ঢাকা ১২:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভিক্টোরিয়ার রেকর্ড ভাঙলেন রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ১২:২৩:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৫
  • ২৬৮ বার

বৃটেনের ইতিহাসে দীর্ঘসময় রাজ সিংহাসনে অধিষ্ঠিত থেকে রেকর্ড গড়লেন রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ। অতিক্রম করলেন দাদি রানী ভিক্টোরিয়ার শাসনকাল। বুধবার স্থানীয় সময় বিকাল সাড়ে ৫টায় তিনি টপকে যান তার দাদি রানী ভিক্টোরিয়ার শাসনকালের রেকর্ড। পূর্ণ করেন তার সিংহাসনে আরোহণের ৬৩ বছর ৭ মাস ৩ দিন। বৃটিশ রাজপরিবারের ইতিহাসে সিংহাসনে অধিষ্ঠিত থাকার এটিই এ পর্যন্ত দীর্ঘতম সময়। তবে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ এ দিনটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে পালন করবেন না। বাকিংহাম প্যালেসের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, রানী এ দিনটি স্কটল্যান্ডের বালমুরালে ক্যাসেলে একান্ত ব্যক্তিগতভাবে কাটান। পরে তিনি স্কটল্যান্ডের টুইডব্যাংকে নতুন একটি স্কটিশ বর্ডার রেলওয়ের উদ্বোধন করেন। রানী ভিক্টোরিয়া ১৮৩৭ সালে মাত্র ১৮ বছর বয়সে সিংহাসনে আরোহণ করে ৬৩ বছর ৭ মাস ২ দিন ক্ষমতায় ছিলেন আর রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ ১৯৫২ সালে ২৫ বছর বয়সে সিংহাসনে আরোহণ করে বুধবার তার ক্ষমতার ৬৩ বছর ৭ মাস ৩ দিন পূর্ণ করে দাদির রেকর্ড ভাঙলেন। এর আগে রানী ভিক্টোরিয়া বৃটেনের সবচেয়ে বেশি সময় রানী হিসেবে সিংহাসনে অধিষ্ঠিত ছিলেন। রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের বয়স এখন ৮৯ বছর। তিনি ছয় দশক আগে ১৯৫২ সালে সিংহাসনে আরোহণের সময় বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন উইনস্টন চার্চিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে খ্যাত এই চার্চিল রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের দাদি রানী ভিক্টোরিয়ার সময় বৃটিশ সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা ছিলেন। সিংহাসনে আরোহণের পর থেকে দীর্ঘপথ পরিক্রমায় বৃটিশ সমাজব্যবস্থা ও রাষ্ট্রের বিপুল পরিবর্তনের সাক্ষী হয়ে আছেন রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ। রানী ভিক্টোরিয়ার আমলে বিশ্বের এক-চতুর্থাংশ জায়গাজুড়ে বৃটিশ সম্রাজ্যের বিস্তার ঘটে। তবে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের আমলে এ সম্রাজের ছোট হয়ে এসেছে। তিনি এখন বৃটেনসহ আরও ১৫টি কমনওয়েলথ দেশ ও ভূখণ্ডের সরকারপ্রধান। রানী ভিক্টোরিয়া তার মেয়াদকালে বৃটেনে দশজন প্রধানমন্ত্রী বদল হতে দেখেছেন। অন্যদিকে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের মেয়াদকালে এ পর্যন্ত বৃটেনে ১২ জন প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব পালন করেছেন। রানী ভিক্টোরিয়ার আমলে রাজ কোষাগার থেকে ছাড়া হয়েছে ২৫০ কোটি মুদ্রা। আর রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের আমলে এ পর্যন্ত ছাড়া হয়েছে ৬৮০ কোটি মুদ্রা। রানী ভিক্টোরিয়ার নামে বৃটেনে ১৫৩টি রাস্তার নাম রাখা হয়েছে। আর রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের নামে আছে ২৩৭টি রাস্তা। রানী ভিক্টোরিয়া যেদিন রানীর মুকুট পরেন সেদিন লন্ডনের রাস্তায় উৎসবে যোগ দিতে জড়ো হয়েছিলেন চার লাখ মানুষ। আর রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সিংহাসনে বসার দৃশ্য টেলিভিশনে প্রচার করা হয় এবং তা দেখেন বৃটেনের দুই কোটি ৭০ লাখ মানুষ। রানী ভিক্টোরিয়া ১৮৪০ সালের ১০ই ফেব্রুয়ারি প্রিন্স অ্যালবার্টকে বিয়ে করেন। প্রিন্স অ্যালবার্টের মৃত্যুর আগে পর্যন্ত তারা ২০ বছর একসঙ্গে সংসার করেন। ১৯৪৭ সালের ২০শে নভেম্বর ২১ বছর বয়সে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সঙ্গে প্রিন্স ফিলিপের বিয়ে হয়। তাদের বিবাহিত জীবনের ৬৮ বছর চলছে এখন। ১৯৫২ সালে রাজসিংহাসনে আরোহণের পর জাতির প্রতি ৫৬টি ক্রিসমাস বার্তা দিয়েছেন রানী দ্বিতীয়। খ্রিষ্টানদের বৃহত্তম এ ধর্মীয় অনুষ্ঠানে রাতের খাবারের পর টেলিভিশনে জাতির উদ্দেশে এ বার্তা দিয়েছেন। কোন পাসপোর্ট ছাড়াই ভ্রমণ করেছেন ৯৭টি দেশ। যার মধ্যে প্রথম দেশ নরওয়ে আর সর্বশেষ জার্মানি। বিভিন্ন ও রাষ্ট্রীয় আতিথেয়তায় প্রতি বছর গার্ডেন পার্টি ও নৈশভোজের মাধ্যমে দাওয়াত খাইয়েছেন ৫০ হাজার মানুষকে। ১৯৭৭ সালে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সিংহাসনে বসার রজতজয়ন্তী পালিত হয়। প্রিন্স চার্লসের সঙ্গে ডায়ানা স্পেনসারের বিয়েতেও পুরো দেশ আনন্দে মেতে ওঠে। ১৯৮০-এর দশকে তাদের দুই সন্তানের জন্মও বৃটিশদের মধ্যে অফুরান আন্দের সঞ্চার করেছিল। আবার নব্বইয়ের দশকেই রাজ পরিবারে ঘটে অনাকাঙ্ক্ষিত কিছু। ১৯৯৭ সালে প্যারিসে দুর্ঘটনায় রাজপরিবারের জনপ্রিয় সদস্য প্রিন্সেস ডায়ানার মৃত্যু হলে রানী তার সবচেয়ে বড় সংকটের মুখে পড়েন। এমন একটি সময় ছিল যখন রাজপরিবারকে কেবল টেলিভিশনের পর্দা এবং বিভিন্ন উপলক্ষে কিছুটা সময়ের জন্য দেখতেন নাগরিকরা, এখন টুইটারে তাদের পারিবারিক ছবি পাওয়া যায়। বৃটিশ রাজপরিবারের এটা আসলে ক্রমবিবর্তন। ১৯৬৯ সালে রাজপরিবার নিয়ে নির্মিত টেলিভিশন প্রামাণচিত্র ‘রয়েল ফ্যামিলি’ এ পরিবারকে ঘিরে থাকা নানা রহস্যের অবসান ঘটায়। রাজপরিবারের সদস্যরাও যে সাধারণ রক্তমাংসের মানুষের মতোই, এটা ছিল প্রামাণ্যচিত্রের মূল উপজীব্য।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

ভিক্টোরিয়ার রেকর্ড ভাঙলেন রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ

আপডেট টাইম : ১২:২৩:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৫

বৃটেনের ইতিহাসে দীর্ঘসময় রাজ সিংহাসনে অধিষ্ঠিত থেকে রেকর্ড গড়লেন রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ। অতিক্রম করলেন দাদি রানী ভিক্টোরিয়ার শাসনকাল। বুধবার স্থানীয় সময় বিকাল সাড়ে ৫টায় তিনি টপকে যান তার দাদি রানী ভিক্টোরিয়ার শাসনকালের রেকর্ড। পূর্ণ করেন তার সিংহাসনে আরোহণের ৬৩ বছর ৭ মাস ৩ দিন। বৃটিশ রাজপরিবারের ইতিহাসে সিংহাসনে অধিষ্ঠিত থাকার এটিই এ পর্যন্ত দীর্ঘতম সময়। তবে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ এ দিনটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে পালন করবেন না। বাকিংহাম প্যালেসের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, রানী এ দিনটি স্কটল্যান্ডের বালমুরালে ক্যাসেলে একান্ত ব্যক্তিগতভাবে কাটান। পরে তিনি স্কটল্যান্ডের টুইডব্যাংকে নতুন একটি স্কটিশ বর্ডার রেলওয়ের উদ্বোধন করেন। রানী ভিক্টোরিয়া ১৮৩৭ সালে মাত্র ১৮ বছর বয়সে সিংহাসনে আরোহণ করে ৬৩ বছর ৭ মাস ২ দিন ক্ষমতায় ছিলেন আর রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ ১৯৫২ সালে ২৫ বছর বয়সে সিংহাসনে আরোহণ করে বুধবার তার ক্ষমতার ৬৩ বছর ৭ মাস ৩ দিন পূর্ণ করে দাদির রেকর্ড ভাঙলেন। এর আগে রানী ভিক্টোরিয়া বৃটেনের সবচেয়ে বেশি সময় রানী হিসেবে সিংহাসনে অধিষ্ঠিত ছিলেন। রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের বয়স এখন ৮৯ বছর। তিনি ছয় দশক আগে ১৯৫২ সালে সিংহাসনে আরোহণের সময় বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন উইনস্টন চার্চিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে খ্যাত এই চার্চিল রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের দাদি রানী ভিক্টোরিয়ার সময় বৃটিশ সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা ছিলেন। সিংহাসনে আরোহণের পর থেকে দীর্ঘপথ পরিক্রমায় বৃটিশ সমাজব্যবস্থা ও রাষ্ট্রের বিপুল পরিবর্তনের সাক্ষী হয়ে আছেন রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ। রানী ভিক্টোরিয়ার আমলে বিশ্বের এক-চতুর্থাংশ জায়গাজুড়ে বৃটিশ সম্রাজ্যের বিস্তার ঘটে। তবে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের আমলে এ সম্রাজের ছোট হয়ে এসেছে। তিনি এখন বৃটেনসহ আরও ১৫টি কমনওয়েলথ দেশ ও ভূখণ্ডের সরকারপ্রধান। রানী ভিক্টোরিয়া তার মেয়াদকালে বৃটেনে দশজন প্রধানমন্ত্রী বদল হতে দেখেছেন। অন্যদিকে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের মেয়াদকালে এ পর্যন্ত বৃটেনে ১২ জন প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব পালন করেছেন। রানী ভিক্টোরিয়ার আমলে রাজ কোষাগার থেকে ছাড়া হয়েছে ২৫০ কোটি মুদ্রা। আর রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের আমলে এ পর্যন্ত ছাড়া হয়েছে ৬৮০ কোটি মুদ্রা। রানী ভিক্টোরিয়ার নামে বৃটেনে ১৫৩টি রাস্তার নাম রাখা হয়েছে। আর রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের নামে আছে ২৩৭টি রাস্তা। রানী ভিক্টোরিয়া যেদিন রানীর মুকুট পরেন সেদিন লন্ডনের রাস্তায় উৎসবে যোগ দিতে জড়ো হয়েছিলেন চার লাখ মানুষ। আর রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সিংহাসনে বসার দৃশ্য টেলিভিশনে প্রচার করা হয় এবং তা দেখেন বৃটেনের দুই কোটি ৭০ লাখ মানুষ। রানী ভিক্টোরিয়া ১৮৪০ সালের ১০ই ফেব্রুয়ারি প্রিন্স অ্যালবার্টকে বিয়ে করেন। প্রিন্স অ্যালবার্টের মৃত্যুর আগে পর্যন্ত তারা ২০ বছর একসঙ্গে সংসার করেন। ১৯৪৭ সালের ২০শে নভেম্বর ২১ বছর বয়সে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সঙ্গে প্রিন্স ফিলিপের বিয়ে হয়। তাদের বিবাহিত জীবনের ৬৮ বছর চলছে এখন। ১৯৫২ সালে রাজসিংহাসনে আরোহণের পর জাতির প্রতি ৫৬টি ক্রিসমাস বার্তা দিয়েছেন রানী দ্বিতীয়। খ্রিষ্টানদের বৃহত্তম এ ধর্মীয় অনুষ্ঠানে রাতের খাবারের পর টেলিভিশনে জাতির উদ্দেশে এ বার্তা দিয়েছেন। কোন পাসপোর্ট ছাড়াই ভ্রমণ করেছেন ৯৭টি দেশ। যার মধ্যে প্রথম দেশ নরওয়ে আর সর্বশেষ জার্মানি। বিভিন্ন ও রাষ্ট্রীয় আতিথেয়তায় প্রতি বছর গার্ডেন পার্টি ও নৈশভোজের মাধ্যমে দাওয়াত খাইয়েছেন ৫০ হাজার মানুষকে। ১৯৭৭ সালে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সিংহাসনে বসার রজতজয়ন্তী পালিত হয়। প্রিন্স চার্লসের সঙ্গে ডায়ানা স্পেনসারের বিয়েতেও পুরো দেশ আনন্দে মেতে ওঠে। ১৯৮০-এর দশকে তাদের দুই সন্তানের জন্মও বৃটিশদের মধ্যে অফুরান আন্দের সঞ্চার করেছিল। আবার নব্বইয়ের দশকেই রাজ পরিবারে ঘটে অনাকাঙ্ক্ষিত কিছু। ১৯৯৭ সালে প্যারিসে দুর্ঘটনায় রাজপরিবারের জনপ্রিয় সদস্য প্রিন্সেস ডায়ানার মৃত্যু হলে রানী তার সবচেয়ে বড় সংকটের মুখে পড়েন। এমন একটি সময় ছিল যখন রাজপরিবারকে কেবল টেলিভিশনের পর্দা এবং বিভিন্ন উপলক্ষে কিছুটা সময়ের জন্য দেখতেন নাগরিকরা, এখন টুইটারে তাদের পারিবারিক ছবি পাওয়া যায়। বৃটিশ রাজপরিবারের এটা আসলে ক্রমবিবর্তন। ১৯৬৯ সালে রাজপরিবার নিয়ে নির্মিত টেলিভিশন প্রামাণচিত্র ‘রয়েল ফ্যামিলি’ এ পরিবারকে ঘিরে থাকা নানা রহস্যের অবসান ঘটায়। রাজপরিবারের সদস্যরাও যে সাধারণ রক্তমাংসের মানুষের মতোই, এটা ছিল প্রামাণ্যচিত্রের মূল উপজীব্য।