,

হাফেজ তাকরীমের অদম্য ইচ্ছাতে বিশ্বজয়

হাওর বার্তা ডেস্কঃ পুরো নাম হাফেজ সালেহ আহমেদ তাকরীম। টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার ভাদ্রা গ্রামের জরাজীর্ণ বাড়িতে জন্ম তাকরীমের। বয়স সবে মাত্র ১৩ বছর। এই তের বছর বয়সেই বিশ্বের দরবারে উজ্জ্বল করেছে দেশের নাম। সৌউদী আরবে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় তৃতীয় স্থান অর্জনকারী বাংলাদেশের হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরীম। শিশু বয়স থেকেই তাকরীম পড়াশুনার প্রতি অনেক বেশি আগ্রহী। অদম্য ইচ্ছা শক্তিতে তাকরীম এই সুনাম অর্জন করেছে। তার এ সাফল্যে খুশি পরিবার ও এলাকাবাসী।

 

জানা যায়, টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার ভাদ্রা গ্রামের জরাজীর্ণ বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন তাকরীম। কোরআন ও পড়াশুনার প্রতি অদম্য আগ্রহের কাছে বারবার পরাজিত হয়েছে অর্থনৈতিক সীমাবদ্ধতা। তাই ছোট বয়স থেকেই একের পর এক অর্জন করে গেছেন সাফল্যের মুকুট। সৌউদী আরবের পবিত্র মক্কায় ৪২তম বাদশাহ আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় ১১১ দেশের ১৫৩ হাফেজের মধ্যকার প্রতিযোগিতায় তৃতীয় স্থান অর্জন করে তাকরীম।

তাকরীমের জন্ম টাঙ্গাইলে হলেও তার দাদার বাড়ি সিরাজগঞ্জের চৌহালীর চরাঞ্চলে। ১৪ বার নদী ভাঙনের শিকার হবার পর ২০১২ সালে তার বাবা স্থায়ী বসতি গড়েন টাঙ্গাইলের নাগরপুরের ভাদ্রা এলাকায়। বাবা আব্দুর রহমান সাভারের একটি মাদরাসায় শিক্ষকতা করেন। মা গৃহিণী। এই পরিবারের তিন সন্তানের মাঝে তার অবস্থান মেঝ। তাকরীমের ছয় বছর বয়সে তার মা অসুস্থ হলে বাবার কাছে থেকেই পড়াশুনা শুরু। ছোট বেলা থেকেই সে ছিল অদম্য মেধাবী ও পড়াশুনার প্রতি আগ্রহী।

তাকরীমের মা জানান, শিশু বয়স থেকেই তাকরীম পড়াশুনার প্রতি অনেক বেশি আগ্রহী। অদম্য ইচ্ছা শক্তিতে তাকরীম এই সুনাম অর্জন করেছে। তার এ সাফল্যে খুশি পরিবারের সবাই।
তাকরীমের স্বজন ও এলাকাবাসী জানান, তার এই অর্জনে গর্বিত সবাই। তাকরীমের এ সাফল্য শুধু ভাদ্রা গ্রামের নয়। তাকরীমের এ অর্জন, বাংলাদেশের অর্জন। তারা সরকারের পক্ষ থেকে আর্থিক সহযোগিতার দাবি জানিয়েছেন।

নাগরপুর উপজেলার ২ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. ফিরোজ হোসেন জানান, এর আগেও এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছিল। এবার আরো বড় পরিসরে সংবর্ধনা দেয়ার কথা জানান স্থানীয় ইউপি সদস্য।
নাগরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহেদুজ্জামান ইনকিলাবকে জানান, তাকরীমের এ সাফল্যে আমরা সত্যিই আনন্দিত। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তার পরিবারের প্রতি সব রকমের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিবো।
উল্লেখ্য, এর আগে গত মার্চে ইরানে প্রথম, মে মাসে লিবিয়ায় সপ্তম স্থান ও ২০২০ সালে বাংলাভিশন টেলিভিশন আয়োজিত হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয় সালেহ আহমেদ তাকরীম।

 

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর