,

ব্যাংকিং প্রক্রিয়া আন্তরিক করে রেমিট্যান্স পাঠাতে উৎসাহী করতে হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী

হাওর বার্তা ডেস্কঃ পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জানিয়েছেন, ব্যাংকিং প্রক্রিয়া আরও আন্তরিক করে বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠাতে প্রবাসী শ্রমিকদের উৎসাহিত করতে হবে। ব্যাংকিং সিস্টেম ও আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠাতে প্রবাসী শ্রমিকরা কম উৎসাহিত হয়।

আজ শুক্রবার আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনে (এফডিসি) ছায়া সংসদের আয়োজন করে ডিবেটে ফর ডেমোক্রেসি। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আয়োজক সংগঠনের চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন। শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন বোয়েসেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মল্লিক আনোয়ার হোসেন।

প্রবাসী কর্মীদের প্রেরিত অর্থ বৈদেশিক আয়ের মূল চালিকা শক্তি শীর্ষক ছায়া সংসদ বিতর্ক প্রতিযোগিতায় ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ। প্রতিযোগিতার চ্যাম্পিয়ন দলকে ৩০ হাজার টাকা এবং রানারআপ দলকে ২০ হাজার টাকাসহ ট্রফি, ক্রেস্ট ও সনদপত্র প্রদান করা হয়। প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন- অধ্যাপক আবু মোহাম্মদ রইস, অধ্যাপক ড. তাজুল ইসলাম চৌধুরী তুহিন, ড. নাশিদ রিজওয়ানা মনির ও সাংবাদিক ঝুমুর বারী।

পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, ব্যাংকিং সিস্টেম ও আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে হুন্ডি ব্যবসায়ীরা প্রবাসী শ্রমিকদের বুকে টেনে নেয়। তাদের সঙ্গে গড়ে তোলে বন্ধুত্বের বন্ধন। সরকার প্রণোদনা দিয়ে প্রবাসী শ্রমিকদের প্রেরিত অর্থের বিনিময় হার বাড়ালেও হুন্ডি ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন কায়দা কৌশলে তা আরও বাড়িয়ে দেয়।

এমএ মান্নান জানান, বিদেশে বাংলাদেশি দূতাবাসগুলোর যেভাবে প্রবাসী শ্রমিকদের সাহায্য সহযোগিতায় এগিয়ে আসা উচিৎ বাস্তবে তা হচ্ছে না। রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের ত্যাগের মূল্যায়নের মাধ্যমে তাদের উপযুক্ত সম্মান ও প্রাপ্য সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। সরকার কর্তৃক যে সমস্ত সুযোগ সুবিধা তাদের দেওয়া হয় অনেকে তা জানে না। আমলাতান্ত্রিক বেড়াজাল ডিঙ্গিয়ে সেগুলো তাদের জন্য আরো সহজ করতে হবে। বৈধপথে যেসব রেমিট্যান্স যোদ্ধা দেশে টাকা পাঠাবে এ বছর থেকেই তাদের ইউনিভার্সেল পেনশন স্কিমের আওতায় আনা হবে। বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রেরণকারীদের উপযুক্ত সম্মান দেওয়ার বিষয়েও ভাবছে সরকার।

মন্ত্রী বলেন, শুধু সরকারি কর্মকর্তা, ভিআইপি, সিআইপিদের জন্যই নয় রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের জন্যও সরকারিভাবে প্লট বরাদ্দ রাখা উচিৎ। প্রবাসী কর্মীদের জন্য আইনের সংখ্যা কমাতে হবে এবং আইন আরও সহজ করতে হবে।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন, আমাদের অষ্টম পঞ্চম বার্ষিকী পরিকল্পনায় রেমিট্যান্সকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। দক্ষ শ্রমশক্তি তৈরির মাধ্যমে সব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে অভিবাসন খাতকে এগিয়ে নিতে হবে।

হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, অব্যবস্থাপনার কারণে প্রবাসী আয় থেকে উপার্জিত অর্থ বৈধ চ্যানেলে ব্যাংকের মাধ্যমে পাঠাতে কিছুটা অনাগ্রহ দেখাচ্ছে অভিবাসী কর্মীরা। হুন্ডির মাধ্যমে অর্থ প্রেরণ করলে প্রতি ডলারে ২ থেকে ৩ টাকা বেশি পেলে কেন একজন প্রবাসী কর্মী বৈধ চ্যানেলে ব্যাংকের মাধ্যমে দেশে টাকা পাঠাবে। তাছাড়া হুন্ডির মাধ্যমে অর্থ প্রেরণ করলে প্রয়োজন অনুযায়ী তা প্রবাসীদের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেয় হুন্ডি ব্যবসায়ীরা। শুক্র-শনির কোন বাধা থাকে না। আমাদের দেশে শুক্র-শনি বন্ধ আবার কোনো কোনো দেশে রোববার বন্ধ। এছাড়াও ৭ দিনে ২৪ ঘণ্টাই হুন্ডিওয়ালারা কর্মীর কর্মস্থলে গিয়ে ডলার সংগ্রহ করেন। ব্যাংকিং চ্যানেলে টাকা পাঠাতে হলে কর্মীর অনেক ক্ষেত্রে কাজের কিছু ক্ষতি হয়। তাই হুন্ডির সাথে বৈধ চ্যানেলে অর্থ প্রেরণে সমতা আনতে বর্তমানে প্রদত্ত ২.৫ শতাংশ ইনসেনটিভ বাড়িয়ে ৪ শতাংশ করা যেতে পারে।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর