,

যুক্তরাজ্যের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রীর হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে বরিস জনসন, ঋষি সুনাক

হাওর বার্তা ডেস্কঃ সদ্যপদত্যাগ করেছেন ব্রিটিশি প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস। মাত্র ৪৫ দিন ক্ষমতায় থাকার পর পদত্যাগ করেন তিনি। পদত্যাগের পরপরই তার স্থলাভিষিক্ত হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এবং সাবেক অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনাক।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়, ছয় সপ্তাহ ক্ষমতায় থাকার পর বৃহস্পতিবার পদত্যাগ করেছেন ট্রাস। তাকে প্রতিস্থাপন করতে চাওয়া প্রার্থীরা রক্ষণশীল আইন প্রণেতাদের কাছ থেকে ১০০ ভোট নিশ্চিত করার চেষ্টা করছিল। এর মাধ্যমে তারা পার্টির অসুস্থ ভাগ্য পুনরায় সুস্থ করবে বলে আশা করছে

কনজারভেটিভদের সঙ্গে পরবর্তী জাতীয় নির্বাচনে নিশ্চিহ্ন হওয়ার মুখোমুখি হলেও জনমত জরিপ অনুসারে, ছয় বছরে পঞ্চম ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রতিযোগিতা চলছে। আগামী সপ্তাহের সোমবার বা শুক্রবার বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হবে বলে রয়টার্স জানিয়েছে।

মাত্র তিন মাস আগে পার্লামেন্ট থেকে বহিষ্কার হওয়া বরিস জনসন ফের ক্ষমতায় আসলে অসাধারণ প্রত্যাবর্তন হবে বলে জানিয়েছেন বিশ্লেষকরা। ক্ষমতা হারানোর পর ঋষি সুনাকের পাশাপাশি তিনিও পরবর্তী প্রধানমন্ত্রীর মুকুট পরার জন্য উচ্চ পদের দিকে ছুটছিলেন।

রক্ষণশীল আইনপ্রণেতা পল ব্রিস্টো এলবিসি রেডিওতে জনসন সম্পর্কে বলেছেন, ‘আমি মনে করি, তিনি জিনিসগুলিকে ঘুরিয়ে দেওয়ার জন্য সেই প্রমাণিত ট্র্যাক রেকর্ড পেয়েছেন। তিনি এটিকে আবার ঘুরিয়ে দিতে পারেন। আমি নিশ্চিত, আমার সহকর্মীরা সেই বার্তাটি উচ্চস্বরে এবং স্পষ্ট শুনেছেন। আগামী সাধারণ নির্বাচনে বরিস জনসনের জিতার সম্ভাবনা রয়েছে।’

অনেকে আবার বলছেন, পার্টিগেট কেলেঙ্কারি এবং অসদাচরণের অভিযোগে প্রধানমন্ত্রীত্ব হারানো জনসনের জন্য ১০০ ভোট ম্যানেজ কষ্টসাধ্য হতে পারে।

তার একজন প্রাক্তন উপদেষ্টা পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে রয়টার্সকে বলেন, জনসনের লক্ষ্যে পৌঁছানোর সম্ভাবনা কম ছিল। কেলেঙ্কারিতে আক্রান্ত মেয়াদে কয়েক ডজন কনজারভেটিভকে বিচ্ছিন্ন করেছিলেন তিনি।

নতুন নির্বাচনের আহ্বান জানানো ফিন্যান্সিয়াল টাইমস পত্রিকা বলেছে, বরিসের প্রত্যাবর্তন হবে ‘প্রহসনমূলক’।

পূর্বে জনসনের হয়ে কাজ করা উইল ওয়াল্ডেন বিবিসিকে বলেছেন, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ছুটি থেকে ফিরছিলেন এবং শব্দ নিচ্ছিলেন। দেশে একজন প্রাপ্তবয়স্ক, গুরুতর নেতা দরকার। বরিসের সুযোগ ছিল, আসুন আমরা এগিয়ে যাই। আমি মনে করি টোরি পার্টি যা করবে তা নয়, তারা তাকে পুনরায় নির্বাচিত করতে পারে।’

বাণিজ্যমন্ত্রী জ্যাকব রিস-মগও বরিসকে সমর্থন করছেন।

তবে আগেরবারের লিজ ট্রাসের সবচেয়ে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী এবং প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনাক বুকমেকারদের কাছে বেশি জনপ্রিয়, তার পরে জনসন। তৃতীয় স্থানে রয়েছেন দলের সদস্যদের কাছে জনপ্রিয় সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী পেনি মর্ডান্ট। কেউই আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থিতা ঘোষণা করেননি।

 

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর