,

21

করোনা সালমানের জন্য শাপে বর

হাওর বার্তা ডেস্কঃ বিশ্বজুড়ে এক আতঙ্কের নাম করোনাভাইরাস। এই মহামারির কারণে নাজেহাল সবাই। তবে সুপারস্টার সালমান খানের জন্য করোনা শাপে বর হয়েছে।

দুই দশকের বেশি সময় ধরে চলছে সালমানের বহুল আলোচিত কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা মামলা। ২০১৮ সালে এপ্রিলে এই মামলায় সালমানকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছিলেন যোধপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দেব সিং খাতরি। পাশাপাশি তাকে ১০ হাজার রুপি জরিমানা করা হয়। সালমান দুদিন কারাগারেও ছিলেন। এরপর জামিনে ছাড়া পান। পরে এই অভিনেতার জামিন বাতিলের জন্য আদালতে আপিল হয়।

এই মামলার পরবর্তী শুনানিতে সশরীরে সালমানকে আদালতে উপস্থিত থাকার নির্দেশ দেন যোধপুর আদালত। কিন্তু সম্প্রতি সালমানের আইনজীবী করোনা মহামারির সময়ে শুনানিতে এই অভিনেতাকে যেন হাজির না হতে হয় তার আবেদন করেন। আর এই আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত।

সালমানের আইনজীবী এইচ এস সারাসওয়াত জানান, মুম্বাই ও যোধপুরে করোনা রোগীর সংখ্যা দিন দিন যেভাবে বাড়ছে তাতে সালমানের আদালতে হাজির হওয়া নিরাপদ হবে না। আবেদন গ্রহণ প্রসঙ্গে এই আইনজীবী বলেন, ‘সালমানের হাজির না হওয়ার বিষয়ে আমাদের আবেদন গ্রহণ করে আগামী ১৬ জানুয়ারি পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছেন আদলত।’

১৯৯৮ সালে হিন্দি ভাষার ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’ সিনেমার শুটিং চলাকালীন সালমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে— যোধপুরের কাছে কঙ্কনী গ্রামে বিরল প্রজাতির কৃষ্ণসার হরিণ শিকার করেছেন তিনি। ভারতের বন্যপ্রাণী আইন অনুযায়ী বিরল প্রজাতির কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা দণ্ডনীয় অপরাধ। বিষ্ণোই সম্প্রদায়ের মানুষ এই হরিণকে ভক্তি করেন এবং রক্ষায় কাজ করে থাকেন। পরবর্তী সময়ে এ বিষয়ে মামলাও দায়ের হয়।

‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’ সিনেমায় সালমান খানের সহশিল্পী সাইফ আলী খান, সোনালী বেন্দ্রে, টাবু ও নীলমকেও এ মামলায় অভিযুক্ত করা হয়। তবে ২০১৮ সালে আদালতের রায়ে তারা অব্যাহতি পান।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর