,

1651269575_Untitled-2

চ‍্যাম্পিয়ন পিএসজিকে রুখে দিল স্ত্রাসবুর

হাওর বার্তা ডেস্কঃ এমবাপে নিজে গোল করলেন এবং করালেনও। ফরাসি ফরোয়ার্ডের আলো ঝলমলে পারফরম‍্যান্সও অবশ্য দলকে জয়ে ফেরানোর জন‍্য যথেষ্ট হলো না। শেষ সময়ে দুই গোল করে চ‍্যাম্পিয়ন পিএসজিকে রুখে দিল স্ত্রাসবুর।

লিগ ওয়ানে শুক্রবার রাতের রোমাঞ্চকর ম‍্যাচটি ৩-৩ গোলে ড্র হয়েছে।

জোড়া গোল করা এমবাপে অবদান রাখেন আশরাফ হাকিমির গোলে। ম্যাচের শুরুতেই স্ত্রাসবুরকে এগিয়ে নেন কেভিন গামেইরো। এক পর্যায়ে ৩-১ গোলে পিছিয়ে পড়া দলটি মার্কো ভেরাত্তির আত্মঘাতী গোলে ব‍্যবধান কমায়। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে অঁতনি কেসির গোলে ফেরায় সমতা।

প্রতিপক্ষের মাঠে দ্বিতীয় মিনিটে পিছিয়ে পড়ে পিএসজি। দারুণ গতিতে প্রেসনেল কিম্পেম্বেকে পেছনে ফেলে লুকাস পেরিনের পাস নিয়ন্ত্রণে নিয়ে জাল খুঁজে নেন গামেইরো। নবম মিনিটে আবারও জালে বল পাঠায় স্ত্রাসবুর, কিন্তু অফসাইডের জন‍্য গোল মেলেনি। ১৮তম মিনিটে প্রথম সুযোগ পায় তারা। তবে নেইমারের কর্নারে হেড লক্ষ‍্যে রাখতে পারেননি সের্হিও রামোস।

এর পাঁচ মিনিট পর চমৎকার ফিনিশিংয়ে সমতা আনেন এমবাপে। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ৫০ গজ দূর থেকে আচমকা শট নিয়ে সফল প্রায় হয়েই যাচ্ছিলেন রামোস। চার মিনিট পর দূরপাল্লার শট একটুর জন‍্য লক্ষ‍্যে রাখতে পারেননি স্ত্রাসবুরের সানিন প্রেচিচ।
৬৪তম মিনিটে এগিয়ে যায় পিএসজি। নেইমারের ডিফেন্স চেরা পাসে কাট ব‍্যাক করেন এমবাপে। পেনাল্টি স্পটের কাছ থেকে বাকিটা সারেন হাকিমি।চার মিনিট পর জিকুর ‘উপহার’ কাজে লাগিয়ে ব‍্যবধান আরও বাড়ান এমবাপে। মাঝমাঠ থেকে গোলরক্ষকের উদ্দেশ‍্যে দুর্বল ব‍্যাক পাস দেন জিকু। অনায়াসে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ঠিকানা খুঁজে নেন এমবাপে।
৭৫তম মিনিটে সৌভাগ‍্যের ছোঁয়ায় ব‍্যবধান কমায় স্ত্রাসবুর। কর্নার থেকে হাবিব দিয়ালোর হেড ভেরাত্তির গায়ে লেগে দিক পাল্টে জালে জড়ায়। তেমন কিছু করার ছিল না দোন্নারুম্মার। চার মিনিট পর একটুর জন‍্য গামেইরোর শট লক্ষ‍্যে থাকেনি, বেঁচে যায় পিএসজি।
৯০তম মিনিটে কাছের পোস্টে দিয়ালোর প্রচেষ্টা একটুর জন‍্য লক্ষ‍্যে থাকেনি। এরপরই সমতাসূচক গোল। যোগ করা পাঁচ মিনিটের দ্বিতীয় মিনিটে খুব কাছ থেকে চমৎকার ফিনিশিংয়ে জাল খুঁজে নেন কেসি। দলকে তিন পয়েন্ট এনে দেওয়ারও সুযোগ এসেছিল তার সামনে। শেষ মিনিটে দিয়ালোর ফ্লিকে শট নিয়ে তিনি একটুর জন‍্য লক্ষ‍্যে রাখতে পারেননি। ৩৫ ম্যাচে ২৪ জয় ও ৭ ড্রয়ে চ্যাম্পিয়নদের পয়েন্ট হলো ৭৯।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর