড়া) পেয়েছেন ৪ হাজার ৮২১ ভোট।

জাফরাবাদ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের আবু সাদাৎ মো. সায়েম (নৌকা) ২ হাজার ৭৭৮ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সাইফুদ্দিন ফকির মিলন (চশমা) পেয়েছেন ২ হাজার ১৩৯ ভোট।

গুজাদিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সৈয়দ মাসুদ (নৌকা) ৮ হাজার ৩১১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী হাফিজুল ইসলাম তুহিন (চশমা) পেয়েছেন ৭ হাজার ৬৮৪ ভোট।

নিয়ামতপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. হেলিম (নৌকা) ৮ হাজার ৬১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির মিছবাহ উদ্দিন সায়েল (লাঙ্গল) পেয়েছেন ৭ হাজার ৩৩৬ ভোট।

নোয়াবাদ ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোস্তফা কামাল (চশমা) ৪ হাজার ২০৩ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির প্রার্থী মাসুদুজ্জামান রতন (লাঙ্গল) পেয়েছেন ৩ হাজার ৩২৪ ভোট।

জয়কা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী হুমায়ূন কবির (অটোরিকশা) ৩ হাজার ৫৮১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আশরাফ উদ্দিন (চশমা) পেয়েছেন ৩ হাজার ১৩৭ ভোট।

দেহুন্দা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী এমএ হানিফ (আনারস) ৪ হাজার ২৬৭ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সঞ্জু (চশমা) পেয়েছেন ৩ হাজার ৮৬৫ ভোট।

কাদিরজঙ্গল ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আরিফ উদ্দিন কনক (অটোরিকশা) ৪ হাজার ১২৬ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রিপন (ঘোড়া) পেয়েছেন ৩ হাজার ৬৪৮ ভোট।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর