,

ডায়াবেটিস নিরাময়ে কার্যকর সুপারফুড কাঁচা পেঁপে

হাওর বার্তা ডেস্কঃ প্রাচীন সময় থেকেই কাঁচা পেঁপে বহু রোগের মহৌষধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। স্বাস্থ্যকর খাবারের তালিকায় পেঁপের অবস্থান অন্যতম। এটি কাঁচা ও পাকা দুভাবেই খাওয়া হয়ে থাকে। কাঁচা অবস্থায় সবজি ও পাকা অবস্থায় ফল হিসেবে খাওয়া হয় পেঁপে। আর এটি পাওয়া যায় সারা বছরেই। কাঁচা পেঁপে ভাজি ও ডাল দিয়ে নানারকম তরকারি খাওয়া হয়ে থাকে। এমনকি এটি বিভিন্ন মাংসেও দিয়ে রান্না করা হয়। এ ছাড়া কাঁচা পেঁপের হালুয়া আমাদের দেশে বেশ জনপ্রিয়। পুষ্টিবিদরা বলছেন, কাঁচা পেঁপের মধ্যে এমন কিছু প্রাকৃতিক পুষ্টি উপাদান রয়েছে যা সারিয়ে তুলতে পারে বহু জটিল রোগ।

ভিটামিন, প্রোটিন, ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস এবং প্যাপেইন ও কাইমোপাপেইনের মতো এনজাইমের প্রয়োজনীয় পুষ্টিতে সমৃদ্ধ। কাঁচা পেঁপের স্বাস্থ্য উপকারিতাও অসীম। অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং ক্ষত নিরাময় বৈশিষ্ট্য তো র‍য়েছে, কোষ্ঠকাঠিন্য নিরাময় এবং হজমশক্তি বাড়াতেও সাহায্য করে। সব থেকে বড় কথা, ডেঙ্গু রোগে আক্রান্তদের জন্য দারুণ উপকারী পেঁপে৷

 প্রাচীন সময় থেকেই কাঁচা পেঁপে বহু রোগের মহৌষধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। স্বাস্থ্যকর খাবারের তালিকায় পেঁপের অবস্থান অন্যতম। এটি কাঁচা ও পাকা দুভাবেই খাওয়া হয়ে থাকে। কাঁচা অবস্থায় সবজি ও পাকা অবস্থায় ফল হিসেবে খাওয়া হয় পেঁপে। আর এটি পাওয়া যায় সারা বছরেই। কাঁচা পেঁপে ভাজি ও ডাল দিয়ে নানারকম তরকারি খাওয়া হয়ে থাকে। এমনকি এটি বিভিন্ন মাংসেও দিয়ে রান্না করা হয়। এ ছাড়া কাঁচা পেঁপের হালুয়া আমাদের দেশে বেশ জনপ্রিয়। পুষ্টিবিদরা বলছেন, কাঁচা পেঁপের মধ্যে এমন কিছু প্রাকৃতিক পুষ্টি উপাদান রয়েছে যা সারিয়ে তুলতে পারে বহু জটিল রোগ।

ভিটামিন, প্রোটিন, ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস এবং প্যাপেইন ও কাইমোপাপেইনের মতো এনজাইমের প্রয়োজনীয় পুষ্টিতে সমৃদ্ধ। কাঁচা পেঁপের স্বাস্থ্য উপকারিতাও অসীম। অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং ক্ষত নিরাময় বৈশিষ্ট্য তো র‍য়েছে, কোষ্ঠকাঠিন্য নিরাময় এবং হজমশক্তি বাড়াতেও সাহায্য করে। সব থেকে বড় কথা, ডেঙ্গু রোগে আক্রান্তদের জন্য দারুণ উপকারী পেঁপে

গবেষকদের মতে, “১০০ গ্রাম কাঁচা পেঁপেতে রয়েছে ৩২ গ্রাম ক্যালোরি আর ৭ গ্রাম শর্করা। আরও রয়েছে পটাশিয়াম, ভিটামিন সি সহ নানা রকম পুষ্টি উপাদান।

বিশেষজ্ঞরা একে ‘সুপারফুড’ হিসেবেও আখ্যায়িত করে থাকেন। শরীরকে সুস্থ রাখতে ও শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করার পাশাপাশি এটি জ্বর নিরাময়ে, পেটের সমস্যা দূর করতে, গ্যাস্ট্রিক এবং বদহজমেও অনেক উপকারী। জানুন কাঁচা পেঁপের বিভিন্ন স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে—

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করেঃ সবুজ পেঁপেতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ খনিজ রয়েছে। এগুলো শরীরে গ্লুকোজের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। এই খনিজগুলি ইনসুলিন নিঃসরণ বাড়াতেও সহায়ক। এটি মূল এনজাইমের বিরুদ্ধেও কাজ করতে পারে, যা টাইপ ২ ডায়াবেটিসের জন্য দায়ী।

ওজন কমাতে সহায়কঃ ওজন কমাতে প্রতিদিন খাবারের সঙ্গে কাঁচা পেঁপে খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। এতে শরীরে জমে থাকা অতিরিক্ত চর্বি দূর হয়। এ জন্য দইয়ের সঙ্গে গ্রেট করে কাঁচা পেঁপে খাওয়া যায়, কিংবা স্যালাড হিসেবে।

হজমে সাহায্য করেঃ কাঁচা পেঁপে ডায়েটারি ফাইবারে সমৃদ্ধ। যা গাঁজানো স্টার্চ তৈরি করতে সাহায্য করে যা শেষ পর্যন্ত অন্ত্রের উপকারী ব্যাকটেরিয়ার জন্য খাদ্য (প্রিবায়োটিক) হয়ে ওঠে। ফলে অন্ত্র থাকে সুস্থ সবল।

ডেঙ্গু রোগ নিরাময় কার্যকরঃ ডেঙ্গু রোগ হলে প্রচণ্ড জ্বর হয়। কমে যায় প্লাটিলেট। এই পরিস্থিতিতে হাতিয়ার হয়ে উঠতে পারে পেঁপে। ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীকে পেঁপে পাতার রস খেতে বলেন অনেকেই। এটা শ্বেত রক্তকণিকার প্লাটিলেট সংখ্যা বাড়াতে সাহায্য করে।

কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তিঃ কাঁচা পেঁপেতে বেশ কিছু স্বাস্থ্যকর এনজাইম থাকে। এগুলো পেট পরিষ্কার রাখে এবং টক্সিন-মুক্ত হজম প্রক্রিয়া পেতে সাহায্য করে। কাঁচা পেঁপে প্রকৃতিতে অ্যান্টি-পরজীবী এবং অ্যামিবিক বিরোধী। ফলে পেট ঠান্ডা থাকে। গ্যাস্ট্রিক সিস্টেমকে অস্বাস্থ্যকর গ্যাস সংগ্রহে বাধা দেয়।

এনজাইমের ঘাটতি পূরণ করেঃ যে মহিলারা শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ান তাঁদের পুষ্টির প্রয়োজন বেশি। তাই তাঁদের কাঁচা পেঁপে খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। কারণ এটা শরীরের সমস্ত এনজাইমের ঘাটতি পূরণ করে দুধ বাড়াতে সাহায্য করে।

বিভিন্ন ধরনের ইনফেকশনে উপকারীঃ

কাঁচা পেঁপে এবং এর বীজে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, সি এবং ই, যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে। কাঁচা পেঁপে সর্দি-কাশি সংক্রমণের সঙ্গে লড়াই করে। এটি প্রস্রাবের সমস্যায় উপকারী হতে পারে। কাঁচা পেঁপে শরীরে ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি বন্ধ করে।

পেটের রোগ দূরে করেঃ পাকা পেঁপে আমাদের পেটের জন্যও খুব উপকারী। একইভাবে পেটের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে কাঁচা পেঁপেও উপকারী। এটি খেলে গ্যাস, পেটব্যথা এবং হজমের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

জয়েন্টের সমস্যা দূর করেঃ কাঁচা পেঁপে বাত ও জয়েন্টের জন্য উপকারী। গ্রিন টি-র সঙ্গে ফুটিয়ে চা তৈরি করে খেলে বাতের সমস্যায় আরাম মেলে।

ওজন কমায়ঃ কাঁচা পেঁপে খাওয়া ওজন কমাতে সাহায্য করে। ওজন কমাতে চাইলে কাঁচা পেঁপে খান। এটি নিয়মিত সেবনে চর্বি দ্রুত কমে যায়।

অবাঞ্ছিত লোম থেকে পরিত্রাণ পেতেঃ

শরীরের অবাঞ্ছিত লোমগুলি খুব কুৎসিত দেখায় এবং তা থেকে মুক্তি পাওয়াও কঠিন। কাঁচা পেঁপে দিয়েও অবাঞ্ছিত লোমের পুনঃবৃদ্ধি রোধ করা যায়। কাঁচা পেঁপেতে প্যাপেইন নামে একটি শক্তিশালী এনজাইম রয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ ফার্মাসিউটিক্যালস-এ প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, প্যাপেইন আপনার অবাঞ্ছিত লোমের ফলিকলগুলিকে দুর্বল করে এবং তাদের বাড়তে বাধা দেয়, এভাবে অবাঞ্ছিত লোম থেকে মুক্তি পেতে সহায়তা করে।

পুষ্টির উৎসঃ ব্রিটিশ জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণায় বলা হয়েছে, কাঁচা পেঁপেতে গাজর ও টমেটোর চেয়েও অনেক বেশি ক্যারটিনয়েডস পাওয়া যায়। তাই এটি আমাদের শরীরের ক্যারটিনয়েড ও ভিটামিনের ঘাটতি পূরণ করে পুষ্টির উৎস হিসেবে কাজ করে।

ত্বকের সৌন্দর্য বাড়ায়ঃ সবুজ পেঁপেতে রয়েছে ফাইবার, যা ত্বক থেকে টক্সিন শোষণ করে। এর সাহায্যে আপনি ব্রণ, ফ্রেকলস এবং পিগমেন্টেশনের সমস্যা এড়াতে পারেন। এতে উপস্থিত ভিটামিন এবং অন্যান্য পুষ্টি আপনার ত্বককে সুস্থ রাখে। সেই সঙ্গে কাঁচা পেঁপে সেবনে শরীরের যেকোনো ক্ষত বা ক্ষত সারাতে সক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

 

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর