ঢাকা ০৭:৫৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নবী জাকারিয়াকে (আ.) কি করাত দিয়ে দ্বিখণ্ডিত করা হয়েছিল

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ০৭:১১:৩৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪
  • ১৪ বার

প্রশ্ন: নবী হজরত জাকারিয়া (আ.) গাছের ভেতর ডুকে গিয়েছিলেন তখন তাকে করাত দিয়ে চিরেছিল এই ঘটনাটি কী সত্য?

উত্তর: প্রশ্নে বর্ণিত ঘটনাটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। সহিহ হাদিসে তা পাওয়া যায় না। ইবনে কাসির (রহ.) আলবিদায়া ওয়ান নিহায়া(২/২২৮-২২৯) গ্রন্থে এই ঘটনাটি খুবই আপত্তিকর বলে মন্তব্য করেছেন। সুতরাং তা বর্ণনা করা যাবে না।

হজরত জাকারিয়া (আ.) ও অন্যান্য নবীদের সম্পর্কে করআন মাজিদ ও সহিহ হাদিসে যতটুকু বর্ণনা আছে ততটুকু জানাই আমাদের জন্য যথেষ্ট। তাই হজরত যাকারিয়ার (আ.) সম্পর্কে কুরআন মাজিদের কয়েকটি আয়াতের তরজমা ও একটি সহিহ হাদিসের অনুবাদ পেশ করা হল।

(তরজমা) আপনার পালনকর্তার অনুগ্রহের বিবরণ, তার বান্দা যাকারিয়া (আ.) এর প্রতি, যখন তিনি নিজ পালনকর্তাকে গোপনে আহবান করেছিলেন। তিনি প্রার্থনা করলেন, হে আমার পালনকর্তা! আমার অস্থিসমূহ দুর্বল হয়ে পড়েছে। বার্ধক্যে মস্তক সুশুভ্র হয়ে গেছে। (মাথার সব চুল পেকে সাদা হয়ে গেছে)। হে আমার পালনকর্তা! আপনাকে ডেকে আমি কখনো বিফল মনোরথ হইনি। আর আমি আমার পরে স্বজনবর্গ হতে আশঙ্কা করছি ( যে, তারা শরীয়তের এবং ধর্মের সেবা করবে না।) এবং আমার স্ত্রী বন্ধ্যা।

অতএব আপনি বিশেষভাবে আপনার পক্ষ থেকে আমাকে একজন ওয়ারিশ (পুত্র) দান করুন। সে আমার এবং ইয়াকুব-এর বংশের উত্তরাধিকারী হবে। হে আমার পালনকর্তা! তাকে আপনি সন্তোষজনক করুন।

(আল্লাহ তাআলা বললেন,) হে জাকারিয়া! আমি তোমাকে একটি পুত্রের সুসংবাদ দিচ্ছি। তার নাম হবে ইয়াহইয়া। ইতিপূর্বে আমি এ নামে কারো নামকরণ করিনি।

তিনি বললেন, হে আমার পালনকর্তা! কেমন করে আমার পুত্র হবে, অথচ আমার স্ত্রী যে বন্ধ্যা। আর আমিও যে বার্ধক্যের শেষ প্রান্তে উপনীত। তিনি বললেন, এমনিতেই হবে। তোমার পালনকর্তা বলে দিয়েছেন, এটা আমার জন্য সহজ। … (সুরা মারইয়াম: ১-১১)

সহিহ মুসলিমে (২/২৬৮) হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিস থেকে প্রতীয়মান হয় যে, তিনি নিজ হাতে জীবিকা নির্বাহ করতেন এবং পেশায় তিনি ছিলেন একজন ছুতার (কাঠ দিয়ে বাড়ি-ঘর, কাঠের আসবাব, নৌকা এবং বিভিন্ন ধরনের কৃষিকাজে ব্যবহৃত কাঠের যন্ত্রপাতি তৈরি করে।) শরহুন নববী মুসলিম ১৫/১৩৫

কুরআন মাজিদের আরও যেসব সুরায় তার সম্বন্ধে আলোচনা আছে। সুরা আলইমরান : ৩৭-৪১; সুরা আম্বিয়া : ৯০-৯৮; সুরা আনআম : ৮৫; সুরা হুদ : ৭২-৭৩।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

জনপ্রিয় সংবাদ

নবী জাকারিয়াকে (আ.) কি করাত দিয়ে দ্বিখণ্ডিত করা হয়েছিল

আপডেট টাইম : ০৭:১১:৩৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪

প্রশ্ন: নবী হজরত জাকারিয়া (আ.) গাছের ভেতর ডুকে গিয়েছিলেন তখন তাকে করাত দিয়ে চিরেছিল এই ঘটনাটি কী সত্য?

উত্তর: প্রশ্নে বর্ণিত ঘটনাটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। সহিহ হাদিসে তা পাওয়া যায় না। ইবনে কাসির (রহ.) আলবিদায়া ওয়ান নিহায়া(২/২২৮-২২৯) গ্রন্থে এই ঘটনাটি খুবই আপত্তিকর বলে মন্তব্য করেছেন। সুতরাং তা বর্ণনা করা যাবে না।

হজরত জাকারিয়া (আ.) ও অন্যান্য নবীদের সম্পর্কে করআন মাজিদ ও সহিহ হাদিসে যতটুকু বর্ণনা আছে ততটুকু জানাই আমাদের জন্য যথেষ্ট। তাই হজরত যাকারিয়ার (আ.) সম্পর্কে কুরআন মাজিদের কয়েকটি আয়াতের তরজমা ও একটি সহিহ হাদিসের অনুবাদ পেশ করা হল।

(তরজমা) আপনার পালনকর্তার অনুগ্রহের বিবরণ, তার বান্দা যাকারিয়া (আ.) এর প্রতি, যখন তিনি নিজ পালনকর্তাকে গোপনে আহবান করেছিলেন। তিনি প্রার্থনা করলেন, হে আমার পালনকর্তা! আমার অস্থিসমূহ দুর্বল হয়ে পড়েছে। বার্ধক্যে মস্তক সুশুভ্র হয়ে গেছে। (মাথার সব চুল পেকে সাদা হয়ে গেছে)। হে আমার পালনকর্তা! আপনাকে ডেকে আমি কখনো বিফল মনোরথ হইনি। আর আমি আমার পরে স্বজনবর্গ হতে আশঙ্কা করছি ( যে, তারা শরীয়তের এবং ধর্মের সেবা করবে না।) এবং আমার স্ত্রী বন্ধ্যা।

অতএব আপনি বিশেষভাবে আপনার পক্ষ থেকে আমাকে একজন ওয়ারিশ (পুত্র) দান করুন। সে আমার এবং ইয়াকুব-এর বংশের উত্তরাধিকারী হবে। হে আমার পালনকর্তা! তাকে আপনি সন্তোষজনক করুন।

(আল্লাহ তাআলা বললেন,) হে জাকারিয়া! আমি তোমাকে একটি পুত্রের সুসংবাদ দিচ্ছি। তার নাম হবে ইয়াহইয়া। ইতিপূর্বে আমি এ নামে কারো নামকরণ করিনি।

তিনি বললেন, হে আমার পালনকর্তা! কেমন করে আমার পুত্র হবে, অথচ আমার স্ত্রী যে বন্ধ্যা। আর আমিও যে বার্ধক্যের শেষ প্রান্তে উপনীত। তিনি বললেন, এমনিতেই হবে। তোমার পালনকর্তা বলে দিয়েছেন, এটা আমার জন্য সহজ। … (সুরা মারইয়াম: ১-১১)

সহিহ মুসলিমে (২/২৬৮) হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিস থেকে প্রতীয়মান হয় যে, তিনি নিজ হাতে জীবিকা নির্বাহ করতেন এবং পেশায় তিনি ছিলেন একজন ছুতার (কাঠ দিয়ে বাড়ি-ঘর, কাঠের আসবাব, নৌকা এবং বিভিন্ন ধরনের কৃষিকাজে ব্যবহৃত কাঠের যন্ত্রপাতি তৈরি করে।) শরহুন নববী মুসলিম ১৫/১৩৫

কুরআন মাজিদের আরও যেসব সুরায় তার সম্বন্ধে আলোচনা আছে। সুরা আলইমরান : ৩৭-৪১; সুরা আম্বিয়া : ৯০-৯৮; সুরা আনআম : ৮৫; সুরা হুদ : ৭২-৭৩।