ঢাকা ১২:১৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তরমুজের লাল, শরীরের ঢাল

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ০৪:৩০:৫৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ মে ২০১৫
  • ৪১৫ বার

এই গরমে সবচেয়ে সুস্বাদু ও উপযোগী ফল তরমুজ। তরমুজ খেয়ে আপনি সহজেই সজীব থাকতে পারেন। এতে প্রায় ৯৫ শতাংশ পানি। তরমুজ আপনার শরীরের পানিশূন্যতা দূর করবে। তরমুজ উচ্চরক্তচাপ ও হূদরোগের ঝুঁকি কমায়। বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, ভায়াগ্রার মতোই কার্যকর হচ্ছে তরমুজ। তরমুজে আছে প্রচুর ভিটামিন এ, বি৬ ও সি। আছে আঁশ ও পটাসিয়াম। এতে নেই কোনো চর্বি বা কোলেস্টেরল। হূিপণ্ডের জন্য খুব ভালো। দুই বাটি তরমুজে মাত্র ৯০ ক্যালরি

ডায়রিয়ায় তরমুজ, উপকারী কিডনির জন্য
ডায়রিয়ার পরে, বমি করার পরে বা যারা অতিরিক্ত রোদে থাকেন, তাদের জন্য তরমুজ জরুরি উপকরণ। এতে নিম্নমাত্রার ক্যালরি, অতি উচ্চমাত্রার পটাসিয়াম রয়েছে, যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।
প্রচুর পরিমাণে রসালো ফল হওয়ায় কিডনির জন্য বয়ে আনে সুফল। তরমুজ রক্তে ইউরিক অ্যাসিডের পরিমাণ কমিয়ে দেয়। ফলে কিডনিতে পাথর, ইনফেকশনসহ যাবতীয় অসুখ তুলনামূলক কম হয়। আর কিডনি ভালোভাবে কাজ করার জন্য দেহের বর্জ্যগুলো সঠিকভাবে বের হয়ে যায়।

প্রাকৃতিক ভায়াগ্রা তরমুজ
কৃত্রিম পন্থায় যৌনশক্তি বাড়াতে ভায়াগ্রা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার অন্ত নেই। এই নীল ট্যাবলেটটির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়েও অনেক বিতর্ক রয়েছে। তবে বিজ্ঞানীরা শেষ পর্যন্ত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন প্রাকৃতিক ভায়াগ্রার সন্ধান দিলেন। প্রাকৃতিক সেই জিনিসটি আর কিছু নয়, আমাদের অতি পরিচিত তরমুজ। বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, ভায়াগ্রার মতোই কার্যকর হচ্ছে তরমুজ। টেক্সাস এ অ্যান্ড এম ইউনিভার্সিটির গবেষক বিনু পাতিল মিডিয়াকে জানান, নতুন গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, যারা যৌনশক্তির দিক থেকে অক্ষম বা দুর্বল, তাদের সক্ষমতার জন্য তরমুজই প্রাকৃতিক প্রতিষেধক। বিনু পাতিল তার সহকর্মীদের নিয়ে গবেষণার পর বিস্ময়করভাবে দেখতে পান, একটি তরমুজে সিট্রোলিন নামের অ্যামাইনো অ্যাসিডের পরিমাণ এত বেশি যে, যা আগে বিজ্ঞানীরা ধারণাও করতে পারেননি। কারণ বিজ্ঞানীরা মনে করতেন, সিট্রোলিন সাধারণত ফলের অখাদ্য অংশেই বেশি থাকে। বিনু পাতিল বলেন, তরমুজে সিট্রোলিন আছে, এটা আমাদের জানা কথা। কিন্তু এটা জানতাম না, সিট্রোলিনের পরিমাণ তাতে এত বেশি থাকতে পারে। গবেষকরা ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, মানবদেহ সিট্রোলিনকে আরজিনিনিন নামে যৌগ পদার্থে রূপান্তরিত করে। আরজিনিনিন হচ্ছে ভিন্ন মাত্রার অ্যামাইনো অ্যাসিড, যা নাইট্রিক অ্যাসিডের অগ্রদূত হিসেবে কাজ করে। উল্লেখ্য, নাইট্রিক অ্যাসিড দেহের রক্তবাহী শিরা বা ধমনীর প্রসারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আর রক্তবাহী শিরা বা ধমনীর প্রসারণের কারণেই পুরুষের বিশেষ অঙ্গটি সক্রিয় হয়। ভায়াগ্রাও একইভাবে দেহের নাইট্রিক অ্যাসিডকে সক্রিয় করার মাধ্যমে কৃত্রিম পন্থায় দেহে জৈবিক উত্তেজনা সৃষ্টি করে।

তবে তার এই গবেষণার ফলকে সবাই এক বাক্যে এখনও মেনে নেননি। দি জার্নাল অব সেক্সুয়াল মেডিসিনের প্রধান সম্পাদক ইরউয়িন গোল্ডস্টেইন বলেন, বিশেষ অঙ্গের উত্তেজনার জন্য অবশ্যই নাইট্রিক অ্যাসিড দরকার। কিন্তু বেশি করে তরমুজ খেলেই তা প্রাকৃতিকভাবেই একই কাজটি করে দেবে, এটা এখনও প্রমাণিত নয়। অবশ্য বিনু পাতিল এখনও নিশ্চিত হতে পারেননি, জৈবিক তাড়না সৃষ্টি করতে একজন লোককে ঠিক কত পরিমাণ তরমুজ খেতে হবে।

উচ্চ রক্তচাপ ও হূদরোগের ঝুঁকি কমায় তরমুজ
তরমুজ উচ্চ রক্তচাপ ও হূদরোগের ঝুঁকি কমায়। তাই প্রতিদিন নিয়ম করে তরমুজ খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন ফ্লোরিডা স্টেট ইউনিভার্সিটির গবেষকরা। খালিজ টাইমস-এ প্রকাশিত এই সম্পর্কিত রিপোর্টে বলা হয়, গবেষকরা দেখেছেন, তরমুজ খাওয়ার পর মানুষের শরীরের দীর্ঘতম শিরা আওর্টা ও হূদপিণ্ডে চাপ অনেক কম পড়ে। তরমুজ থেকে আহরিত এল-সিট্রুলিন এবং আরজিনিনা নামের অ্যামিনো অ্যাসিড রক্তচাপসহ রক্তসঞ্চালনে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ক্ষেত্রে ইতিবাচক প্রভাব রাখে বলে মনে করা হচ্ছে।
তরমুজ পুষ্টিতে ভরপুর।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

জনপ্রিয় সংবাদ

তরমুজের লাল, শরীরের ঢাল

আপডেট টাইম : ০৪:৩০:৫৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ মে ২০১৫

এই গরমে সবচেয়ে সুস্বাদু ও উপযোগী ফল তরমুজ। তরমুজ খেয়ে আপনি সহজেই সজীব থাকতে পারেন। এতে প্রায় ৯৫ শতাংশ পানি। তরমুজ আপনার শরীরের পানিশূন্যতা দূর করবে। তরমুজ উচ্চরক্তচাপ ও হূদরোগের ঝুঁকি কমায়। বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, ভায়াগ্রার মতোই কার্যকর হচ্ছে তরমুজ। তরমুজে আছে প্রচুর ভিটামিন এ, বি৬ ও সি। আছে আঁশ ও পটাসিয়াম। এতে নেই কোনো চর্বি বা কোলেস্টেরল। হূিপণ্ডের জন্য খুব ভালো। দুই বাটি তরমুজে মাত্র ৯০ ক্যালরি

ডায়রিয়ায় তরমুজ, উপকারী কিডনির জন্য
ডায়রিয়ার পরে, বমি করার পরে বা যারা অতিরিক্ত রোদে থাকেন, তাদের জন্য তরমুজ জরুরি উপকরণ। এতে নিম্নমাত্রার ক্যালরি, অতি উচ্চমাত্রার পটাসিয়াম রয়েছে, যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।
প্রচুর পরিমাণে রসালো ফল হওয়ায় কিডনির জন্য বয়ে আনে সুফল। তরমুজ রক্তে ইউরিক অ্যাসিডের পরিমাণ কমিয়ে দেয়। ফলে কিডনিতে পাথর, ইনফেকশনসহ যাবতীয় অসুখ তুলনামূলক কম হয়। আর কিডনি ভালোভাবে কাজ করার জন্য দেহের বর্জ্যগুলো সঠিকভাবে বের হয়ে যায়।

প্রাকৃতিক ভায়াগ্রা তরমুজ
কৃত্রিম পন্থায় যৌনশক্তি বাড়াতে ভায়াগ্রা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার অন্ত নেই। এই নীল ট্যাবলেটটির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়েও অনেক বিতর্ক রয়েছে। তবে বিজ্ঞানীরা শেষ পর্যন্ত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন প্রাকৃতিক ভায়াগ্রার সন্ধান দিলেন। প্রাকৃতিক সেই জিনিসটি আর কিছু নয়, আমাদের অতি পরিচিত তরমুজ। বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, ভায়াগ্রার মতোই কার্যকর হচ্ছে তরমুজ। টেক্সাস এ অ্যান্ড এম ইউনিভার্সিটির গবেষক বিনু পাতিল মিডিয়াকে জানান, নতুন গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, যারা যৌনশক্তির দিক থেকে অক্ষম বা দুর্বল, তাদের সক্ষমতার জন্য তরমুজই প্রাকৃতিক প্রতিষেধক। বিনু পাতিল তার সহকর্মীদের নিয়ে গবেষণার পর বিস্ময়করভাবে দেখতে পান, একটি তরমুজে সিট্রোলিন নামের অ্যামাইনো অ্যাসিডের পরিমাণ এত বেশি যে, যা আগে বিজ্ঞানীরা ধারণাও করতে পারেননি। কারণ বিজ্ঞানীরা মনে করতেন, সিট্রোলিন সাধারণত ফলের অখাদ্য অংশেই বেশি থাকে। বিনু পাতিল বলেন, তরমুজে সিট্রোলিন আছে, এটা আমাদের জানা কথা। কিন্তু এটা জানতাম না, সিট্রোলিনের পরিমাণ তাতে এত বেশি থাকতে পারে। গবেষকরা ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, মানবদেহ সিট্রোলিনকে আরজিনিনিন নামে যৌগ পদার্থে রূপান্তরিত করে। আরজিনিনিন হচ্ছে ভিন্ন মাত্রার অ্যামাইনো অ্যাসিড, যা নাইট্রিক অ্যাসিডের অগ্রদূত হিসেবে কাজ করে। উল্লেখ্য, নাইট্রিক অ্যাসিড দেহের রক্তবাহী শিরা বা ধমনীর প্রসারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আর রক্তবাহী শিরা বা ধমনীর প্রসারণের কারণেই পুরুষের বিশেষ অঙ্গটি সক্রিয় হয়। ভায়াগ্রাও একইভাবে দেহের নাইট্রিক অ্যাসিডকে সক্রিয় করার মাধ্যমে কৃত্রিম পন্থায় দেহে জৈবিক উত্তেজনা সৃষ্টি করে।

তবে তার এই গবেষণার ফলকে সবাই এক বাক্যে এখনও মেনে নেননি। দি জার্নাল অব সেক্সুয়াল মেডিসিনের প্রধান সম্পাদক ইরউয়িন গোল্ডস্টেইন বলেন, বিশেষ অঙ্গের উত্তেজনার জন্য অবশ্যই নাইট্রিক অ্যাসিড দরকার। কিন্তু বেশি করে তরমুজ খেলেই তা প্রাকৃতিকভাবেই একই কাজটি করে দেবে, এটা এখনও প্রমাণিত নয়। অবশ্য বিনু পাতিল এখনও নিশ্চিত হতে পারেননি, জৈবিক তাড়না সৃষ্টি করতে একজন লোককে ঠিক কত পরিমাণ তরমুজ খেতে হবে।

উচ্চ রক্তচাপ ও হূদরোগের ঝুঁকি কমায় তরমুজ
তরমুজ উচ্চ রক্তচাপ ও হূদরোগের ঝুঁকি কমায়। তাই প্রতিদিন নিয়ম করে তরমুজ খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন ফ্লোরিডা স্টেট ইউনিভার্সিটির গবেষকরা। খালিজ টাইমস-এ প্রকাশিত এই সম্পর্কিত রিপোর্টে বলা হয়, গবেষকরা দেখেছেন, তরমুজ খাওয়ার পর মানুষের শরীরের দীর্ঘতম শিরা আওর্টা ও হূদপিণ্ডে চাপ অনেক কম পড়ে। তরমুজ থেকে আহরিত এল-সিট্রুলিন এবং আরজিনিনা নামের অ্যামিনো অ্যাসিড রক্তচাপসহ রক্তসঞ্চালনে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ক্ষেত্রে ইতিবাচক প্রভাব রাখে বলে মনে করা হচ্ছে।
তরমুজ পুষ্টিতে ভরপুর।