,

image-236290-1618180240

ভ্যানে ঘর বানিয়ে যাযাবর হওয়া ষাটোর্ধ্ব বিধবার জয়

হাওর বার্তা ডেস্কঃ ব্রিটিশ একাডেমি অব ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন আর্টস (বাফটা) অ্যাওয়ার্ডসের ৭৪তম আসরে সর্বাধিক চারটি পুরস্কার জিতলো ‘নোম্যাডল্যান্ড’। এর মধ্যে আছে সেরা চলচ্চিত্রসহ সামনের সারির তিনটি সম্মান। ফলে অস্কারের দৌড়ে অনেকখানি এগিয়ে গেলো ছবিটি।

‘নোম্যাডল্যান্ড’ নির্মাণের জন্য সেরা পরিচালক হয়েছেন চীনের ক্লোয়ি জাও। বাফটার ইতিহাসে দ্বিতীয়বার কোনো নারীর হাতে উঠলো এই স্বীকৃতি। ১১ বছর আগে নারী হিসেবে প্রথমবার পুরস্কারটি পান ক্যাথরিন বিগেলো (দ্য হার্ট লকার)।

সেরা পরিচালকের পুরস্কার পেয়ে যাযাবর সম্প্রদায়কে ধন্যবাদ দিয়েছেন ক্লোয়ি জাও, যারা তাকে ও তার কলাকুশলীদের দৃশ্যধারণের সময় আপন করে নিয়েছে। তিনি বলেন, ‘বার্ধক্য যে জীবনের সুন্দর একটি অংশ তা বোঝানোর জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। বয়োবৃদ্ধদের পাশে থাকা প্রয়োজন সবার। প্রবীণদের আমরা যেভাবে দেখি তাতেই বোঝা যায় আমরা কোন সমাজের এবং এক্ষেত্রে আমাদের আরও যত্নবান হওয়া দরকার।’

চীনে জন্ম নেওয়া ৩৮ বছর বয়সী ক্লোয়ি জাও বেড়ে উঠেছেন যুক্তরাষ্ট্রে। বাফটায় সেরা পরিচালক হওয়া অশ্বেতাঙ্গ নারী তিনিই প্রথম। ২০১৭ সালে প্রকাশিত সাংবাদিক জেসিকা ব্রুডারের ‘নোম্যাডল্যান্ড’ গ্রন্থ অবলম্বনে তার ছবিটি তৈরি হয়েছে। এতে ষাটোর্ধ্ব ভবঘুরের ভূমিকায় অনবদ্য অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেত্রী হয়েছেন ৬৩ বছর বয়সী ফ্রান্সেস ম্যাকডোরম্যান্ড।

‘নোম্যাডল্যান্ড’-এর গল্প ষাটোর্ধ্ব বিধবা ফার্নকে ঘিরে। ২০০৮ সালে আমেরিকায় অর্থনৈতিক মন্দার সময় ভবঘুরে জীবন কাটান তিনি। নিজের ভ্যানকে ভ্রাম্যমাণ বাড়িতে রূপ দিয়ে ঘুরে বেড়ান। চলতে চলতে মৌসুমি চাকরি জুটিয়ে নেন। দৃষ্টিনন্দন ক্যামেরার কাজের জন্য ৭৪তম বাফটায় চিত্রগ্রহণ শাখায়ও সেরা হয়েছে ছবিটি।

সেরা অভিনেতার পুরস্কার গেছে স্যার অ্যান্থনি হপকিন্সের ঘরে। ‘দ্য ফাদার’ ছবিতে ডিমনেশিয়ায় ভোগা এক ব্যক্তির চরিত্র ফুটিয়ে তুলেছেন তিনি। ২৭ বছর পর ফের বাফটার বিজয়ী তালিকায় যুক্ত হলো তার নাম। এছাড়া সবচেয়ে বেশি বয়সে সেরা অভিনেতা শাখায় পুরস্কার জয়ের রেকর্ড গড়েছেন ৮৩ বছর বয়সী এই ওয়েলশ তারকা।

যদিও ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন না অ্যান্থনি হপকিন্স। পাশের রুম থেকে উল্লাসের শব্দ শুনে খবরটি জানতে পেরেছেন! তখন তিনি পেইন্টিং দেখছিলেন। শুরুতে ভেবেছিলেন, হচ্ছেটা কী? তার মনে হয়েছিল, ফুটবল খেলা দেখে এমন উল্লাস হচ্ছে! পরে তাকে দেওয়া হয় বিজয়ের খবর। তার কথায়, জীবনের এমন বয়সে এসে এই পুরস্কার পাবো ঘুণাক্ষরেও ভাবিনি।’ সেরা অ্যাডাপ্টেড চিত্রনাট্য শাখাতেও পুরস্কৃত হয়েছে ‘দ্য ফাদার’।

আরেক প্রবীণ দক্ষিণ কোরিয়ার ৭৩ বছর বয়সী ইয়া-জাঙ উন হয়েছেন সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী। ‘মিনারি ছবিতে নাতি-নাতনিদের দেখভাল করতে আমেরিকায় পাড়ি জমানো দাদির চরিত্রে দর্শকদের মন জয় করেছেন তিনি।

‘জুডাস অ্যান্ড দ্য ব্ল্যাক মেসায়ায় ব্ল্যাক প্যান্থার নেতা ফ্রেড হ্যাম্পটন চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয় করে সেরা পার্শ্ব অভিনেতা হয়েছেন ব্রিটিশ তারকা ড্যানিয়েল কালুইয়া। সেরা অ্যানিমেটেড চলচ্চিত্র এবং সেরা আবহসংগীত পুরস্কার জিতেছে ডিজনি/পিক্সারের ‘সৌল’। এছাড়া “মা রেইনি’স ব্ল্যাক বটম” এবং “সাউন্ড অব মেটাল” পেয়েছে দুটি করে পুরস্কার।

ইংরেজি ব্যতিত অন্য ভাষার সেরা ছবি হয়েছে ডেনমার্কের ‘অ্যানাদার রাউন্ড’। এর গল্প একদল শিক্ষককে ঘিরে, যারা স্কুলের পুরোটা সময় মদ্যপানে ডুবে থাকতে চান! সুইডেন থেকে ছবিটির পরিচালক টমাস ভিন্টারবার্গ জুমে যুক্ত হয়ে নিজের মেয়ে আইদাকে শ্রদ্ধা জানান। শুটিংয়ের চার দিনের মাথায় তিনি গাড়ি দুর্ঘটনায় নিহত হন। টমাসের কথায়, ‘ছবিটি তার জন্যই বানিয়েছি। আইদার স্কুলে তার সহপাঠীদের নিয়ে শুটিং করেছি।’

অসামান্য ব্রিটিশ চলচ্চিত্র সম্মানটি পেয়েছে মিটু হ্যাশট্যাগে অনুপ্রাণিত ‘প্রমিসিং ইয়াং ওম্যান’। এর পরিচালক এমারেল্ড ফেনেল সেরা মৌলিক চিত্রনাট্যের পুরস্কার জিতেছেন।

রোমানিয়ার স্বাস্থ্য খাতের দুর্নীতির চিত্র নিয়ে সাজানো ‘কালেক্টিভ’ এবং জামাল খাশোগি হত্যাক্যাণ্ডের ওপর নির্মিত দ্য ডিসিডেন্টকে হটিয়ে সেরা প্রামাণ্যচিত্র হয়েছে নেটফ্লিক্সের ‘মাই অক্টোপাস টিচার’। এতে তুলে ধরা হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার বনে চলচ্চিত্র নির্মাতা ক্রেগ ফস্টারের সঙ্গে একটি অক্টোপাসের সম্পর্কের অদ্ভুত ঘটনা।

রাইজিং স্টার অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়েছে কৃষ্ণাঙ্গ অষ্টাদশী তরুণী বাকি বাকরেকে। স্বল্প বাজেটে নির্মিত ‘রকস’-এ অভিনয় করেছেন তিনি। সেরা কাস্টিং অ্যাওয়ার্ডও পেয়েছে এই ছবিটি।

লন্ডনের রয়েল আলবার্ট হলে ১০ ও ১১ এপ্রিল এবারের বাফটা বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়। করোনার কারণে নির্ধারিত সময়ের দুই মাস পর হওয়া অনুষ্ঠানটি দুই দিনে বিভক্ত ছিল। এমন ঘটনা এটাই প্রথম। মনোনীতরা সবাই ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়েছেন। অনুষ্ঠানে ফেস শিল্ড পরে আসেন বাফটার প্রধান নির্বাহী আমান্ডা বেরি।

তবে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করতে লালগালিচায় পা মাড়িয়েছেন কয়েকজন তারকা। যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসের একটি স্টুডিও থেকে পুরস্কার প্রদানের জন্য যুক্ত হন রেনে জেলওয়েগার ও আনা কেন্ড্রিক।

বাফটার সভাপতি ডিউক অব ক্যামব্রিজ প্রিন্স উইলিয়াম এবারের আয়োজনে থাকতে পারেননি। কারণ তার দাদা প্রিন্স ফিলিপ পরলোকগমন করেছেন গত ৯ এপ্রিল। ১৯৫৯-৬৬ মেয়াদে বাফটার প্রথম সভাপতি ছিলেন তিনি। তার প্রতি শ্রদ্ধা জানান প্রথম দিনের সঞ্চালক বিবিসি রেডিওর ডিজে ক্লারা আমফো। রবিবার রাতের আয়োজন সঞ্চালনা করেছেন স্কটিশ নারী ডিজে এডিথ বাউম্যান ও ব্রিটিশ টিভি উপস্থাপক ডারমট ও’লিয়ারি।

চলচ্চিত্রে অবদানের জন্য ‘ব্রোকব্যাক মাউন্টেন’ ও ‘লাইফ অব পাই’র পরিচালক অ্যাঙ লি পেয়েছেন সম্মানসূচক বাফটা ফেলোশিপ। ব্রিটিশ তারকাদের মধ্যে অভিনয়ে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি পেয়েছেন নোল ক্লার্ক।

 

বাফটার ৭৪তম আসরের মনোনয়ন তালিকায় জাতিগত বৈচিত্র্য ও লিঙ্গ সমতা ছিল লক্ষণীয়। মনোনয়ন তালিকায় ২৪ জন অভিনেতা-অভিনেত্রীর ১৬ জনই সংখ্যালঘু। বাফটা বিজয়ী ও মনোনীতদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেন ৬ হাজার ৭০০ জন সদস্য, যারা হলিউডের প্রফেশনালস ও বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের সৃজনশীল ব্যক্তি।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর