ঢাকা ০৩:১৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মোটরসাইকেলের কাগজ দেখতে চাওয়ায় পুলিশকে মারধর

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ০৬:৩৪:১৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪
  • ১৬ বার
মোটরসাইকেল থামিয়ে কাগজপত্র দেখতে চাওয়ায় রাজশাহীতে দুই পুলিশ সদস্যকে পিটিয়ে জখম করেছেন এক যুবক। রবিবার (১৯ মে) দুপুরে নগরীর বোয়ালিয়া থানার পঞ্চবটি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর অন্য পুলিশ সদস্যরা অভিযুক্ত যুবককে আটক করেন।

আটক ওই যুবকের নাম মো. সোহান (২৩)।

তিনি রাজশাহীর কাটাখালী থানার শ্যামপুর এলাকার বাসিন্দা। সোহান পেশায় ইলেকট্রিক মিস্ত্রি।আহত দুই পুলিশ কনস্টেবল হলেন শামীম হোসেন ও শহিদুল ইসলাম। ঘটনার পর তাদের রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

বোয়ালিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ইকরামুল হক জানান, তিনিসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্য মোটরসাইকেল থামিয়ে কাগজপত্র পরীক্ষা করছিলেন। কনস্টেবল শামীম সে সময় সোহানের মোটরসাইকেল থামানোর জন্য সংকেত দেন। সোহান মোটরসাইকেল থামিয়েই প্রশ্ন করেন, তার হেলমেট আছে, কাগজপত্রও আছে। তার পরও কেন তাকে থামানো হলো? কনস্টেবল শামীম বলেন, কাগজপত্র থাকলে স্যারকে দেখান।

এ সময় শামীমের সঙ্গে তর্ক জুড়ে দেন সোহান। কনস্টেবল শামীম তখন মোটরসাইকেল থেকে চাবি তুলে নেন। এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে শামীমকে ঘুষি মারেন সোহান। এ সময় আরেক কনস্টেবল শহিদুল তাকে রক্ষায় এগিয়ে যান। তখন ঘটনাস্থলে পড়ে থাকা একটি কাঠের টুকরো দিয়ে শহিদুলকে মারতে শুরু করেন সোহান।
এতে শহিদুল রক্তাক্ত জখম হয়।তিনি আরো জানান, আহত দুই পুলিশ কনস্টেবলের চিকিৎসা চলছে। আটক যুবককে থানাহাজতে রাখা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বাধা দেওয়া ও পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে মামলা হবে। এরপর তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হবে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

মোটরসাইকেলের কাগজ দেখতে চাওয়ায় পুলিশকে মারধর

আপডেট টাইম : ০৬:৩৪:১৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪
মোটরসাইকেল থামিয়ে কাগজপত্র দেখতে চাওয়ায় রাজশাহীতে দুই পুলিশ সদস্যকে পিটিয়ে জখম করেছেন এক যুবক। রবিবার (১৯ মে) দুপুরে নগরীর বোয়ালিয়া থানার পঞ্চবটি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর অন্য পুলিশ সদস্যরা অভিযুক্ত যুবককে আটক করেন।

আটক ওই যুবকের নাম মো. সোহান (২৩)।

তিনি রাজশাহীর কাটাখালী থানার শ্যামপুর এলাকার বাসিন্দা। সোহান পেশায় ইলেকট্রিক মিস্ত্রি।আহত দুই পুলিশ কনস্টেবল হলেন শামীম হোসেন ও শহিদুল ইসলাম। ঘটনার পর তাদের রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

বোয়ালিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ইকরামুল হক জানান, তিনিসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্য মোটরসাইকেল থামিয়ে কাগজপত্র পরীক্ষা করছিলেন। কনস্টেবল শামীম সে সময় সোহানের মোটরসাইকেল থামানোর জন্য সংকেত দেন। সোহান মোটরসাইকেল থামিয়েই প্রশ্ন করেন, তার হেলমেট আছে, কাগজপত্রও আছে। তার পরও কেন তাকে থামানো হলো? কনস্টেবল শামীম বলেন, কাগজপত্র থাকলে স্যারকে দেখান।

এ সময় শামীমের সঙ্গে তর্ক জুড়ে দেন সোহান। কনস্টেবল শামীম তখন মোটরসাইকেল থেকে চাবি তুলে নেন। এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে শামীমকে ঘুষি মারেন সোহান। এ সময় আরেক কনস্টেবল শহিদুল তাকে রক্ষায় এগিয়ে যান। তখন ঘটনাস্থলে পড়ে থাকা একটি কাঠের টুকরো দিয়ে শহিদুলকে মারতে শুরু করেন সোহান।
এতে শহিদুল রক্তাক্ত জখম হয়।তিনি আরো জানান, আহত দুই পুলিশ কনস্টেবলের চিকিৎসা চলছে। আটক যুবককে থানাহাজতে রাখা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বাধা দেওয়া ও পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে মামলা হবে। এরপর তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হবে।