,

বর্তমান সংসদ কি গণতন্ত্রের প্রতীক? গোলাম মোহাম্মদ কাদের

কয়েকদিন আগে এক গুণী ব্যক্তির একটি সুন্দর বক্তব্য দেখলাম। একপর্যায়ে তিনি বলেছেন, ‘সংসদ গণতন্ত্রের প্রতীক’। অত্যন্ত মূল্যবান কথা। রাষ্ট্রীয় কাঠামোয় গণতন্ত্র চর্চার যে কয়েকটি ব্যবস্থা বিদ্যমান তার মধ্যে সংসদীয় পদ্ধতি অন্যতম। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের শাসন ব্যবস্থায় এ কাঠামো ব্যবহার করা হয়েছে ও এতে করে ওইসব দেশের গণতন্ত্রায়নের চর্চা ও উৎকর্ষ সাধন সম্ভব হয়েছে। প্রচলিত সংসদীয় পদ্ধতির পথিকৃৎ বলা যায় যুক্তরাজ্যকে। ভারত এ বিষয়ে একটি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হিসেবে গণ্য হতে পারে। ‘যে কোনো গণতন্ত্রে ক্ষমতার মূল মালিক জনগণ ও দায়িত্বপ্রাপ্তরা জনগণের স্বার্থে এ ক্ষমতা ব্যবহার করবেন এটাই লক্ষ্য।’

সংসদীয় পদ্ধতির শাসন ব্যবস্থায় ক্ষমতা ও দায়িত্ব বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে দেওয়া হয় বিভিন্ন স্তরে অনেক ধরনের প্রতিষ্ঠানের সাহায্যে। সংসদের উদ্দেশ্য থাকে সব ধরনের ক্ষমতা ও দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানগুলোর সমন্বয় সাধন, পরস্পরের মধ্যে জবাবদিহিতার মাধ্যমে দায়বদ্ধতার সংস্কৃতি সৃষ্টি ও সার্বিকভাবে ক্ষমতার ভারসাম্য তৈরি। লক্ষ্য থাকে সংবিধান সংশোধন, আইন প্রণয়ন ও অন্য যে কোনো প্রকারে এ বিষয়টি নিশ্চিত করা, যাতে করে কেউই এককভাবে ক্ষমতাধর হয়ে অন্য সবার ওপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম না হন। রাজতন্ত্রের বিপরীত শব্দ প্রজাতন্ত্র, তেমনিভাবে একনায়কতন্ত্রের বিপরীত অবস্থান গণতন্ত্রের। সংসদীয় ব্যবস্থায় একনায়কতন্ত্রের আগ্রাসনকে রুদ্ধ করে গণতন্ত্র চর্চার পরিবেশ সৃষ্টি ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার মুখ্য দায়িত্ব থাকে সংসদের ওপর। এ দায়িত্ব পালন সুষ্ঠু ও সহজতর করার জন্য দ্বিকক্ষবিশিষ্ট সংসদ বা একটির জায়গায় দুটি সংসদ রাখার বিধান পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিদ্যমান।

বাংলাদেশের শাসন পদ্ধতি বা সরকার ব্যবস্থা এককক্ষবিশিষ্ট সংসদীয় কাঠামোর বলে দাফতরিকভাবে বলা হয় বা দাবি করা হয়। সংসদ এলাকাভিত্তিক, সরাসরি জনগণের ভোটে ৩০০টি আসন ও সংসদ সদস্যদের ভোটে বর্তমানে ৫০টি মহিলা সংরক্ষিত আসনে নির্বাচিত সদস্যদের দ্বারা গঠিত হয়। সংসদ সদস্যদের সংখ্যাগরিষ্ঠের সমর্থনে দেশের প্রধানমন্ত্রী বা সরকারপ্রধান নিয়োগ পান। তার ইচ্ছা অনুযায়ী মন্ত্রিপরিষদ গঠিত হয়। সংসদ নির্বাচনে যে দল সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে জয়লাভ করে তারাই সাধারণত তাদের দলীয় প্রধানকে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করেন। প্রচলিত রীতি অনুযায়ী তিনি আবার সে রাজনৈতিক দলের সংসদীয় নেতা নির্বাচিত হন।

সংসদের প্রায় সব সিদ্ধান্ত সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে গৃহীত হয়। সংবিধানের বিধান (৭০ অনুচ্ছেদ) অনুযায়ী দলীয় সংসদ সদস্যরা দলীয় যে কোনো প্রস্তাবে সমর্থন দিতে বাধ্য থাকেন। প্রধানমন্ত্রী বা দেশের নির্বাহী প্রধান, তিনি একই সঙ্গে দলীয় প্রধান ও দলীয় সংসদীয় দলের প্রধান। তিনি তার দলীয় সংসদ সদস্যদের সমর্থন লাভে নিশ্চিত থাকেন। ফলে নির্বাহী বিভাগের বা এক কথায় প্রধানমন্ত্রীর যে কোনো প্রস্তাব সংসদে পেশ করলে সংখ্যাগরিষ্ঠ দলীয় সংসদ সদস্যদের সমর্থনে তা অনুমোদিত হবে- এটা স্বাভাবিক এবং অদ্যাবধি হয়ে আসছে। ফলে অনেকে বাংলাদেশের সংসদকে রাবার স্ট্যাম্প সংসদ বা নির্বাহী বিভাগের (সরকারের) সব কার্যক্রমের বৈধতা দানকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে আখ্যায়িত করেন।

সরকারি দলের সংখ্যাগরিষ্ঠতা ও দলীয় প্রধান প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাবে সমর্থনের বাধ্যবাধকতা থাকায় সংসদপ্রধান (স্পিকার) নির্বাচন সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটের ব্যবহারকারী হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর নিয়ন্ত্রণে থাকে। একই পদ্ধতিতে অপসারণও প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ারভুক্ত হওয়ায় সংসদের স্পিকারের কার্যকালের স্থায়িত্ব সম্পূর্ণ প্রধানমন্ত্রীর হাতে থাকে। ফলে কার্যকলাপও সে অনুযায়ী হওয়ার কথা।

রাষ্ট্রপতির নিয়োগও একইভাবে হয় ও সে কারণে প্রধানমন্ত্রীর আওতাভুক্ত। অবশ্য রাষ্ট্রপতির অপসারণও দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা আবশ্যক। বর্তমান সংসদে প্রধানমন্ত্রীর সে সংখ্যার অধিক দলীয় সংসদ সদস্য আছে। ফলে পদে থাকতে হলে মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে প্রধানমন্ত্রীর সন্তোষভাজন হতে ও থাকতে হবে এটাই অনেকের ধারণা। ফলে রাষ্ট্রপতির নিজস্ব ক্ষমতা যেমন প্রধান বিচারপতি নিয়োগ বা অন্য কোনো কর্তৃত্ব ব্যবহার করতে স্বাভাবিকভাবে প্রধানমন্ত্রীর মনোভাব বুঝে করতে হতে পারে, বলা যায়। উচ্চ আদালতের বিচারক, নির্বাচন কমিশন, দুর্নীতি দমন কমিশন, সরকারি কর্ম-কমিশন, মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক, মানবাধিকার কমিশন ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানের সাংবিধানিক পদগুলো সরকারপ্রধান (প্রধানমন্ত্রী) কর্তৃক নিয়োগের জন্য নির্বাচন করা হয় বা তার প্রভাব বিস্তারের সুযোগ থাকে। উক্ত নিয়োগপ্রাপ্ত পদগুলোর অপসারণ দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ সদস্যের দ্বারা করার বিধান বর্তমান সংসদে করা হয়েছে। এখন সংসদে সরকারি দলের এ সংখ্যাগরিষ্ঠতা আছে। ফলে প্রধানমন্ত্রী তাদের শুধু নিয়োগ নন, অপসারণ করার কর্তৃত্বের সর্বময় অধিকারী।

সংসদের একটি প্রধান কাজ সরকার ও সরকারপ্রধানের জবাবদিহিতার ব্যবস্থা করা। বিরোধী দলের এ ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালনের কথা। বর্তমান সংসদের প্রধান বিরোধী দলের মন্ত্রিপরিষদে প্রতিনিধিত্ব থাকার কারণে একই সঙ্গে তারা সরকারের অংশীদার। প্রধান বিরোধী দলের দলনেতা প্রধানমন্ত্রীর অধীনে তার বিশেষ দূত হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত। ফলে সরকারবিরোধী কোনো ভূমিকা তা সে সংসদই হোক বা সংসদের বাইরেই হোক, এই প্রধান বিরোধী দলের পক্ষে সম্ভব নয়।

সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদের কারণে সংসদে প্রধান বিরোধী দল সরকারের কোনো প্রস্তাবে না ভোট দিলে, সংবিধানে ৫৫(৩) অনুচ্ছেদে বর্ণিত উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন সম্ভব করার জন্য সে বিরোধীদলীয় মন্ত্রীদের সংসদ সদস্য পদ বাতিল হবে। ফলে প্রধান বিরোধী দল সাংবিধানিক কারণে সংসদে সরকারের বিরোধিতা করতে অক্ষম।

বিরোধী দল প্রধান, প্রধানমন্ত্রীর অধীনস্থ হওয়ায় সংসদের বাইরে এ দলের সরকারবিরোধী ভূমিকা গ্রহণযোগ্য হয় না।

বাস্তব পরিস্থিতি এ রকম- এক ব্যক্তি সরকারি দলের প্রধান, রাষ্ট্রীয় নির্বাহী বিভাগের প্রধান বা প্রধানমন্ত্রী একইভাবে রাষ্ট্র পরিচালনায় সংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠানের সর্বময় কর্তৃত্বের অধিকারী। প্রধানমন্ত্রী বর্তমান সৃষ্ট পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা বা দায়িত্বপ্রাপ্ত অন্য সব প্রতিষ্ঠানকে কার্যকরভাবে নিয়ন্ত্রণে সক্ষম।

প্রধানমন্ত্রীকে জবাবদিহিতার আওতায় আনা বা দায়বদ্ধ করার প্রতিষ্ঠানসমূহ প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে তার নিয়ন্ত্রণে থাকায় তিনি তার ক্ষমতা ব্যবহারে অপ্রতিরোধ্য। ক্ষমতার ভারসাম্য সম্পূর্ণ একপেশে যা কোনোক্রমেই গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় কাম্য নয়। প্রাতিষ্ঠানিকভাবে এ পদ্ধতি একনায়কতন্ত্রের যে কোনো সংজ্ঞার মধ্যে পড়ে বলা যায়।

৫ জানুয়ারি, ২০১৪ সালের নির্বাচন, যে প্রক্রিয়ায় ও যে পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে তাকে স্বাভাবিক বলা যায় না। গঠিত সংসদের বেশির ভাগ সদস্য বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষিত হয়েছেন। তাদের সমর্থনে সরকারপ্রধান নির্বাচিত হয়েছেন। সে কারণে, প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জনগণের সম্পৃক্ততা কতটুকু ছিল সে বিষয়ে সংশয়ের অবকাশ আছে।

যে আসনগুলোতে নির্বাচন হয়েছে, সেখানে বাস্তবে অধিকাংশ মানুষ ভোট দিতে যায়নি বা যেতে পারেনি বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়। তা ছাড়া নানা ধরনের অনিয়মের অভিযোগ ব্যাপকভাবে আলোচিত ও সমালোচিত হয়েছে। প্রজাতন্ত্রের ক্ষমতার মালিক জনগণ। বেশির ভাগ মানুষ তাদের ক্ষমতা ব্যালটের মাধ্যমে অন্য কাউকে ব্যবহারের জন্য হস্তান্তর করার সুযোগ পায়নি। তারপরও সেটার ব্যবহার কতটুকু নৈতিকভাবে গ্রহণযোগ্য, সে প্রশ্নও থেকে যায়।

নির্বাচনের মাধ্যমে সরকারপ্রধান বা সার্বিকভাবে সরকারকে দায়বদ্ধ করার যে সুযোগ ও অধিকার জনগণের ছিল, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে তা তারা হারিয়েছে বলে বেশির ভাগ মানুষের ধারণা। তাদের আশঙ্কা সহসা বা খুব সহজে এ অধিকার তারা ফিরে পাবে কিনা। বর্তমান নির্বাচন ব্যবস্থার পরিবর্তন ছাড়া এটা সম্ভব মনে হচ্ছে না।

৫ জানুয়ারি, ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচন ও তার ফলে সৃষ্ট সংসদ বর্ণিত পরিস্থিতির জন্য অনেকাংশে দায়ী। কিছু কারণ আগে থেকেই বিদ্যমান ছিল। কিন্তু ওইগুলো সংশোধন না করে বরং বর্তমানে সমস্যা বৃদ্ধি করার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

সংসদের মুখ্য দায়িত্ব ছিল একনায়কতন্ত্রের পথে বাধা হওয়া ও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া ও মূল্যবোধকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। সংসদ সে দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ। বরং এখন তুলনামূলকভাবে অধিকতর একনায়কত্বের সহায়ক হিসেবে অবতীর্ণ বলা যায়। ফলে বর্তমান সংসদ গণতন্ত্রের প্রতীক নয়। বরং মৃত গণতন্ত্র সংরক্ষণের কফিনের প্রতীক হিসেবে অনেকের কাছে প্রতীয়মান হচ্ছে।

শান্তিপূর্ণভাবে এ সমস্যা উত্তরণে দেশপ্রেমিক নাগরিকসহ সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে এগিয়ে আসতে হবে। আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে ঐকমত্যের ভিত্তিতে সংবিধানের প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনতে হবে। নির্বাচন কমিশন, দুর্নীতি দমন কমিশন, সরকারি কর্মকমিশনসহ অন্য সব গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান সংস্কার করে নিরপেক্ষ ও অধিকতর কার্যকর করার ব্যবস্থা নিতে হবে। অন্যথায় সুশাসনের অভাব, রাজনৈতিক অস্থিরতা ও বিপর্যয়ের আশঙ্কা থেকেই যাবে।

লেখক : সাবেক মন্ত্রী।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর