,

182300kalerlakantho_pic

প্রত্যন্ত অঞ্চলে হবে ‘আলোকিত পল্লী সড়কবাতি

হাওর বার্তা ডেস্কঃ  সরকারের নবায়নযোগ্য জ্বালানি নীতিমালায় ২০২০ সালের মধ্যে মোট উৎপাদিত বিদ্যুতের ১০ শতাংশ নবায়নযোগ্য জ্বালানি উৎস থেকে উৎপাদন করতে হবে। সরকারের এ লক্ষ্যকে সামনে রেখে ‘আলোকিত পল্লী সড়কবাতি’ শীর্ষক একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, আগামীকাল জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ প্রকল্পটির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অবগত করা হবে।

একনেকের কার্যপত্র থেকে জানা গেছে, প্রকল্পটির জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৮ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। চলতি বছরের জুলাই থেকে জুন ২০২২ সালে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন ফাউন্ডেশন (পিডিবিএফ)।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, সরকার নীতিমালা অনুযায়ী ২০২০ সালের মধ্যে ২ হাজার মেগাওয়াট নবায়নযোগ্য জ্বালানি উৎস থেকে উৎপাদন করা হবে। এছাড়া এ প্রকল্পটির মাধ্যমে পল্লী এলাকার বিদ্যুৎ বিহীন প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ সড়কে সৌরবিদ্যুৎ চালিত সড়কবাতি স্থাপন করা হবে। ফলে প্রত্যন্ত অঞ্চলের জনগোষ্ঠীর রাত্রিকালীন যাতায়াত ও নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে।

অন্যদিকে জনগণের দোরগোড়ায় বিদ্যুৎ সুবিধা পৌঁছে দেয়ার বিষযে বর্তমান সরকারের প্রতিশ্রুতি ও সরকারের নবায়নযোগ্য জ্বালানি নীতিমালার লক্ষ্যমাত্রা সহায়ক হবে। মূলত এ বিবেচনায় প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়েছে।

প্রকল্পের আওতায় দেশের ১৭টি উপজেলার ১৩৩টি ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ সড়কে ৬ হাজার ১৫০টি সৌরবিদ্যুৎ চালিত সড়কবাতি স্থাপন করা হবে। প্রকল্পের সুনির্দিষ্ট উদ্দেশ্যে বলা হয়েছে, উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ সড়কে রাত্রীকালীন যাতায়াতে দুর্ঘটনা হ্রাস, নিরাপত্তার জন্য দূষণমুক্ত পরিবেশ-বান্ধব সৌরবাতি স্থাপনের মাধ্যমে নাগরিক জীবনের সুবিধা বৃদ্ধি করা হবে। সৌরবাতি ব্যবহারের মাধ্যমে গ্রামীণ মার্কেটগুলোর রাত্রীকালীন বাণিজ্য প্রসার করে জনগোষ্ঠীর অর্থনৈতিক উন্নয়ন করা হবে। পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর কার্বন নিঃসরণ হ্রাসকরণ এবং সরকার ঘোষিত ২০২১ সালের মধ্যে সবার জন্য বিদ্যুৎ কার্যক্রম সহায়তা করা হবে।

প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির সভায় এ প্রকল্পটি নিয়ে কিছু সুপারিশ করা হয়েছে। সেগুলো হচ্ছে-উপজেলা সদর ও পৌর এলাকা বাদ দিয়ে প্রস্তাবিত প্রকল্পের এলাকা নির্ধারণ করতে হবে এবং এলাকা নির্ধারণের পর্যাপ্ত যৌক্তিকতা ডিপিপির নির্ধারিত অনুচ্ছেদে উল্লেখ করতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর