ঢাকা ০৪:২৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জামায়াতের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ, গুলিতে ১০ জন আহত হওয়ার দাবি

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : ০৫:৩৯:৪৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ নভেম্বর ২০২৩
  • ৫১ বার

হাওর বার্তা ডেস্কঃ বগুড়ায় তৃতীয় দফার অবরোধের প্রথম দিন জামায়াতের নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া পালটা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীদের ককটেল ও ইটপাটকেলের জবাবে পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও শটগান দিয়ে গুলিবর্ষণ করেছে। এতে জামায়াতের ১০ নেতাকর্মী আহত হও

বুধবার সকালে সকালে সদরের দ্বিতীয় বাইপাস মহাসড়কের সাবগ্রাম ও ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের বাঘোপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বুধবার সকাল ৭টার দিকে শহর জামায়াতের আমির আবিদুর রহমান সোহেলের নেতৃত্বে জামায়াত শিবিরের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী মিছিল নিয়ে সাবগ্রাম এলাকায় দ্বিতীয় বাইপাস মহাসড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করেন। এ সময় পুলিশ তাদের চলে যেতে অনুরোধ করলে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও ককটেল হামলা চালায়। তখন পুলিশ ও জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া পালটা ধাওয়া শুরু হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এখানে জামায়াত-শিবিরের ছয় নেতা আহত হওয়ার দাবি করা হয়।

একই সময় জামায়াত নেতা আলী আজগরের নেতৃত্বে লাঠিসোটা হাতে নেতাকর্মীরা সদরের বাঘোপাড়া এলাকায় মিছিল নিয়ে ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করেন। পুলিশ এলে উভয়ের সঙ্গে ধাওয়া পালটা ধাওয়া শুরু হয়। এক পর্যায়ে ককটেল হামলা করলে পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। সেখানে জামায়াতের আরও চার নেতাকর্মী আহত হওয়ার দাবি করা হয়েছে।

বগুড়া শহর জামায়াতের আমির আবিদুর রহমান সোহেল দাবি করেন, সাবগ্রাম ও বাঘোপাড়া এলাকায় পুলিশের গুলিতে তাদের ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তিনি তাদের শান্তিপূর্ণ মিছিল ও অবরোধ কর্মসূচিতে পুলিশ গুলিবর্ষণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) স্নিগ্ধ আখতার জানান, জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ককটেল হামলা ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় কয়েকটি টিয়ারশেল ছুড়ে ও শটগান দিয়ে দুই রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, অবরোধকারীদের কেউ আহত হলে সেটা নিজেদের ককটেলের আঘাতে হয়েছে।

এছাড়া বুধবার সকালে বগুড়া জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর তালুকদার হেনার নেতৃত্ব বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী দ্বিতীয় বাইপাস মহাসড়কের লিচুতলা মোড়ে অবরোধ করেন। নিকটেই পুলিশ থাকলেও এখানে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Haor Barta24

জনপ্রিয় সংবাদ

জামায়াতের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ, গুলিতে ১০ জন আহত হওয়ার দাবি

আপডেট টাইম : ০৫:৩৯:৪৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ নভেম্বর ২০২৩

হাওর বার্তা ডেস্কঃ বগুড়ায় তৃতীয় দফার অবরোধের প্রথম দিন জামায়াতের নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া পালটা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীদের ককটেল ও ইটপাটকেলের জবাবে পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও শটগান দিয়ে গুলিবর্ষণ করেছে। এতে জামায়াতের ১০ নেতাকর্মী আহত হও

বুধবার সকালে সকালে সদরের দ্বিতীয় বাইপাস মহাসড়কের সাবগ্রাম ও ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের বাঘোপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বুধবার সকাল ৭টার দিকে শহর জামায়াতের আমির আবিদুর রহমান সোহেলের নেতৃত্বে জামায়াত শিবিরের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী মিছিল নিয়ে সাবগ্রাম এলাকায় দ্বিতীয় বাইপাস মহাসড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করেন। এ সময় পুলিশ তাদের চলে যেতে অনুরোধ করলে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও ককটেল হামলা চালায়। তখন পুলিশ ও জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া পালটা ধাওয়া শুরু হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এখানে জামায়াত-শিবিরের ছয় নেতা আহত হওয়ার দাবি করা হয়।

একই সময় জামায়াত নেতা আলী আজগরের নেতৃত্বে লাঠিসোটা হাতে নেতাকর্মীরা সদরের বাঘোপাড়া এলাকায় মিছিল নিয়ে ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করেন। পুলিশ এলে উভয়ের সঙ্গে ধাওয়া পালটা ধাওয়া শুরু হয়। এক পর্যায়ে ককটেল হামলা করলে পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। সেখানে জামায়াতের আরও চার নেতাকর্মী আহত হওয়ার দাবি করা হয়েছে।

বগুড়া শহর জামায়াতের আমির আবিদুর রহমান সোহেল দাবি করেন, সাবগ্রাম ও বাঘোপাড়া এলাকায় পুলিশের গুলিতে তাদের ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তিনি তাদের শান্তিপূর্ণ মিছিল ও অবরোধ কর্মসূচিতে পুলিশ গুলিবর্ষণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) স্নিগ্ধ আখতার জানান, জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ককটেল হামলা ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় কয়েকটি টিয়ারশেল ছুড়ে ও শটগান দিয়ে দুই রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, অবরোধকারীদের কেউ আহত হলে সেটা নিজেদের ককটেলের আঘাতে হয়েছে।

এছাড়া বুধবার সকালে বগুড়া জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর তালুকদার হেনার নেতৃত্ব বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী দ্বিতীয় বাইপাস মহাসড়কের লিচুতলা মোড়ে অবরোধ করেন। নিকটেই পুলিশ থাকলেও এখানে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।