,

jaman_3100_65950

বিএনপির রাজনৈতিক কৌশল নির্ধারণ সময়ের দাবি! মেজর (অব.) মো. আখতারুজ্জামান

সঠিক সময়ে সঠিক কাজ করতে না পারলে রাজনীতিতে পরাজিত হওয়া ছাড়া কোনো বিকল্প থাকে না। রাজনীতি সবাই জানে কিন্তু সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত সবাই নিতে পারে না।

রাজনীতি প্রচণ্ড খরস্রোতা নদীর মতো। খরস্রোতা নদী যেমন পাড়ের নরম মাটির কারণে বাঁক নিতে বাধ্য হয় তেমনি প্রতিপক্ষের দুর্বলতা রাজনীতির যুগান্তকারী সিদ্ধান্তের মাহেন্দ্রক্ষণ এনে দেয় এবং রাজনৈতিক বিজয় নির্ধারণ করে। রাজনৈতিক বিজয়ে প্রতিপক্ষের অবদান সবচেয়ে বেশি। রাজনীতিতে নেতা হতে বিদ্যাবুদ্ধি লাগে না, একমাত্র প্রয়োজন প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে সাহস করে দাঁড়ানো এবং টিকে থাকা। সময়ই বিজয় এনে দেবে।

সব সফল এবং কিংবদন্তিতুল্য রাজনৈতিক নেতাদের জীবনী ও তাদের রাজনৈতিক কার্যক্রম গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে, তারা সবাই তাদের প্রচণ্ডতম প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে অসীম সাহস নিয়ে লড়েছে এবং সময়ের পাল্লা দিয়ে টিকে থাকার সংগ্রাম করেছে।

বর্তমান প্রধানমন্ত্রীও কিন্তু ১৯৮১ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি হয়ে সক্রিয় রাজনীতি শুরু করেছিলেন। আজকের এ অবস্থায় এসে চরম পরাক্রমশালী হতে তার দীর্ঘ ৩৪ বছর সময় লেগেছে। এই দীর্ঘ সময় যারা ক্ষমতায় ছিল তারা কি বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর চেয়ে মেধায়, বুদ্ধি, ক্ষমতায় কম ছিল? কিন্তু বিভিন্ন সময়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর বিরোধীদের ভুল চালে তারা পেছনে চলে গেছে।

বিএনপির ভয় বা ঘাবড়ানোর কিছু নেই। সংকট যত গভীর হবে সমাধান তত বেশি নিকটবর্তী হবে। অনেকে অভিযোগ করেন কিন্তু ম্যাডামের চারপাশের চক্রকে নিয়ে আপনার আমার কারও ভাবার কোনো প্রয়োজন নেই। আসুন আমরা শুধু সাবধান থাকি, তাহলে কোনো চক্রই কোনো ক্ষতি করতে পারবে না।

রাজনৈতিক কৌশল আমাদের খোঁজার কোনো প্রয়োজন নেই। শুধু লক্ষ্য রাখতে হবে সরকার কি করছে এবং আগামীতে কি করতে চায়। সরকার এখন সম্ভবত দুটি লক্ষ্য নিয়ে সামনে এগুবে। প্রথম লক্ষ্য হবে কোনো অবস্থায়ই সরকার বিএনপিকে সংঘটিত হতে দেবে না। সরকার বিভিন্ন ছলচাতুরিতে বিএনপিকে অস্থির করে রাখবে। মামলা-হামলা করে বিএনপিকে ব্যতিব্যস্ত রাখবে। তারেক রহমানকে কোনো অবস্থায়ই রাজনীতির মাঠে আসতে দেবে না। তারেকের পক্ষে যারাই কথা বলবে তাদের চরমভাবে হেনস্থা করবে। ম্যাডাম ও তারেককে বিভিন্ন মামলায় দণ্ড দেওয়ার পর্যায়ে নিয়ে যাবে। দলের মধ্যে তারেকের বিরুদ্ধে সিনিয়রদের দিয়ে বিভাজনের সৃষ্টি করবে। দলের সাংগঠনিক কার্যক্রমে সরকার প্রচণ্ডতম বাধা সৃষ্টি করার চেষ্টা করবে। দলের প্রবীণ-নবীনদের মধ্যে সংঘাত লাগানোর চেষ্টা করবে। সরকার জামায়াতকে ২০-দলের জোটের বাইরে নিয়ে যাওয়ার চক্রান্ত করবে। সেই সঙ্গে সরকারের দ্বিতীয় লক্ষ্য হবে সারা দেশে উন্নয়নের জোয়ার বয়ে দেওয়ার রাজনীতি করার।

সরকার আগামীতে প্রয়োজনে গণতন্ত্রকে হত্যা করে হলেও উন্নয়ন কর্মকাণ্ড দেখিয়ে লিকুয়ান বা মাহাথির মোহাম্মদ হওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করবে। আমাদের ভুলে যাওয়া উচিত হবে না, এ দেশের মানুষ সাদ্দাম-গাদ্দাফির ভক্ত। অনেকে প্রকাশ্যেও বলেন, এ দেশে যদি একজন সাদ্দাম আসত, লিকুয়ান বা মাহাথির মোহাম্মদের মতো উন্নয়নের রূপকার আসত, তাহলে সেই সরকার স্বৈরাচারী হলেও কোনো সমস্যা ছিল না!

সরকার মনে হয় সে পথেই হাঁটছে। তবে উন্নয়নের রাজনীতির সবচেয়ে বড় দুর্বলতা হলো লুটেরা শ্রেণি তৈরি ও সরকারি দলের নেতা, কর্মী, চামচা-চাটুকার এবং দলের সাঙ্গোপাঙ্গ ও অনুসারীদের লাগামহীন দুর্নীতিতে নামিয়ে দেয়। বিভিন্ন সময়ে সামরিক শাসকরা এ ধরনের উন্নয়নের রাজনীতি করার মহড়া দিয়েছে কিন্তু বেশিদিন টিকে থাকতে পারেনি। তবে উন্নয়নের রাজনীতির কিছু সুবিধা যে নেই, তা ঠিক নয়। উন্নয়নের রাজনীতির সবচেয়ে বড় শক্তি হলো কেউ এর বিরোধিতা করতে পারে না। সবাই কোনো না কোনো কারণে উন্নয়নকে সমর্থন করে এবং উন্নয়নের সঙ্গে বিভিন্নভাবে জড়িয়ে যায়। আমরা সবাই কোনো না কোনোভাবে উন্নয়নের সুবিধাভোগী হয়ে যাই, যার ফলে সরাসরি উন্নয়নের বিরোধিতা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। তবে সবাই মানসিকভাবে উন্নয়নের নামে কোনো প্রকার দুর্নীতি, অপকর্ম বা যে কোনো ধরনের সন্ত্রাসী কার্যক্রম চরমভাবে বিরোধিতা করতে প্রস্তুত থাকে এবং কেউ যদি দুর্নীতি, অপকর্ম বা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে সাহস দেখায় তাহলে চূড়ান্ত সংগ্রামে সাহসীদের সঙ্গে থাকে যার ভূরি ভূরি প্রমাণ আমাদের সামনে আছে। সেই সঙ্গে উন্নয়নের নামে কোনো ব্যক্তিকেও, সে যত বড় নেতাই হোক, তাকে কেউ দীর্ঘদিন মেনে নিতে চায় না।

বিএনপিকে উন্নয়নের বিরোধিতা করার রাজনীতির পথে হাঁটলে আমাদের গণবিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার অবস্থা সৃষ্টি হবে যা ভবিষ্যৎ রাজনীতিতে বিএনপিকে প্রচণ্ড প্রতিকূল অবস্থায় ফেলে দিতে পারে। জনগণ উন্নয়নের রাজনীতি দারুণ পছন্দ করে। রাজনৈতিক নেতা-কর্মীরাও উন্নয়নের রাজনীতির সঙ্গে থাকতে চান। উন্নয়নের রাজনীতি মানে নগদ রাজনীতি। হালুয়া-রুটির রাজনীতি। এই রাজনীতির বাইরে যাওয়া খুবই কঠিন। তাই উন্নয়নের রাজনীতির সরাসরি বিরোধিতা না করে উন্নয়নের সঙ্গে যে দুর্নীতির উন্নয়ন হবে সে বিষয়টিকে জনগণের সামনে নিয়ে আসতে হবে। উন্নয়নের রাজনীতিকে জনগণের কল্যাণের জন্য উৎসাহিত করে বিএনপি যদি খুব দক্ষ ও নিপুণতার সঙ্গে দেশব্যাপী দুর্নীতি প্রতিরোধ করার দুর্বার মনোভাব চাঙ্গা করে তুলতে পারে তাহলে উন্নয়নের রাজনীতির সবচেয়ে বড় ফায়দা হবে বিএনপির। তবে দেশব্যাপী দুর্নীতিবিরোধী মনোভাব সৃষ্টি করতে হলে সবার আগে দলকে দুর্নীতিমুক্ত করে অত্যন্ত গণতান্ত্রিকভাবে সুসংগঠিত করতে হবে যাতে জনমনে দৃঢ় আস্থা সৃষ্টি হয় যে, বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক দল এবং বিএনপি বিশ্বাস করে গণতন্ত্র ছাড়া জনপ্রত্যাশিত উন্নয়ন সম্ভব নয়। সে জন্য এখন বিএনপিকে শত প্রতিকূল ও বাধার মুখে দলকে নতুন আঙ্গিকে দেশ ও দলের বৃহত্তর স্বার্থে প্রয়োজনে দলের, নেত্রীর এবং তারেক রহমানের অনুগত পরীক্ষিত কোনো বিকল্প নেতৃত্ব সৃষ্টি করে দলকে পুনর্গঠিত করার দায়িত্ব দেওয়া হবে সময়ের সুবিবেচিত সিদ্ধান্ত। দল বাঁচলে আমরা সবাই বাঁচব।

সরকারের ভাব-সাবে মনে হচ্ছে, সরকার উন্নয়নের জন্য গণতন্ত্রকে বিদায় করে দেবে, যেটা হবে সরকারের সবচেয়ে বড় দুর্বলতা এবং এর বিপরীতে বিএনপিকে হাঁটতে হবে গণতন্ত্রের পথে এবং জনগণের সামনে অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে প্রমাণ করতে হবে গণতন্ত্র ছাড়া উন্নয়নে দেশ ও জাতির কোনো উন্নতি হয় না। গণতন্ত্র ছাড়া উন্নয়নে দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের ব্যাপকতা বাড়ে এবং জনগণের অকল্যাণ বয়ে আনে। তাই আগামী রাজনীতিতে বিএনপিকে দুর্নীতি ও সন্ত্রাসে জিরো সমর্থন বা টলারেন্স এবং গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, আচার-আচরণ ও অনুশীলনে শত ভাগ বাধ্যবাধকতা স্বচ্ছভাবে দৃশ্যমান করতে হবে। বিএনপিকে আগামীতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠিন অবস্থান নিয়ে দাঁড়াতে পারলে সামনে বিএনপির সুদিন কোনো শক্তিই ঠেকাতে পারবে না এবং পারবে না বলেই আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস।

তথাকথিত সাবেকি ঢঙে সন্ত্রাসী কার্যক্রম বা আন্দোলনের বাঁধা-ধরা পথে না হেঁটে আগামীতে যদি বিএনপি সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে সাহসের সঙ্গে প্রকাশ্যে দুর্বার গণপ্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারে তাহলে দেশের বেশির ভাগ মানুষ বিএনপির পক্ষে আসবে এবং আন্তর্জাতিক সমর্থনও অনেক বেড়ে যাবে বলেই অনেকের বিশ্বাস। রাজপথে কখনই সরকার পরিবর্তন হয় না, তবে রাজপথ বেদখল হলে সরকারের ক্ষমতার ভিত নড়বড়ে হয়ে যায়, যার সুযোগ সব সময় সুযোগ সন্ধানীরা নেয়। বিএনপির রাজনৈতিক কৌশল নিয়ে অযথা মাথা না ঘামিয়ে সরকারের দুর্বলতা চিহ্নিত করে সেখানে সময়মতো আঘাত হানার ক্ষমতা অর্জনই হবে আগামী দিনের সঠিক রাজনৈতিক কৌশল। সেই ক্ষমতা ও দৃঢ় দক্ষতা অবশ্যই বিএনপি এবং বিএনপির নেতৃত্বের আছে বলেই জনগণের প্রচণ্ড আস্থা এখনো রয়েছে। তবে সাহসী রাজনীতির কোনো বিকল্প নেই। রাজনীতি করতে বিদ্যাবুদ্ধির প্রয়োজন হয় না। প্রয়োজন হয় সাহস। প্রবল প্রতিকূল স্রোতের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর অসীম সাহস। যে সাহস অতীতে বিএনপি বহুবার দেখিয়েছে। তাই আবারও বলছি, রাজনীতিবিদদের বিদ্যবুদ্ধির প্রয়োজন নেই, তাদের পুঁথিগত বিদ্যাবুদ্ধি দেওয়ার লোকের অভাব কোনো কালেই হয়নি, হবেও না। প্রয়োজন সাহসের। সাহসী রাজনীতিবিদের অভাব চিরকালই থেকে যাবে। জনগণ সাহসী রাজনীতিবিদের পেছনে থাকে এবং এটাই চরম বাস্তবতা।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর