,

1-6

নৈঃশব্দের কেশর ছুঁয়ে

ড. গোলসান আরা বেগম 
সময়ের পথ চলা, ঘড়ির টংটাং শব্দ থামে না
প্রকৃতির উচ্ছলতা জেগে ওঠে ঘুমিয়ে পড়ে
বুড়ু পৃথিবীর শৈশব কৈশর নৈঃশব্দের কেশর ছুঁয়ে
জাফরানি রঙে বেগুনী ছায়ার খেলায় অবিশ্রান্ত উড়ে।
আমার দৃস্টি খোঁজে জামরুল গাছের ছায়া
পদ্ম ঝিলের টলমল জলে গোধূলি বেলা
থেমে নেই, থামবে না দুপুরের হঠকারিতা
ধুয়া উড়ানো উষ্ণ কাপে চলবে আড্ডার খেলা।
নতুনের ভীড়ে, নব্য সুরে তানপুরা বাজবে
পাতা ঝরা, সবুজ লাবণ্য,বরফ গলা ভালোবাসা
থাকবে ছন্দপতন, গড়মিল, ছাই ভষ্ম
কেন কর গোলাপ ফোটা কবিতার আশা।
পারবে না ফেরাতে,যেতে দাও যে যায়
সময়ের ঠোঙ্গায় ভরে ঝালমুড়ি খাও
যদি পারো সুখের থালায় গুড়েবালি ছড়াও
বুড়ু পৃথিবীকে সামনে ঠেলে দিয়ে ঘুমাও।
যেতে হবে ঐ দুরে, তীরে তরী বাঁধা
আতর লোবান গন্ধ মেখে পীরজাদা
ইন্নালিল্লাহি পড়ে,ঠান্ডায় জমে যাওয়া মাংসল দেহে
জানতো,পারবে না নিতে কোন সোনা দানা
যতই হও তুমি লাট বাহাদুর নবাবজাদা।
Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর