,

1632588623_express-way

ঢাকা-আশুলিয়া এক্সপ্রেসওয়ের পাইলট পাইলিং উদ্বোধন

হাওর বার্তা ডেস্কঃ ঢাকা টু আশুলিয়া এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। ২০২৬ সালের জুন মাসের মধ্যেই শেষ হবে এই এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণ কাজ। প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে তৈরি হচ্ছে ঢাকার এই দ্বিতীয় এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে। গতকাল শনিবার তুরাগ থানাধীন ধউর এলাকায় এক্সপ্রেসওয়ের স্ট্যাটিকলোড টেস্টের পাইলট পাইলিং উদ্বোধনের সময় এসব তথ্য জানান, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এই প্রকল্পের লোনচুক্তি সম্পন্ন হবে। আমাদের তহবিল সংক্রান্ত কোনো সমস্যা নেই। এছাড়া বর্তমানে যে রাস্তাটি আছে, এটা যেভাবে আছে থাকুক। অনেক মানুষ বিকল্প পথ হিসেবে এটি ব্যবহার করে। এখানে মানুষের যেন ভোগান্তি না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। রাস্তা যেন ব্যবহারের উপযোগী থাকে।

ঢাকা-আশুলিয়া এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে কাদের বলেন, আমি পরিষ্কার বলে দিতে চাই, শতভাগ স্বচ্ছতার সঙ্গে সব প্রকল্পের নির্মাণ কাজ শেষ করা হবে। এখানে কোনো নয়ছয় করার সুযোগ নেই।

ঢাকা-আশুলিয়া এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের মোট ব্যয় ১৬ হাজার ৯০১ কোটি টাকা। এর মধ্যে বাংলাদেশ সরকার দেবে ৫ হাজার ৯৫১ কোটি টাকা এবং চীন সরকার (জিটুজি) দেবে ১০ হাজার ৯৪৯ কোটি টাকা।

চার লেন বিশিষ্ট এই এক্সপ্রেসওয়ের দৈর্ঘ্য হবে ২৪ কিলোমিটার। এয়ারপোর্ট-আব্দুল্লাহপুর-ধউর-বড় আশুলিয়া-জিরাবো-বাইপাইল হয়ে ঢাকা ইপিজেড পর্যন্ত হবে এর বিস্তৃতি। এর সঙ্গে র‌্যাম্প হবে ১০.৮৪ কিলোমিটার, নবীনগরে ১.৯১৫ কিলোমিটার, চার লেনের ২.৭২ কিলোমিটার সেতু ও ১৮ কিলোমিটার ড্রেন। প্রকল্পের কাজ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইম্পোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট কর্পোরেশন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এ প্রকল্পের লোনচুক্তি সম্পন্ন হবে। আমাদের তহবিল সংক্রান্ত কোনো সমস্যা নেই। চলাচলের সুবিধার্থে বর্তমান রাস্তাটিও রেখে দেওয়ার সুপারিশ করে মন্ত্রী বলেন, বর্তমানে যে রাস্তাটি আছে, এটা যেভাবে আছে থাকুক। অনেক মানুষ বিকল্প পথ হিসেবে এটি ব্যবহার করে। এখানে মানুষের যেন ভোগান্তি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। রাস্তা যেন ব্যবহারের উপযোগী থাকে।

অনুষ্ঠানে ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের প্রকল্প পরিচালক মো. শাহাবুদ্দিন খান, আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ফারুক হাসান তুহিনসহ প্রকল্পের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ, এই প্রকল্পের কাজ সরকারি-বেসরকারি যৌথ উদ্যোগে করতে অর্থনীতি সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি ২০১১ সালের জুলাই মাসে এর অনুমোদন দেয়। সে সময় ২ বিলিয়ন ডলার খরচে ৩৪ কিলোমিটার দীর্ঘ এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। পরবর্তীতে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নকশা এবং অর্থায়ন প্রক্রিয়া, দুটিতেই পরিবর্তন আনা হয়। অতঃপর ২০১৯ সালে প্রকল্পের আওতায় ঋণ চুক্তির বিষয়ে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালানো হয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যায়ে ওই অর্থবছরে ঋণ চুক্তি হয়নি। সে সময় ইআরডি ও চায়না এক্সিম ব্যাংকের মধ্যে ঋণচুক্তির বিষয়ে আলোচনা হয়। চায়না এক্সিম ব্যাংক বিষয়টি মূল্যায়ন করে ঋণ দিতে রাজি হয়। সর্বশেষ ২০১৯ সালে এ প্রকল্পটির আওতায় ঋণ চুক্তির কথা ছিল। কিন্তু নানা জটিলতায় সে সময় চূড়ান্তভাবে ঋণচুক্তি হয়নি। দীর্ঘ পরীক্ষা, নীরিক্ষা ও সমীক্ষার পর চীনের এক্সিম ব্যাংক ঢাকা-আশুলিয়া এক্সপ্রেসওয়ের জন্য ১ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলারের ঋণের অনুমোদন দিয়েছে, যা টাকার অঙ্কে ১০ হাজার ২২৬ দশমিক ৫৩ কোটি। চীন প্রকল্পের সামগ্রিক খরচ ১৬ হাজার ৯০১ কোটি টাকার ৬৫ শতাংশ বহন করবে। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে প্রকল্পের কাজ শুরু হল।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর