,

IMG_20210929_000149

তরুণ প্রজন্মের কাছে প্রধানমন্ত্রী এক জীবন্ত কিংবদন্তী — যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

হাওর বার্তা ডেস্কঃ যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল বলেছেন, তরুণ প্রজন্মের কাছে এক জীবন্ত কিংবদন্তির নাম শেখ হাসিনা। আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে দেখিনি তবে তার সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে দেখে বঙ্গবন্ধুর বিশালত্বের কিছুটা অনুধাবন করতে পারি। বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া বাংলাদেশকে তিনি বিশ্ব দরবারে উন্নয়ন ও গণতন্ত্রের রোল মডেল হিসেবে  সম্মানিত করেছেন। তিনি মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বিশ্বের সেরা মানবিক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’র খেতাব পেয়েছেন। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু,  মেট্রোরেল,  কর্ণফুলী টানেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, নতুন নতুন উড়াল সেতু, মহাসড়কগুলো ফোর লেনে উন্নীত করা, এলএনজি টার্মিনাল স্থাপন,পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মতো মেগা প্রকল্প সফলভাবে বাস্তবায়নের মাধ্যমে বিশ্বমঞ্চে বাংলাদেশের সক্ষমতা প্রমাণ করেছেন। তিনি আজ দেশ ও মহাদেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে  বিশ্বনেতা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন।

প্রতিমন্ত্রী আজ রাজধানীর গুলশানে বিচারপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদ পার্কে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫ তম জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত ‘স্বপ্নের রূপকার’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে যোগদান করে তিনি এ কথা জানান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যার নেতৃত্বে সব প্রতিবন্ধকতা সমস্যা-সংকট ও চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রের কাতারে উপনীত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি, একাত্তরের ঘাতক যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, সংবিধান সংশোধনের মধ্য দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনঃপ্রতিষ্ঠা, ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ নিষ্পত্তি ও সমুদ্রবক্ষে বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার মধ্যদিয়ে ব্লু-ইকোনমির নবদিগন্ত উন্মোচন ও বিশাল সমুদ্রে আমাদের অধিকার প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের মাধ্যমে মহাকাশেও বাংলাদেশের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার  শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। তাঁর নেতৃত্বে  দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। দেশে অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ তথ্য প্রযুক্তির প্রসার ঘটেছে। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির কারণে দেশের গ্রামীণ আর্থসামাজিক অবস্থার হয়েছে উন্নয়ন। দেশের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশের অর্থনীতির ভিত শক্ত হয়ে আমরা পরিণত হয়েছি মধ্যম আয়ের দেশে।

শেখ হাসিনা শুধু বাঙালির অধিকার সুরক্ষায় নয়, বিশ্বের সকল নিপীড়িত শোষিত বঞ্চিত মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় তাঁর পিতার মতোই অবিরাম সংগ্রাম করে চলেছেন বলেও মন্তব্য করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভারচুয়ালি যোগদান করেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর