,

আইন অমান্য করে সমাবেশ করলে বিএনপির বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেওয়া হবে: ডিএমপি কমিশনার

হাওর বার্তা ডেস্কঃ ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক বলেছেন, জননিরাপত্তা ও জনদুর্ভোগের কথা চিন্তা করে পল্টন পার্টি অফিসের সামনে বিএনপিকে গণসামাবেশের অনুমতি দেওয়া যাবে না। আইন অমান্য করলে বিএনপির বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আজ সন্ধ্যায় ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশের নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে জরুরি সংবাদ সম্মেলন এসব কথা বলেন তিনি।

সোয়াট নামানোর বিষয়ে জানতে চাইলে ডিএমপি কমিশনার বলেন, আমরা শুনেছি, ওখানে ককটেল বিস্ফোরণ হয়েছে।

চাল, ডাল ও লাঠি নিয়ে আসছে। আমাদের পুলিশ নিরাপত্তার স্বার্থে শক্তি বৃদ্ধি করেছে আজকে অফিসিয়াল ডে। কোনো পূর্বানুমতি ছাড়া রাস্তা বন্ধ করে সমাবেশ করবে তাতো কাম্য নয়।

খন্দকার গোলাম ফারুক বলেন, পল্টনের সামনে ১০ লাখ লোকের জায়গা হবে না।

সর্বোচ্চ এক লাখ লোক পল্টনে দাঁড়াতে পারবে। বাকি ৯ লাখ লোক ঢাকা শহরের বিভিন্ন রাস্তায় ছড়িয়ে পড়বে। যার উপর বিএনপির কোন নিয়ন্ত্রণ থাকবে না। এতে জনদুর্ভোগ ও জননিরাপত্তা জন্য তাদের পল্টনে সমাবেশ করতে দেওয়া হবে না।

আমরা গোয়েন্দা সংস্থা এবং মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পেরেছি বিএনপি ঢাকা শহরে ১০ লাখ লোক জামাতের মাধ্যমে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে। কাজেই পার্টি অফিসের সামনে জনদুর্ভোগ করে এবং ঢাকার আইন-শৃঙ্খলা বিঘ্ন করে তাদের সেখানে অনুমতি দেওয়া যাবে না। আপনারা যে কোন খোলা মাঠে যেতে পারেন বা অন্য কোন প্রস্তাব দিতে পারেন। অন্য প্রস্তাব হিসেবে তাদের বলা হয় ইজতেমা মাঠ আছে, সেখানে আপনার ১০ লাখ লোক জমায়াত করতে পারবেন। পূর্বাচলে বাণিজ্য মেলার মাঠ আছে, সেখানে যেতে পারেন।

দুটি কারণে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। প্রথম কারণ পল্টনে এতো লোকের জায়গা হবে না। যদি তারপরেও তারা সেখানে সমাবেশ করে তবে বাকি ৯ লাখ লোক ঢাকা শহরে বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে যাবে। যার উপর বিএনপির কোনো নিয়ন্ত্রণ থাকবে না এবং পুলিশেরও কোন নিয়ন্ত্রণ থাকবে না। একই সঙ্গে এই ১০ লাখ লোক ঢাকার সমস্ত রাস্তা দখল করলে ঢাকাবাসীর জন্য একটা চরম দুর্ভোগের বিষয় হবে।

সার্বিক দিক বিবেচনা করে তাদের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুমতি দেওয়া হয়। পরে মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারি তারা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করতে আগ্রহী না। তারা পল্টন বা তার আশেপাশে কোন রাস্তায় করতে আগ্রহী। এ প্রসঙ্গে আমাদের ডিএমপির সুস্পষ্ট বক্তব্য হচ্ছে, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বা এর মত কোন খোলা মাঠে সমাবেশ করতে হবে। আমরা জনদুর্ভোগ এবং জননিরাপত্তা বিষয়ে অগ্রাধিকার দিয়ে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

 

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর