,

Iranian women cheer during the World Cup Qatar 2022 Group C qualification football match between Iran and Cambodia at the Azadi stadium in the capital Tehran on October 10, 2019. - The Islamic republic has barred female spectators from football and other stadiums for around 40 years, with clerics arguing they must be shielded from the masculine atmosphere and sight of semi-clad men. Women fans are attending the football match freely for the first time in decades, after FIFA threatened to suspend the country over its controversial male-only policy. (Photo by ATTA KENARE / AFP)
Iranian women cheer during the World Cup Qatar 2022 Group C qualification football match between Iran and Cambodia at the Azadi stadium in the capital Tehran on October 10, 2019. - The Islamic republic has barred female spectators from football and other stadiums for around 40 years, with clerics arguing they must be shielded from the masculine atmosphere and sight of semi-clad men. Women fans are attending the football match freely for the first time in decades, after FIFA threatened to suspend the country over its controversial male-only policy. (Photo by ATTA KENARE / AFP)

৪০ বছর পর মাঠে ছেলেদের খেলা দেখল ইরানের মেয়েরা

হাওর বার্তা ডেস্কঃ সবার আগ্রহের কেন্দ্রে ছিল ইরান-কম্বোডিয়ার ম্যাচটি। কেমন লড়াই হবে সে কারণে নয়। নজর ছিল গ্যালারির দিকে। এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে যে চল্লিশ বছর পর গ্যালারিতে বসে ইরানের ছেলেদের খেলা দেখার স্বাদ পেল ইরানের মেয়েরা!

স্মরণীয় ম্যাচটি বিশাল জয়ে আরও স্মরণীয় করে রাখল ইরান। বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপের বাছাইয়ের ‘সি’ গ্রুপের ম্যাচটিতে বৃহস্পতিবার তেহরানের আজাদি স্টেডিয়ামে কম্বোডিয়াকে ১৪-০ গোলে উড়িয়ে দেয় তারা।

ইরানে ১৯৭৯ সালে ইসলামি বিপ্লবের পর থেকে গ্যালারিতে বসে পুরুষদের খেলা দেখায় নারীরা সমর্থকেরা নিষিদ্ধ ছিল।

কিন্তু চলতি বছরের মার্চে এই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে আজাদি স্টেডিয়ামে ক্লাব ফুটবলের একটি ম্যাচ দেখতে স্টেডিয়ামে ঢোকার চেষ্টার সময় গ্রেপ্তার হন সাহার খোদাইয়ারি নামের এক নারী। এই ঘটনায় ছয় মাসের জেল হতে পারে শুনে আদালতের বাইরে নিজের গায়ে আগুন লাগিয়ে দেন ওই নারী। পরে হাসপাতালে মৃত্যু হয় তার।

এরপর থেকে ইরানে ছেলেদের খেলায় মেয়েদের নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক ফুটবল সংস্থা ফিফা ও অধিকারকর্মীরা ইরানকে চাপ দিয়ে আসছিল। এর অংশ হিসেবেই মেয়েদের জন্য গ্যালারি খুলে দিল অতি রক্ষণশীল দেশটি।

৭৮ হাজার দর্শক ধারণ ক্ষমতার স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে ইরানের নারী সমর্থকদের উপস্থিতি সাড়ে তিন হাজারের ওপরে। মেয়েদের জন্য বরাদ্দ টিকিটগুলো এক ঘণ্টার মধ্যেই বিক্রি হয়ে যায় বলে সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়।

তবে ছেলেদের সঙ্গে একসঙ্গে বসে নয়, মেয়েদের জন্য নির্দিষ্ট গ্যালারির একাংশে থেকেই জাতীয় দলকে উৎসাহিত করে ইরানি মেয়েরা।

ম্যাচটির দুই অর্ধে ৭টি করে গোল করে ইরান। চারটি গোল করেন করিম আনসারিফার্দ এছাড়া হ্যাটট্রিক করেন সর্দার আজমউন। দুটি করে গোল করেন মেহদি তারেমি ও মোহাম্মদ মোহেবি। একটি করে গোল করেন আহমেদ নুরল্লাহি, হোসেন কানানি ও মেহেরদাদ মহম্মদি।

কম্বোডিয়ার ফুটবল ইতিহাসে এটিই তাদের বৃহত্তম ব্যবধানে হার।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর