স্ত্রী-সন্তানদের হত্যা, মরদেহের সঙ্গে ৩ রাত কাটালেন স্বামী

স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা করে সেই ঘরেই মরদেহগুলোর সঙ্গে টানা তিনদিন কাটিয়ে দিয়েছেন এক ব্যক্তি। লাশ পচে দুর্গন্ধ ছড়ালে চাঞ্চল্যকর এ খুনের ঘটনা সবার সামনে আসে। গত বৃহস্পতিবার( ২৮ মার্চ) রাতে ভারতের লখনউয়ের সারাবন নগর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সময় রবিবার পুলিশ এ খবর জানায়।

লখনউয়ের পুলিশ জানিয়েছে, ওই ব্যক্তির নাম রাম লাগান। তিনি মনে করতেন, তার স্ত্রী জ্যোতির (৩০) বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক রয়েছে। এমন সন্দেহে রাম ওড়না দিয়ে শ্বাসরোধ করে স্ত্রীকে হত্যা করেন। এই দৃশ্য দেখে ফেলে তাদের দুই শিশু সন্তান পায়েল (৬) এবং আনন্দ (৩)।

পুলিশের কাছে ধরা পড়ার ভয়ে সন্তানদেপুলিশ আরো জানান, রাম লাগান ও জ্যোতির সাত বছরের সংসার। কিন্তু রামের সন্দেহ, তার স্ত্রীর অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে। স্ত্রীর কাছে ফোন এলেই রাম আড়ি পেতে শোনার চেষ্টা করতেন।

এ নিয়ে প্রায়ই তাদের মধ্যে তর্ক হতো। ২৮ মার্চ রাতেও তাদের মধ্যে তর্ক শুরু হয়। এর পরেই রাম এই ঘটনা ঘটায়।’ তবে ট্রিপল খুনের অভিযোগে অভিযুক্ত রাম সেই ঘরেই ছিলেন এবং স্ত্রী ও সন্তানদের লাশের পাশেই রাত কাটাতেন। সকালে বের হয়ে যেতেন এবং রাতে আবার ফিরে আসতেন।
টানা তিন দিন ধরে চলতে থাকে এই চক্র। অবেশেষে মৃতদেহগুলো পচে দুর্গন্ধ ছড়ালে বাড়িওয়ালা দেখতে আসেন। এ সময় বাড়ির দরজা খোলা ছিল। বাড়িওয়ালা ভিতরে প্রবেশ করে বস্তায় তিনটি লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেন।পুলিশ লগনকে গ্রেপ্তার করলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। জনাকীর্ণ এলাকা হওয়ায় মৃতদেহগুলো সরিয়ে নিতে পারেনি রাম। এমনকি তিনি প্রতিবেশীদেরও বলেছিলেন, স্ত্রী-সন্তান হোলি উদযাপন করতে এক আত্মীয়ের বাড়িতে গিয়েছে। পুলিশ মৃতদেহগুলো ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে এবং তদন্ত চলছে।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর