,

স্বর্ণের লড়াইয়ে বাংলাদেশের তিন আরচার

হাওর বার্তা ডেস্কঃ অবশেষে তুরস্কের কোনিয়ায় চলমান ইসলামিক সলিডারিটি গেমস থেকে একটি পদক পাওয়া নিশ্চিত হয়েছে বাংলাদেশের। আর সেই পদকটি আসতে যাচ্ছে বাংলাদেশের সম্ভাবনাময় ডিসিপ্লিন আরচারি থেকে।

সোমবার শুরু হয়েছে গেমসের আরচারি ডিসিপ্লিনের খেলা। তীর-ধনুকের এই লড়াইয়ে নারী কম্পাউন্ড দলগত বিভাগে বাংলাদেশ খেলবে ফাইনাল। বুধবার স্বর্ণের লড়াইয়ে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ গেমসের আয়োজক তুরস্ক।

এই ইভেন্টে মাত্র দুটি দল হওয়ার কারণেই বাংলাদেশ ও তুরস্ক মুখোমুখি স্বর্ণের লড়াইয়ে। এই ইভেন্টে বাংলাদেশের তিন প্রতিযোগি হচ্ছেন-রোকসানা আক্তার, শ্যামলী রায় ও পুষ্পিতা জামান।

কোয়ালিফিকেশন রাউন্ডে ২১ দেশের ৭২ জন পুরুষ ও ৫০ জন মহিলা আরচার অংশগ্রহণ করেন। রিকার্ভ পুরুষ একক ইভেন্টে ৪৯ জন, রিকার্ভ মহিলা একক ইভেন্টে ৪০জন, কম্পাউন্ড পুরুষ একক ইভেন্টে ২৩জন এবং কম্পাউন্ড মহিলা একক ইভেন্টে ১০জন আরচ্যার প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

রিকার্ভ পুরুষ এককে ৭০মিটার দূরত্বে ৭২টি তীর ছুড়ে ৭২০ এর মধ্যে বাংলাদেশের মোহাম্মদ হাকিম আহমেদ রুবেল ৬৪৫ স্কোর করে ১০তম, মো: রোমান সানা ৬৪৪ স্কোর করে ১১তম এবং মো: সাগর ইসলাম ৬২৯ স্কোর করে ১৬তম স্থান অর্জন করেন।

রিকার্ভ পুরুষ এককের নকআউট রাউন্ডের খেলায় মোহাম্মদ হাকিম আহমেদ রুবেল ও মো: রোমান সানা বাই পেয়ে শেষ ষোলতে উন্নীত হয়েছেন। সাগর ইসলাম ৬-০ সেটে সুদানের রাশাদ খালিদকে পরাজিত করে শেষ ষোলতে উন্নীত হয়েছেন।

রিকার্ভ পুরুষ দলগত ইভেন্টে বাংলাদেশ (মো: রোমান সানা, মোহাম্মদ হাকিম আহমেদ রুবেল ও মো: সাগর ইসলাম) ১৯১৮ স্কোর করে ৫ম স্থান অর্জন করে।

কম্পাউন্ড মহিলা এককে ৭২টি তীর ছুঁড়ে ৭২০ এর মধ্যে বাংলাদেশের রোকসানা আক্তার ৬৮২ স্কোর করে ৫ম, শ্যামলী রায় ৬৮০ স্কোর করে ৬ষ্ঠ এবং পুস্পিতা জামান ৬৭২ স্কোর করে ৮ম স্থান অর্জন করেন।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর