ঢাকা ১০:৪৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্কুলছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগে ভূয়া পুলিশ গ্রেপ্তার

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ১১:৩৮:১৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১ জুন ২০২৪
  • ৬ বার

ঢাকার নবাবগঞ্জে দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রীকে বিবাহের প্রলোভন দেখিয়ে অপহরণ করার অভিযোগে আলকাম ওরফে কামরুল নামে এক ভূয়া পুলিশকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শুক্রবার দুপুরে নবাবগঞ্জ থানায় ঢাকার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার  মো. আশরাফুল আলম এক সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এর আগে রাজধানীর মিরপুর মডেল থানা এলাকার একটি ভাড়া বাড়ি থেকে বৃহস্পতিবার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করে নবাবগঞ্জ থানার পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত আলকাম উপজেলার আগলা ইউনিয়নের ছাতিয়া এলাকার আব্দুল ওহাবের ছেলে।

পুলিশের এই জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, আসামি আলকাম ওরফে কামরুল নিজেকে পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে স্কুলছাত্রীর সাথে সর্ম্পক গড়ে এবং বিবাহের প্রস্তাব দেয়। কিন্তু ভূক্তভোগী ছাত্রী নাবালিকা হওয়ার কারণে পরে বিবাহ করবে বলে জানায় মেয়েটির পরিবারকে। অতঃপর গত ৩১ মার্চ দুপুরে গালিমপুর বাজার এলাকা থেকে মেয়েটিকে অপহরণ করে রাজধানী ঢাকা নিয়ে যায়। কিছুদিন পর ঢাকা থেকে পঞ্চগড় নিয়ে যায়।

অপহরণকৃত মেয়েটির সঙ্গে জোরপূর্বক শারীরিক সম্পর্ক করে। সে আপত্তিকর ছবিও তুলে এবং ভিডিও ভাইরালের কথা বলে নগদ দশ লাখ টাকা দাবি করে অপহরণকৃত মেয়েটির স্বজনদের কাছে। টাকা না দিলে সেই ভিডিও সোস্যাল মিডিয়ায় ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দেয় প্রতারক আলকাম।

এবিষয়ে পুলিশ অভিযোগ পেয়ে তদন্ত করে এবং ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামানকে অবগত করেন। পরবর্তী সময়ে পুলিশ সুপারের নির্দেশক্রমে নবাবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি  মোহাম্মদ শাহ জালাল, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরির্দমক (এসআই) মো. আনোয়ার হোসেন, মো. আমিরুল ইসলামসসহ পুলিশের একটি দল আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে রাজধানীর মিরপুর মডেল থানা এলাকার একটি ভাড়া বাড়ি থেকে বৃহস্পতিবার ওই প্রতারককে গ্রেপ্তার করে।

এসময় তার ব্যবহার করা পুলিশের পোষাক, একটি মোবাইল ফোন ও পুলিশের জুতা, বেল্ট ও কাউন্টার টেরিজম লগোযুক্ত ঢাকা মেট্রো-ল-২৮-৯৬৭৬ নম্বর কালো রংয়ের মোটরসাইকেল উদ্ধার করে।

গ্রেপ্তারকৃত প্রতারক আলকাম পুলিশের কাছে অপহরণ ও মেয়েটি সাথে হওয়া ঘটনার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। এবিষয়ে গ্রেপ্তারকৃত আলকামের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতনসহ পর্নগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে।

এ বিষয়ে আগলা ইউনিয়নের ছাতিয়া, গালিমপুর এলাকার খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রতারক আলকামের গ্রামের বাড়ি আগলা ইউনিয়নে হলেও সে বহুদিন আগে থেকেই রাজধানী ঢাকায় বসবাস করেন। তার মা-বাবাও গ্রামে থাকেন না। এজন্য এলাকার লোকজনও তাকে চেনে না।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

স্কুলছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগে ভূয়া পুলিশ গ্রেপ্তার

আপডেট টাইম : ১১:৩৮:১৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১ জুন ২০২৪

ঢাকার নবাবগঞ্জে দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রীকে বিবাহের প্রলোভন দেখিয়ে অপহরণ করার অভিযোগে আলকাম ওরফে কামরুল নামে এক ভূয়া পুলিশকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শুক্রবার দুপুরে নবাবগঞ্জ থানায় ঢাকার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার  মো. আশরাফুল আলম এক সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এর আগে রাজধানীর মিরপুর মডেল থানা এলাকার একটি ভাড়া বাড়ি থেকে বৃহস্পতিবার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করে নবাবগঞ্জ থানার পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত আলকাম উপজেলার আগলা ইউনিয়নের ছাতিয়া এলাকার আব্দুল ওহাবের ছেলে।

পুলিশের এই জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, আসামি আলকাম ওরফে কামরুল নিজেকে পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে স্কুলছাত্রীর সাথে সর্ম্পক গড়ে এবং বিবাহের প্রস্তাব দেয়। কিন্তু ভূক্তভোগী ছাত্রী নাবালিকা হওয়ার কারণে পরে বিবাহ করবে বলে জানায় মেয়েটির পরিবারকে। অতঃপর গত ৩১ মার্চ দুপুরে গালিমপুর বাজার এলাকা থেকে মেয়েটিকে অপহরণ করে রাজধানী ঢাকা নিয়ে যায়। কিছুদিন পর ঢাকা থেকে পঞ্চগড় নিয়ে যায়।

অপহরণকৃত মেয়েটির সঙ্গে জোরপূর্বক শারীরিক সম্পর্ক করে। সে আপত্তিকর ছবিও তুলে এবং ভিডিও ভাইরালের কথা বলে নগদ দশ লাখ টাকা দাবি করে অপহরণকৃত মেয়েটির স্বজনদের কাছে। টাকা না দিলে সেই ভিডিও সোস্যাল মিডিয়ায় ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দেয় প্রতারক আলকাম।

এবিষয়ে পুলিশ অভিযোগ পেয়ে তদন্ত করে এবং ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামানকে অবগত করেন। পরবর্তী সময়ে পুলিশ সুপারের নির্দেশক্রমে নবাবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি  মোহাম্মদ শাহ জালাল, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরির্দমক (এসআই) মো. আনোয়ার হোসেন, মো. আমিরুল ইসলামসসহ পুলিশের একটি দল আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে রাজধানীর মিরপুর মডেল থানা এলাকার একটি ভাড়া বাড়ি থেকে বৃহস্পতিবার ওই প্রতারককে গ্রেপ্তার করে।

এসময় তার ব্যবহার করা পুলিশের পোষাক, একটি মোবাইল ফোন ও পুলিশের জুতা, বেল্ট ও কাউন্টার টেরিজম লগোযুক্ত ঢাকা মেট্রো-ল-২৮-৯৬৭৬ নম্বর কালো রংয়ের মোটরসাইকেল উদ্ধার করে।

গ্রেপ্তারকৃত প্রতারক আলকাম পুলিশের কাছে অপহরণ ও মেয়েটি সাথে হওয়া ঘটনার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। এবিষয়ে গ্রেপ্তারকৃত আলকামের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতনসহ পর্নগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে।

এ বিষয়ে আগলা ইউনিয়নের ছাতিয়া, গালিমপুর এলাকার খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রতারক আলকামের গ্রামের বাড়ি আগলা ইউনিয়নে হলেও সে বহুদিন আগে থেকেই রাজধানী ঢাকায় বসবাস করেন। তার মা-বাবাও গ্রামে থাকেন না। এজন্য এলাকার লোকজনও তাকে চেনে না।