,

কাল মঙ্গলবার থেকে চিনির সংকট কেটে যাবে, প্রতিশ্রুতি মিল মালিকদের

হাওর বার্তা ডেস্কঃ দেশে অপরিশোধিত চিনির কোনো ঘাটতি নেই। কিন্তু গ্যাস না পাওয়ার কারণে চাহিদামতো চিনি পরিশোধন করতে পারেনি মিলগুলো। যে কারণে বাজারে সংকট তৈরি হয়েছে। তবে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হচ্ছে। আজ রাত থেকেই পরিশোধনকারী মিলগুলো চিনির সরবরাহ স্বাভাবিক করবে। ফলে মঙ্গলবার থেকেই বাজারে চিনির সংকট কেটে যাবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বেসরকারি চিনি সরবরাহকারী মিলমালিক ও চিনি ব্যবসায়ীরা।

সোমবার (২৪ অক্টোবর) জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরে চিনির সরবরাহ এবং মূল্য স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে মিলমালিক, রিফাইনারি, পাইকারি এবং খুচরা ব্যবসায়ীদের মতবিনিময় সভায় তারা এ প্রতিশ্রুতি দেন।

অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) এ. এইচ. এম. সফিকুজ্জামানের সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভার শুরুতে বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের একটি প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। এতে দেখা যায়, দেশে বর্তমানে র-সুগারের (অপরিশোধিত চিনি) কোনো ঘাটতি নেই। যে পরিমান চিনি মজুত রয়েছে, তাতে তিন থেকে চার মাস চাহিদা পূরণ সম্ভব।

কমিশনের উপ-পরিচালক মাহমুদুল হাসান প্রতিবেদনে বলেন, সরকারি নির্দেশনায় রোববার পর্যন্ত (২৩ অক্টোবর) তথ্য নিয়ে এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। সেখানে আমরা দেখেছি, দেশে চিনির চাহিদা ১৮ থেকে ২০ লাখ টন। এর মধ্যে এখন সরকারি মিলে আখ থেকে উৎপাদন হচ্ছে ৩০ থেকে ৩২ হাজার টন। বাকিটা আমদানি করা র-সুগার থেকে পরিশোধ করে বেসরকারি কোম্পানিগুলো সরবরাহ করে। অর্থাৎ চিনির বাজার ৯৫ শতাংশের বেশি তাদের নিয়ন্ত্রণে।

এ প্রতিবেদনের জন্য গতকাল পর্যন্ত বেসরকারি চিনি কারখানাগুলোর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সিটি গ্রুপের মিলে এখন পর্যন্ত অপরিশোধিত ৩৮ হাজার টন চিনি মজুত রয়েছে। এছাড়া পাইপলাইনে আছে আরও ৬১ হাজার টন। মেঘনা গ্রুপে ২৩ হাজার টন অপরিশোধিত মজুত ও পাইপলাইনে আছে ৫৫ হাজার টন। একই ভাবে এসআলম গ্রুপের কাছে ৬৬ হাজার টন মজুত এবং ১ লাখ ১০ হাজার টন পাইপলাইনে। আব্দুল মোনেম সুগার রিফাইনারির কাছে মজুত আছে ২২ হাজার টন, আর পাইপলাইনে রয়েছে ৫০ হাজার টন এবং দেশবন্ধুর কাছে ৪ হাজার টন মজুত এবং ৫৫ হাজার টন পাইপলাইনে রয়েছে।

অর্থাৎ দেশে এখন ১ লাখ ৫৪ হাজার টন অপরিশোধিত চিনির মজুত রয়েছে। এছাড়া ২ লাখ ২১ হাজার টনের মতো আমদানির চিনি পাইপলাইনে রয়েছে। অর্থাৎ মজুত চিনি দিয়ে ৩৫ থেকে ৪০ দিন চাহিদা পূরণ সম্ভব। আর পাইপলাইনের চিনি হিসাবে নিলে ৩ মাসের বেশি সময় খাওয়া যাবে।

এ সময় ভোক্তা-অধিকার অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ. এইচ. এম. সফিকুজ্জামান বলেন, এমন পরিস্থিতির পরও চিনি নিয়ে মহাসংকট হয়েছে। এর আগে ভোজ্যতেল নিয়েও এমন করা হয়েছিল। পরে সেখানে কারসাজি ছিল সেটার প্রমাণ পেয়েছি। চিনির ক্ষেত্রেও কিছু সমস্যা হতে পারে। সেটা দেখছি। কিন্তু তার মানে এই নয় যে ৯০ টাকার চিনি রাতারাতি ২০ টাকা বেশি দামে বিক্রি হবে।

তিনি বলেন, আমরা গত তিনদিন বাজারে অভিযান পরিচালনা করেছি। খুচরা ও পাইকারি বিক্রেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। খচুরা বিক্রেতারা বলছেন, তারা চিনি পাচ্ছেন না। কিন্তু আদতে তারা ঠিকই বেশি দামে বিক্রি করছেন। পাইকারি ব্যবসায়ীরাও বলছেন মিলগুলো তাদের চিনি দেয় না। কিন্তু তারা যে চিনি বিক্রি করছে তাতে তাদের কোনো ভাউচার নেই। তাহলে নিশ্চয়ই অনৈতিকভাবে বেশি দামে কেনাবেচা হচ্ছে।

সফিউজ্জামান বলেন, দেশে প্রতিদিন চিনির চাহিদা ৫ হাজার টন। বড় একটি গ্রুপ একাই প্রতিদিন এ পরিমান চিনি পরিশোধন করতে পারে। এমন ৫টি কোম্পানি রয়েছে চিনির বাজারে। তারপরও তারা কেন পারছেন না? চিনির সংকট কেন হলো?

সফিউজ্জামান বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে আজ সকালে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, যেকোনো মূল্যে উৎপাদন ঠিক করতে হবে। এজন্য যা যা দরকার সেটা আমরা করবো। সাপ্লাই চেইনের ঘাটতি ঠিক করে ফেলবো।

সময় রিফাইনারি মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ সুগার রিফাইনার্স অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব এবং দেশবন্ধু সুগার রিফাইনার্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম রহমান বলেন, আমরা একে আপরের সঙ্গে ব্লেম গেইম খেলছি। আমার যদি এটাকে বিশ্লেষণ করি, তাহলে সবাইকে দায়ভার নেওয়া উচিত।

তিনি বলেন, এ নিয়ে এ পর্যন্ত আমরা সরকারের বিভিন্ন মহলে কথা বলেছি। ফলে আমাদের যেগুলো সমস্যা ছিল, সেটা এখন সমাধান হচ্ছে। রাত থেকে মিলগুলোর সাপ্লাই স্বাভাবিক হয়ে যাবে। তারপর যদি কেউ চিনি না পান তবে আমাদের বলবেন, আমরা ব্যবস্থা করে দেবো। যেখানে চিনি নেই বলবেন, সরকার নির্ধারিত দামে দিয়ে দেবো। সমস্যা আর হবে না।

গোলাম রহমান বলেন, আমাদের গ্যাসের সমস্যা আছে, র-সুগারের দাম এই মুহূর্তে ৫০০ ডলারের ওপরে। আমাদের ডিউটি বেশি, এক কেজিতে ৩১-৩২ টাকা দিতে হয়। এখন ডলারের দাম বেশি, ৮৫ টাকার ডলার কিনছি ১০৫ টাকায়। অ্যাসেসমেন্ট ভ্যালুও বেড়েছে। সেগুলোর দিকে সরকার দৃষ্টি দেবে, সেটা আমাদের জানিয়েছে। সেগুলো সমাধান হলে ভবিষ্যতেও আর সমস্যা হবে না।

এস আলম গ্রুপের সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার কাজী সালাউদ্দিন আহমেদ বলেন, কিছু মিলে সমস্যা হলেও আমাদের তরফ থেকে কিন্তু এতদিন শতভাগে সরবরাহ দিয়েছি। আমরা লাকি যে, চট্টগ্রামে গ্যাস সরবরাহে তেমন সমস্যা হয়নি। সেজন্য আমরা কোনোভাবে সরকার নির্ধারিত দামের বেশি বিক্রি করছি না।

সিটি গ্রুপের পরিচালক বিশ্বজিৎ সাহা বলেন, আমরা চাই সবাই পর্যাপ্ত পণ্য পাক। সমস্যা হয়েছে, সেটা এখন কথা বলে সমাধান হচ্ছে। ডিইটি কমানো হলে সেটা আরও ভালো হবে। কারণ প্রতিটি ক্রেতাকে ৩২ টাকা চিনিতে ডিউটি দিতে হচ্ছে। এটা চিনির দাম অনেক বাড়িয়ে দিচ্ছে।

সিটি গ্রুপের উপদেষ্টা অমিতাভ চক্রবর্তী বলেন, সব থাকার পরও চিনি নেই। সেটা গ্যাসের সমস্যার কারণে। চিনি পরিশোধনে স্ট্রিম করতে গেলে গ্যাসের চাপ পাচ্ছি না। সিটির দিনে উৎপাদন ক্ষমতা ৫ হাজার টন। কিন্তু চিনি হচ্ছে ১৩০০-১৪০০ টন। মেঘনাসহ সবার এ অবস্থা। এখন গ্যাসের সমস্যা সমাধান হলে বাজারে চিনির অভাব হবে না।

এসব বিষয়ে ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ. এইচ. এম. সফিকুজ্জামান বলেন, গ্যাস পাওয়া যাচ্ছে না তা নয়। আপনাদের যে গ্যাসের চাপ প্রয়োজন সেটা সবসময় নেই। আমারা এ নিয়ে কাজ শুরু করেছি। আর গ্যাস নিয়ে সমস্যা হবে না। আলাদা করেই সরকারের গ্যাস সরবরাহকারীদের সঙ্গে কথা বলবো।

তিনি বলেন, আমরা চিনির সমস্যা সমাধানে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে রিপোর্ট দেবো। শুল্ক কমালে সেটা প্রভাব বাজারে পড়বে কি না সেটা দেখতে হবে। এরপরও শুল্কের কথা আমরা এনবিআরকে বলবো। অন্যদিকে ব্যবসায়ীরা বলছি, মিলগেটে চিনির ট্রাক আটকানো হচ্ছে, বসে থাকছে। সেটা ঠিক করতে হবে। সেটা খরচ বাড়াচ্ছে।

এছাড়া পাকা রশিদে আপনাদের লেনদেন ঠিক করতে হবে। রশিদ ছাড়া কোনো লেনদেন হবে না। মিলগুলোকের এসওতে চিনির ইউনিট প্রাইস লেখতে হবে। ডিও ব্যবস্থা সংশোধন করতে হবে। ডিরেক্ট ডিলারের মাধ্যমে চিনি দিন।

তিনি বলেন, মিল মালিকরা এখন প্রতিদিন আমাদের উৎপাদন ও সরবরাহের তথ্য দেবেন।

এসময় পেট্রোবাংলার প্রতিনিধি বলেন, খাদ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের গ্যাসের চাহিদা পূরণে আলাদা নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কাল-পরশুর মধ্যে সেটা ঠিক হয়ে যাবে।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর