ঢাকা ০৪:১৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মদনে সরকারি হালট দখলের পাঁয়তারা, এলাকায় ক্ষোভ

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ০২:১৩:৫০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪
  • ৪০ বার

নেত্রকোণা জেলা প্রতিনিধিঃ নেত্রকোণা মদন উপজেলার গোবিন্দশ্রী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের বারঘরিয়া গ্রামের পশ্চিম হাঁটি মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে আবুল খায়ের সরকারি হালট দখলের পাঁয়তারা করছে বলে এক লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার (২০ এপ্রিল) সরজমিন গেলে জানা যায়, সিএস ও এসএ নকশায় সরকারি হালট রয়েছে, যা শত বছর যাবৎ বারঘরিয়া পশ্চিম হাঁটির লোকজন ব্যবহার করে আসছে। বর্তমান বিআরএস রেকর্ডে হালটটির আবুল খায়েরের বাড়ির সামনের অংশে আবুল খায়ের নামে রেকর্ড ভুক্ত হয়। তাই সে হালটটি দখলে যাওয়ার চেষ্টা করছে।

এতে করে মুসল্লীদের মসজিদে যেতে অসুবিধা হচ্ছে। স্কুল-কলেজ যাতায়াতে ছাত্র-ছাত্রীরা বাধা গ্রস্থ হচ্ছে। কৃষকরা ধান, খড়, গরু-ছাগল নিয়ে হাওরে যাওয়ার ক্ষেত্রে ভুগান্তিতে পড়েছে।

শহীদ আকন্দ জানান, আমার বাপ দাদারা এ রাস্তা দিয়ে হাওর থেকে গরু ও মহিষের গাড়ি দিয়ে ধান-বন আনত। আবুল খায়ের হালটি দখল করে ধান শুকানোর খলা বানিয়ে নিয়েছে।

আবুল খায়ের জানায়, আমি হালটের দুই পাশ্বের জমির মালিক। সরকারি হালটের জায়গা রেখেই ধান শুকানোর জন্য খলা তৈরি করেছি। কিন্তু পাড়ার সাধারণ মানুষ তা মানছেন না।

ইউপি চেয়ারম্যান মো. মাইদুল ইসলাম খান মামুন জানান, যদি কেউ সরকারি হালট দখলে নেয়ার পাঁয়তারা করে, তা প্রশাসনের সহযোগিতায় দখল মুক্ত করা হবে।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) এটিএম আরিফ জানান, বিষয়টি সরজমিন তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

মদনে সরকারি হালট দখলের পাঁয়তারা, এলাকায় ক্ষোভ

আপডেট টাইম : ০২:১৩:৫০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪

নেত্রকোণা জেলা প্রতিনিধিঃ নেত্রকোণা মদন উপজেলার গোবিন্দশ্রী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের বারঘরিয়া গ্রামের পশ্চিম হাঁটি মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে আবুল খায়ের সরকারি হালট দখলের পাঁয়তারা করছে বলে এক লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার (২০ এপ্রিল) সরজমিন গেলে জানা যায়, সিএস ও এসএ নকশায় সরকারি হালট রয়েছে, যা শত বছর যাবৎ বারঘরিয়া পশ্চিম হাঁটির লোকজন ব্যবহার করে আসছে। বর্তমান বিআরএস রেকর্ডে হালটটির আবুল খায়েরের বাড়ির সামনের অংশে আবুল খায়ের নামে রেকর্ড ভুক্ত হয়। তাই সে হালটটি দখলে যাওয়ার চেষ্টা করছে।

এতে করে মুসল্লীদের মসজিদে যেতে অসুবিধা হচ্ছে। স্কুল-কলেজ যাতায়াতে ছাত্র-ছাত্রীরা বাধা গ্রস্থ হচ্ছে। কৃষকরা ধান, খড়, গরু-ছাগল নিয়ে হাওরে যাওয়ার ক্ষেত্রে ভুগান্তিতে পড়েছে।

শহীদ আকন্দ জানান, আমার বাপ দাদারা এ রাস্তা দিয়ে হাওর থেকে গরু ও মহিষের গাড়ি দিয়ে ধান-বন আনত। আবুল খায়ের হালটি দখল করে ধান শুকানোর খলা বানিয়ে নিয়েছে।

আবুল খায়ের জানায়, আমি হালটের দুই পাশ্বের জমির মালিক। সরকারি হালটের জায়গা রেখেই ধান শুকানোর জন্য খলা তৈরি করেছি। কিন্তু পাড়ার সাধারণ মানুষ তা মানছেন না।

ইউপি চেয়ারম্যান মো. মাইদুল ইসলাম খান মামুন জানান, যদি কেউ সরকারি হালট দখলে নেয়ার পাঁয়তারা করে, তা প্রশাসনের সহযোগিতায় দখল মুক্ত করা হবে।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) এটিএম আরিফ জানান, বিষয়টি সরজমিন তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।