ঢাকা ০৪:৫০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এমপি ইকবালের ভাতিজা ফারিজকে পুলিশই নিরাপদে পৌঁছে দেয়

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ০৪:১৩:০৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৫
  • ২২২ বার

মধ্যপ অবস্থায় সাবেক এমপি ইকবালের কিশোর ভাতিজার গাড়ির চাপায় গুলশানে চারজন আহত হওয়ার ৪ দিন পরও থানায় মামলা হয়নি। বরং পুলিশের মধ্যস্থতায় আপস রফার চেষ্টা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে পুলিশের দাবি, এ ব্যাপারে থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি। অভিযোগ করলে তারা ব্যবস্থা নেবেন। সোমবার বিকালে গুলশান ১৪ নম্বর সড়কে কার রেসিংয়ের সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এ ঘটনা ঘটান সাবেক এমপি ডা. এইচবিএম ইকবালের ভাতিজা ও এইচবিএম জাহিদুর রহমানের ছেলে ফারিজ আহমেদ (১৬)। ঘটনার পর গাড়িটি আটক করলেও চালক ফারিজ আহমেদকে পুলিশই নিরাপদে পৌঁছে দেয় বলে অভিযোগ রয়েছে। অন্যদিকে গাড়িটির মালিকানা নিয়েও প্রথম দিন থেকে লুকোচুরি শুরু করে গুলশান থানা পুলিশ। গুলশান থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম বলেন, বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত ওই ঘটনায় কেউ মামলা করতে আসেননি। মামলা না হওয়ায় তারা কোনো ব্যবস্থা নিতে পারছেন না বলে তিনি দাবি করেন।
পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার মোশতাক আহমেদ খান বৃহস্পতিবার বলেন, ফারিজের গাড়ির ধাক্কায় কোনো শিশু নিহত হয়নি। তবে গাড়িটি দুই রিকশাকে ধাক্কা দিয়েছে বলে পুলিশ গাড়ি আটক করেছে। এ ঘটনায় আহতদের সঙ্গে ফারিজ আহমেদের পরিবার সমঝোতা করেছে। আহতদের পক্ষ থেকে মামলা হয়নি বলেই ফারিজ রহমানের বিরুদ্ধে পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নিতে পারেনি। কেউ মামলা করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সোমবার বিকাল পৌনে চারটার দিকে গুলশানের ৭৪ নম্বর সড়কে দুই বন্ধুর কার রেসিংয়ের সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেললে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ফারিজ তার বাবা এইচ বি এম জাহিদুর রহমানের বিএমডব্লিউ গাড়ি চালাচ্ছিল। গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুইটি রিকশাকে পিছন থেকে ধাক্কা দিয়ে পাশের ফুটপাতের সড়ক বাতিতে সজোরে ধাক্কা দেয়। এ সময় এক রিকশায় এক মহিলা যাত্রীর কোলে থাকা তিন বছরের শিশু ঘটনাস্থলেই মারা যায়। বিষয়টি নিয়ে ফারিজের পরিবারের পক্ষ থেকে মধ্যস্থতা করা হয়। একই সময় গুলশানের শাহাজাদপুরে একটি বাস চাপায় শিশু নিহত হয়। পুলিশ গুলশানের ৭৪ নম্বর সড়কের ঘটনাটি ধামাচাপা দিয়ে শাহাজাদপুরে বাস চাপায় শিশু নিহত হওয়ার ঘটনাটি গণমাধ্যমের কাছে জানায়। এমনকি ৭৪ নম্বর সড়কে নিহত শিশুর লাশ ময়না তদন্তের ব্যবস্থা না করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে।
গুলশান থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম বলেন, গুলশান ৭৪ নম্বর সড়কে গত সোমবার কোনো দুর্ঘটনায় শিশু নিহতের ঘটনা ঘটেনি। তবে সাবেক সংসদ সদস্যের একজন ভাতিজা মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালিয়ে ২ জন রিকশা চালককে আহত করেছিল। বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

এমপি ইকবালের ভাতিজা ফারিজকে পুলিশই নিরাপদে পৌঁছে দেয়

আপডেট টাইম : ০৪:১৩:০৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৫

মধ্যপ অবস্থায় সাবেক এমপি ইকবালের কিশোর ভাতিজার গাড়ির চাপায় গুলশানে চারজন আহত হওয়ার ৪ দিন পরও থানায় মামলা হয়নি। বরং পুলিশের মধ্যস্থতায় আপস রফার চেষ্টা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে পুলিশের দাবি, এ ব্যাপারে থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি। অভিযোগ করলে তারা ব্যবস্থা নেবেন। সোমবার বিকালে গুলশান ১৪ নম্বর সড়কে কার রেসিংয়ের সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এ ঘটনা ঘটান সাবেক এমপি ডা. এইচবিএম ইকবালের ভাতিজা ও এইচবিএম জাহিদুর রহমানের ছেলে ফারিজ আহমেদ (১৬)। ঘটনার পর গাড়িটি আটক করলেও চালক ফারিজ আহমেদকে পুলিশই নিরাপদে পৌঁছে দেয় বলে অভিযোগ রয়েছে। অন্যদিকে গাড়িটির মালিকানা নিয়েও প্রথম দিন থেকে লুকোচুরি শুরু করে গুলশান থানা পুলিশ। গুলশান থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম বলেন, বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত ওই ঘটনায় কেউ মামলা করতে আসেননি। মামলা না হওয়ায় তারা কোনো ব্যবস্থা নিতে পারছেন না বলে তিনি দাবি করেন।
পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার মোশতাক আহমেদ খান বৃহস্পতিবার বলেন, ফারিজের গাড়ির ধাক্কায় কোনো শিশু নিহত হয়নি। তবে গাড়িটি দুই রিকশাকে ধাক্কা দিয়েছে বলে পুলিশ গাড়ি আটক করেছে। এ ঘটনায় আহতদের সঙ্গে ফারিজ আহমেদের পরিবার সমঝোতা করেছে। আহতদের পক্ষ থেকে মামলা হয়নি বলেই ফারিজ রহমানের বিরুদ্ধে পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নিতে পারেনি। কেউ মামলা করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সোমবার বিকাল পৌনে চারটার দিকে গুলশানের ৭৪ নম্বর সড়কে দুই বন্ধুর কার রেসিংয়ের সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেললে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ফারিজ তার বাবা এইচ বি এম জাহিদুর রহমানের বিএমডব্লিউ গাড়ি চালাচ্ছিল। গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুইটি রিকশাকে পিছন থেকে ধাক্কা দিয়ে পাশের ফুটপাতের সড়ক বাতিতে সজোরে ধাক্কা দেয়। এ সময় এক রিকশায় এক মহিলা যাত্রীর কোলে থাকা তিন বছরের শিশু ঘটনাস্থলেই মারা যায়। বিষয়টি নিয়ে ফারিজের পরিবারের পক্ষ থেকে মধ্যস্থতা করা হয়। একই সময় গুলশানের শাহাজাদপুরে একটি বাস চাপায় শিশু নিহত হয়। পুলিশ গুলশানের ৭৪ নম্বর সড়কের ঘটনাটি ধামাচাপা দিয়ে শাহাজাদপুরে বাস চাপায় শিশু নিহত হওয়ার ঘটনাটি গণমাধ্যমের কাছে জানায়। এমনকি ৭৪ নম্বর সড়কে নিহত শিশুর লাশ ময়না তদন্তের ব্যবস্থা না করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে।
গুলশান থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম বলেন, গুলশান ৭৪ নম্বর সড়কে গত সোমবার কোনো দুর্ঘটনায় শিশু নিহতের ঘটনা ঘটেনি। তবে সাবেক সংসদ সদস্যের একজন ভাতিজা মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালিয়ে ২ জন রিকশা চালককে আহত করেছিল। বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে।