ঢাকা ০৮:২২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মিথ্যা কথার জন্য কীভাবে তওবা করবেন

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ০৩:৪৫:৩২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৯
  • ৩২০ বার

হাওর বার্তা ডেস্কঃ প্রশ্ন : নিকট অতীতে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে অনেক মিথ্যা কথা বলেছি। বিশেষভাবে আম্মার সঙ্গে। একদিন কথা বলার সময় নিজের উদ্দেশ্য সিদ্ধির জন্য আমি একটি স্বপ্নের কথা বলেছি যা মিথ্যা। আমি এর জন্য অনুতপ্ত। পরিবার ও মায়ের সঙ্গে বলা এ মিথ্যা থেকে আমি কীভাবে তওবা করতে পারি?

উত্তর : আলহামদুলিল্লাহ, আপনি মিথ্যা কথার জন্য অনুতপ্ত হয়েছেন এবং আল্লাহর ক্ষমা পেতে তওবা করতে চাচ্ছেন। এটা ঈমানের চিহ্ন যে, গুনাহের পর মন অনুশোচিত ও ভারাক্রান্ত হয়ে উঠে। গুনাহ তো মানুষের হয়েই যায়, কিন্তু এ থেকে ফিরে আসা পরিপূর্ণ মুমিনের গুণ।

কেবল বান্দার হক নষ্ট করা ছাড়া অন্য সকল গুনাহের তওবা হল, ভবিষ্যতে গুনাহটি আর কখনও না করার দৃঢ় সংকল্পের সঙ্গে আল্লাহর কাছে একনিষ্ঠ অন্তরে ক্ষমা প্রার্থনা করা। তাই আপনার করণীয় হল, প্রথমে ভবিষ্যতে মিথ্যা কথা ছেড়ে দেওয়ার দৃঢ় সংকল্প করবেন। এরপর এই গুনাহের জন্য লজ্জিত হয়ে আল্লাহ তাআলার নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করবেন।–উমদাতুল কারী ৩৬/৩২২ (শামেলা)

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

মিথ্যা কথার জন্য কীভাবে তওবা করবেন

আপডেট টাইম : ০৩:৪৫:৩২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

হাওর বার্তা ডেস্কঃ প্রশ্ন : নিকট অতীতে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে অনেক মিথ্যা কথা বলেছি। বিশেষভাবে আম্মার সঙ্গে। একদিন কথা বলার সময় নিজের উদ্দেশ্য সিদ্ধির জন্য আমি একটি স্বপ্নের কথা বলেছি যা মিথ্যা। আমি এর জন্য অনুতপ্ত। পরিবার ও মায়ের সঙ্গে বলা এ মিথ্যা থেকে আমি কীভাবে তওবা করতে পারি?

উত্তর : আলহামদুলিল্লাহ, আপনি মিথ্যা কথার জন্য অনুতপ্ত হয়েছেন এবং আল্লাহর ক্ষমা পেতে তওবা করতে চাচ্ছেন। এটা ঈমানের চিহ্ন যে, গুনাহের পর মন অনুশোচিত ও ভারাক্রান্ত হয়ে উঠে। গুনাহ তো মানুষের হয়েই যায়, কিন্তু এ থেকে ফিরে আসা পরিপূর্ণ মুমিনের গুণ।

কেবল বান্দার হক নষ্ট করা ছাড়া অন্য সকল গুনাহের তওবা হল, ভবিষ্যতে গুনাহটি আর কখনও না করার দৃঢ় সংকল্পের সঙ্গে আল্লাহর কাছে একনিষ্ঠ অন্তরে ক্ষমা প্রার্থনা করা। তাই আপনার করণীয় হল, প্রথমে ভবিষ্যতে মিথ্যা কথা ছেড়ে দেওয়ার দৃঢ় সংকল্প করবেন। এরপর এই গুনাহের জন্য লজ্জিত হয়ে আল্লাহ তাআলার নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করবেন।–উমদাতুল কারী ৩৬/৩২২ (শামেলা)