,

download (11)

রুইজাতীয় মাছের সাথে মলা-পুঁটির মিশ্র চাষের বিস্তারিত

হাওর বার্তা ডেস্কঃ বাংলাদেশে মিশ্র চাষ বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করছে। দিন দিন বাড়ছে সাধু পানিতে মাছ চাষ। বেড়েছে উৎপাদন ও বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন। জেনে নিই রুইজাতীয় মাছের সাথে মলা-পুঁটির মিশ্র চাষের বিস্তারিত।

রুইজাতীয় মাছের সাথে মলা-পুঁটির মিশ্র চাষের জন্য পুকুর/মৌসুমী জলাশয় নির্বাচন করা একান্ত জরুরি।

দো-আঁশ ও এঁটেল দোআঁশ মাটির পুকুর ভালো।
পুকুর/জলাশয় বন্যামুক্ত এবং মাঝারী আকারের হলে ভালো হয়।
পর্যাপ্ত সূর্যের আলো পড়ে এমন পুকুর নির্বাচন করা উচিত।
পানির গভরীতা ১-১.৫ মিটার হলে ভালো হয়।

রুইজাতীয় মাছের সাথে মলা-পুঁটির মিশ্র চাষে পুকুর প্রস্তুতি কয়েকটি ধাপে করতে হবে।

পাড় মেরামত ও আগাছা পরিষ্কার করতে হবে।
রাক্ষুসে ও ক্ষতিকর প্রাণী অপসারণ করতে হবে।
শতাংশে ১ কেজি করে চুন প্রয়োগ করতে হবে।
চুন প্রয়োগের ৭-৮ দিন পর শতাংশ প্রতি ৫-৭ কেজি গোবর ১০০ গ্রাম ইউরিয়া ও ৫০ গ্রাম টিএসপি সার দিতে হবে।

 

পোনা মজুদ, খাদ্য ও সার প্রয়োগ:

শতাংশ প্রতি ১০-১৫ সে. মি. আকারের ৩০-৩২ টি র্বই জাতীয পোনা এবং ৫-৬ সে. মি. আকারের ৬০ টি মলা ও ৬০ টি পুটিমাছ মজুদ করা যায়।

মাছের পোনা মজুদের পরদিন থেকে পোনার দেহের ওজনের শতকরা ৫-১০ ভাগ হারে সম্পুরক খাবার হিসেবে খৈল, কুড়া, ভূষি দেয়া যেতে পারে।

গ্রাস কার্পের জন্য কলাপাতা, বাধা কপির পাতা, নেপিয়ার বা অন্যান্য নরম ঘাস দেয়া যেতে পারে।

মলা-পুঁটি মাছের জন্য বাড়তি খাবার দরকার নাই।

প্রাকৃতিক খাবার জন্মানোর জন্য পোনা ছাড়ার ১০ দিন পর শতাংশ প্রতি ৪-৬ কেজি গোবর, ১০০ গ্রাম ইউরিয়া সার প্রয়োগ করতে হবে।

মাছ আহরণ
পোনা মজুদের ২ মাস পর হতে ১৫ দিন পর পর বেড় জাল দিয়ে মলা-পুঁটি মাছ আংশিক আহরণ করতে হবে।
৭৫০-৮০০ গ্রাম থেকে বেশী ওজনের কাতল ও সিলভার কার্প মাছ আহরণ করে সমসংখ্যক ১০-১২ সে. মি. আকারের পোনা পুনরায় মজুদ করতে হবে।

বছর শেষে চূড়ান্ত আহরণ করা যেতে পারে।

রুইজাতীয় মাছের সাথে মলা-পুঁটির মিশ্র চাষের বিস্তারিত সংবাদের তথ্য কৃষি তথ্য সার্ভিস থেকে নেওয়া হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর