ঢাকা ০৪:০১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অবশেষে সিলেটকে কাঁদিয়ে ফের চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ১২:৩৪:০৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • ৮১ বার
তারকাবহুল দল নিয়ে ফের বিপিএলের শিরোপা জিতে নিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। জমজমাট ফাইনালে তারা সিলেট স্ট্রাইকার্সকে উড়িয়ে দিয়েছে ৭ উইকেটের ব্যবধানে। চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়েও মূলত দুটি জায়গায় ধাক্কা খেয়েছে কুমিল্লা। জনসন চার্লসের ক্যাচ ছেড়েছেন রুবেল হোসেন। এরপর এই পেসারের করা ১৭তম ওভারেই শিরোপা প্রায় নিশ্চিত করে ফেলে কুমিল্লা। সেই চার্লসের ব্যাটেই আসে জয়।

রান তাড়ায় নেমে ঝোড়ো শুরু করেন কুমিল্লার ওপেনার লিটন দাস আর সুনিল নারাইন। তবে ৫ বলে ১০ করা ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডারকে দ্রুতই থামিয়ে দেন রুবেল হোসেন। ২৭ রানে ভাঙে ওপেনিং জুটি। স্কোরবোর্ডে আর ৭ রান যোগ হতেই অধিনায়ক ইমরুল কায়েসকে (২) থিসারা পেরেরা তালুবন্দি করেন জর্জ লিন্ডে। দ্রুত ২ উইকেট হারিয়ে একটু চাপে পড়ে কুমিল্লা। লিন্ডের বলেই সীমানায় সহজ ক্যাচ দিয়ে রুবেলের সৌজন্যে বেঁচে যান জনসন চার্লস। তখন তার রান ছিল মাত্র ৮। এর মূল্য চোকাতে হয় সিলেটকে। দারুণ জুটি গড়ে তোলেন লিটন আর চার্লস।

৩৬ বলে ফিফটি তুলে নেন লিটন। ১২ ওভারে কুমিল্লার স্কোর তিন অঙ্ক ছাড়ায়। ৭০ রানের এই জুটি ভাঙে লিটনের বিদায়ে। রুবেলের বলে শান্তর দারুণ ক্যাচে পরিণত হওয়ার আগে লিটন করেন ৩৯ বলে ৭ চার ১ ছক্কায় ৫৫ রান। জীবন পাওয়া চার্লস ৪১ বলে তুলে নেন ফিফটি। আর ক্যাচ ফেলা রুবেল ১৭তম ওভারে ৩ ছক্কা ১ চার খেয়ে দেন ২৩ রান। শেষ তিন ওভারে কুমিল্লার দরকার হয় ২৯ রানের। যেটা শেষ ওভারে গিয়ে দাঁড়ায় ৩ রানে। ৪ বল আর ৭ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় কুমিল্লা। জনসন চার্লস ৫২ বলে ৭ চার ৫ ছক্কায় অপরাজিত ৭৯ আর মঈন আলী ১৭ বলে ২৫ রানে অপরাজিত থাকেন।

এর আগে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ৭ উইকেটে ১৭৫ রান তোলে সিলেট স্ট্রাইকার্স। ঝোড়ো শুরু করেছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। তবে দ্বিতীয় ওভারেই দলীয় ১৮ রানে তৌহিদ হৃদয়ের (০) বিদায়ে ধাক্কা খায় সিলেট স্ট্রাইকার্স। আজও তিন নম্বরে নেমেছিলেন অধিনায়ক মাশরাফি, তবে ব্যাট হাতে ভূমিকা রাখতে পারেননি। আন্দ্রে রাসেলের শিকার হয়ে ফেরেন ১ রানে।

এক প্রান্তে বিধ্বংসী মেজাজে থাকা নাজমুল হোসেন শান্তর সঙ্গী হন মুশফিক। দুজনের ৭৯ রানের জুটিতে শক্ত ভিত পায় সিলেট। ৩৫ বলে ফিফট তুলে নেন শান্ত। মঈন আলীর বলে বোল্ড হওয়ার আগে করেন ৪৫ বলে ৯ চার ১ ছক্কায় ৬৪ রান। রায়ান বার্ল (১৩) ব্যর্থ। সুনিল নারাইনের বলে গোল্ডেন ডাক মারেন থিসারা পেরেরা। অন্যদিকে মুশফিক ফিফটি তুলে নেন ৩৫ বলে। শেষ পর্যন্ত তিনি ৪৮ বলে ৫ চার ৩ ছক্কায় ৭৪ রানে অপরাজিত থাকেন। সিলেটের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৭ উইকেটে ১৭৫ রান। ৩১ রানে ২ উইকেট নিয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

অবশেষে সিলেটকে কাঁদিয়ে ফের চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা

আপডেট টাইম : ১২:৩৪:০৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
তারকাবহুল দল নিয়ে ফের বিপিএলের শিরোপা জিতে নিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। জমজমাট ফাইনালে তারা সিলেট স্ট্রাইকার্সকে উড়িয়ে দিয়েছে ৭ উইকেটের ব্যবধানে। চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়েও মূলত দুটি জায়গায় ধাক্কা খেয়েছে কুমিল্লা। জনসন চার্লসের ক্যাচ ছেড়েছেন রুবেল হোসেন। এরপর এই পেসারের করা ১৭তম ওভারেই শিরোপা প্রায় নিশ্চিত করে ফেলে কুমিল্লা। সেই চার্লসের ব্যাটেই আসে জয়।

রান তাড়ায় নেমে ঝোড়ো শুরু করেন কুমিল্লার ওপেনার লিটন দাস আর সুনিল নারাইন। তবে ৫ বলে ১০ করা ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডারকে দ্রুতই থামিয়ে দেন রুবেল হোসেন। ২৭ রানে ভাঙে ওপেনিং জুটি। স্কোরবোর্ডে আর ৭ রান যোগ হতেই অধিনায়ক ইমরুল কায়েসকে (২) থিসারা পেরেরা তালুবন্দি করেন জর্জ লিন্ডে। দ্রুত ২ উইকেট হারিয়ে একটু চাপে পড়ে কুমিল্লা। লিন্ডের বলেই সীমানায় সহজ ক্যাচ দিয়ে রুবেলের সৌজন্যে বেঁচে যান জনসন চার্লস। তখন তার রান ছিল মাত্র ৮। এর মূল্য চোকাতে হয় সিলেটকে। দারুণ জুটি গড়ে তোলেন লিটন আর চার্লস।

৩৬ বলে ফিফটি তুলে নেন লিটন। ১২ ওভারে কুমিল্লার স্কোর তিন অঙ্ক ছাড়ায়। ৭০ রানের এই জুটি ভাঙে লিটনের বিদায়ে। রুবেলের বলে শান্তর দারুণ ক্যাচে পরিণত হওয়ার আগে লিটন করেন ৩৯ বলে ৭ চার ১ ছক্কায় ৫৫ রান। জীবন পাওয়া চার্লস ৪১ বলে তুলে নেন ফিফটি। আর ক্যাচ ফেলা রুবেল ১৭তম ওভারে ৩ ছক্কা ১ চার খেয়ে দেন ২৩ রান। শেষ তিন ওভারে কুমিল্লার দরকার হয় ২৯ রানের। যেটা শেষ ওভারে গিয়ে দাঁড়ায় ৩ রানে। ৪ বল আর ৭ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় কুমিল্লা। জনসন চার্লস ৫২ বলে ৭ চার ৫ ছক্কায় অপরাজিত ৭৯ আর মঈন আলী ১৭ বলে ২৫ রানে অপরাজিত থাকেন।

এর আগে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ৭ উইকেটে ১৭৫ রান তোলে সিলেট স্ট্রাইকার্স। ঝোড়ো শুরু করেছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। তবে দ্বিতীয় ওভারেই দলীয় ১৮ রানে তৌহিদ হৃদয়ের (০) বিদায়ে ধাক্কা খায় সিলেট স্ট্রাইকার্স। আজও তিন নম্বরে নেমেছিলেন অধিনায়ক মাশরাফি, তবে ব্যাট হাতে ভূমিকা রাখতে পারেননি। আন্দ্রে রাসেলের শিকার হয়ে ফেরেন ১ রানে।

এক প্রান্তে বিধ্বংসী মেজাজে থাকা নাজমুল হোসেন শান্তর সঙ্গী হন মুশফিক। দুজনের ৭৯ রানের জুটিতে শক্ত ভিত পায় সিলেট। ৩৫ বলে ফিফট তুলে নেন শান্ত। মঈন আলীর বলে বোল্ড হওয়ার আগে করেন ৪৫ বলে ৯ চার ১ ছক্কায় ৬৪ রান। রায়ান বার্ল (১৩) ব্যর্থ। সুনিল নারাইনের বলে গোল্ডেন ডাক মারেন থিসারা পেরেরা। অন্যদিকে মুশফিক ফিফটি তুলে নেন ৩৫ বলে। শেষ পর্যন্ত তিনি ৪৮ বলে ৫ চার ৩ ছক্কায় ৭৪ রানে অপরাজিত থাকেন। সিলেটের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৭ উইকেটে ১৭৫ রান। ৩১ রানে ২ উইকেট নিয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান।