,

1_97747

লাল-সবুজের সোনালি একদিন

পুব আকাশে সূর্য রোজ ওঠে। তবে সোমবারের সূর্যটা যেন ছিল একটু বেশিই সোনালি। এই দিন যে চারটি স্বর্ণপদক জিতেছেন বাংলাদেশের তীরন্দাজরা। সব মিলিয়ে আন্তর্জাতিক সলিডারিটি আরচারি চ্যাম্পিয়নশিপের নয়টি ইভেন্টের মধ্যে ছয়টিতেই সোনা জিতেছেন স্বাগতিক আরচাররা। একটি রিকার্ভ মহিলা এককে এবং বাকি পাঁচটি দলগত ইভেন্টে।

আন্তর্জাতিক আসরে আগেও অংশ নিয়েছেন বাংলাদেশের তীরন্দাজরা। কিন্তু এক সঙ্গে এত সাফল্য ধরা দেয়নি এর আগে কখনো। তাই কাল টুর্নামেন্ট শেষে একটু বেশিই আবেগে ভাসলেন কর্মকর্তারা। পুরস্কার মঞ্চে বার বার বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত বেজেছে। লাল-সবুজ পতাকা গায়ে জড়িয়ে উল্লাস করেছেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়। সোনার মেয়ে হিরামনিকে কোলে তুলে এক গাল হেসেছেন বাংলাদেশ আরচারি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজীবউদ্দিন আহমেদ চপল। উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (বিওএ) মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা, বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম চেঙ্গিস এবং বিশ্ব ও এশিয়ান আরচারি ফেডারেশনের কর্মকর্তারা।

রিকার্ভ ও কম্পাউন্ড বিভাগে এককের চারটি ইভেন্টে স্বাগতিকদের হয়ে একমাত্র স্বর্ণপদক জিতেছেন বিকেএসপির হিরামনি। ক্যারিয়ারে প্রথমবার বড় আসরে স্বর্ণ জেতার পর উচ্ছ্বসিত হিরামনি বলেন, ‘আজারবাইজানের রামোজামোভাকে হারানোর পর আমি বাবা-মাকে ফোন দিয়েছি। তারা খুব খুশি হয়ে আমাকে দোয়া করলেন।’ বিকেএসপির এই তীরন্দাজ যোগ করেন, ‘আন্তর্জাতিক আসরে এটা আমার প্রথম স্বর্ণপদক জয়। আমাকে সামনে এগিয়ে যেতে সহায়তা করবে। আমার এইচএসসি পরীক্ষা সামনে। পড়ালেখা ও খেলা দুই-ই সামলাতে হবে আমাকে।’ এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ নিয়ে হিরামনির কথা, ‘নভেম্বরে ঢাকায় শুরু হবে এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন। তার আগে আমাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। এই পদক যেমন আমাকে উৎসাহিত করবে, ভবিষ্যতেরও আরচারদেরও তেমনি সাহস জোগাবে।’ টুর্নামেন্টে লাল-সবুজদের বিকেএসপির মতো জয়জয়কার ছিল আনসারের তীরন্দাজদেরও। পদকজয়ীদের ছয়জনই আনসারের। বিকেএসপির উপ-পরিচালক (ক্রীড়া) শামীমা সাত্তার মিমুর কথায়, ‘বিকেএসপিই যে সেরা তা প্রমাণ করে দিয়েছে হিরামনি।’ বাংলাদেশ আনসারের ক্রীড়া অফিসার রায়হানউদ্দিনের কথা, ‘এই টুর্নামেন্টে আমার আরচাররাই সেরা।’

ছয় সোনার কথা আগে বলেছিলেন কোচ নিশীথ দাস। তার কথায়, ‘আমরা বলেছিলাম ছয়টি স্বর্ণ জিতব। আমাদের প্রত্যাশা বাস্তবে রূপ দেয়ায় ছেলে-মেয়েদের নিয়ে আমি গর্বিত। এখন আমাদের প্রত্যাশা আরও বেড়ে গেল। ভবিষ্যতে যাতে নয়টির ইভেন্টের সবগুলোতেই আমরা সোনা জিততে পারি, সেই চেষ্টা করব।’ তিনি যোগ করেন, ‘তবে আমাদের লক্ষ্য নভেম্বরে এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ। তার আগে আমরা মার্চে থাইল্যান্ডে এশিয়ান কাপ এবং জুলাইয়ে মেক্সিকোতে ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপে খেলাব আরচারদের। নভেম্বরের আগে কাউকেই ছুটি দেয়া হবে না। সবাইকে নিয়ে টঙ্গীতে দীর্ঘমেয়াদি ক্যাম্প চলবে। প্রয়োজনে আমরা বিভিন্ন জেলাগুলোতে অনুশীলন করব। বান্দরবানের কোয়ান্টাম হিলেও অনুশীলন করাব। তীরন্দাজদের যোগাসন করানো হবে নার্ভ শক্ত করার জন্য।’

চূড়ান্ত পদক তালিকা

দেশ স্বর্ণ রুপা ব্রোঞ্জ মোট

বাংলাদেশ ৬ ১ ২ ৯

মালয়েশিয়া ১ ২ ০ ৩

সৌদি আরব ১ ০ ১ ২

ইরাক ১ ১ ২ ৪

নেপাল ০ ১ ০ ১

ভুটান ০ ৩ ১ ৪

আজারবাইজান ০ ১ ১ ২

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর