ঢাকা ০৩:৫০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ব্রাজিলে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ে অন্তত ২২ জনের মৃত্যু

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ১১:৩৯:৩১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • ৭১ বার

হাওর বার্তা ডেস্কঃ ব্রাজিলে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ে অন্তত ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার দেশটির দক্ষিণাঞ্চলে এই ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে। এতে বাস্তুচ্যুত হয়েছে আরও অন্তত কয়েকশ মানুষ।

ব্রাজিলের দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য রিও গ্রান্দে দো সালের গভর্নর এদুয়ার্দো লেইতে জানিয়েছেন, রাজ্যের অন্তত ৬০টি শহর এই ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের কারণে শহরগুলোতে ব্যাপক বন্যার সৃষ্টি হয়। বন্যার পানি নেমে গেলে বিভিন্ন শহর থেকে ২১ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সান্তা কাতারিনায় আরও একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। খবর আল জাজিরার

রিও গ্রান্দে দো সালের পাসো ফুন্দো শহরের বাসিন্দা লুয়ানা দ্য লুজ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, ‘সকালের (মঙ্গলবার) দিকেই আমরা দেখতে পাই বন্যার পানি ক্রমেই বাড়ছে। আমাদের বাড়িঘর ডুবে যাচ্ছিল। ফলে আমরা জিনিসপত্রগুলোকে বিছানা, টেবিল এমনকি চুলার তাকের ওপরও রাখার চেষ্টা করে রক্ষা করার চেষ্টা করেছি কিন্তু কোনো লাভ হয়নি।’

এক খবরে এপি জানিয়েছে, এই ঘূর্ণিঝড় এবং বন্যায় অন্তত সাড়ে ১৬ শ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে।  অপরদিকে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, বাস্তুচ্যুতদের সংখ্যা ৩ হাজার ৭০০ এর কম নয়।

নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে রয়টার্স জানিয়েছে, কেবল রিও গ্রান্দে দো সালে রাজ্যেই ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। পার্শ্ববর্তী সান্তা কাতারিনায় আরও একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

ব্রাজিলে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ে অন্তত ২২ জনের মৃত্যু

আপডেট টাইম : ১১:৩৯:৩১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩

হাওর বার্তা ডেস্কঃ ব্রাজিলে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ে অন্তত ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার দেশটির দক্ষিণাঞ্চলে এই ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে। এতে বাস্তুচ্যুত হয়েছে আরও অন্তত কয়েকশ মানুষ।

ব্রাজিলের দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য রিও গ্রান্দে দো সালের গভর্নর এদুয়ার্দো লেইতে জানিয়েছেন, রাজ্যের অন্তত ৬০টি শহর এই ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের কারণে শহরগুলোতে ব্যাপক বন্যার সৃষ্টি হয়। বন্যার পানি নেমে গেলে বিভিন্ন শহর থেকে ২১ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সান্তা কাতারিনায় আরও একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। খবর আল জাজিরার

রিও গ্রান্দে দো সালের পাসো ফুন্দো শহরের বাসিন্দা লুয়ানা দ্য লুজ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, ‘সকালের (মঙ্গলবার) দিকেই আমরা দেখতে পাই বন্যার পানি ক্রমেই বাড়ছে। আমাদের বাড়িঘর ডুবে যাচ্ছিল। ফলে আমরা জিনিসপত্রগুলোকে বিছানা, টেবিল এমনকি চুলার তাকের ওপরও রাখার চেষ্টা করে রক্ষা করার চেষ্টা করেছি কিন্তু কোনো লাভ হয়নি।’

এক খবরে এপি জানিয়েছে, এই ঘূর্ণিঝড় এবং বন্যায় অন্তত সাড়ে ১৬ শ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে।  অপরদিকে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, বাস্তুচ্যুতদের সংখ্যা ৩ হাজার ৭০০ এর কম নয়।

নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে রয়টার্স জানিয়েছে, কেবল রিও গ্রান্দে দো সালে রাজ্যেই ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। পার্শ্ববর্তী সান্তা কাতারিনায় আরও একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।