,

ভয়ে আছে সেই স্কুলছাত্রীর পরিবার

হাওর বার্তা ডেস্কঃ সব জল্পনা কল্পনা শেষে চারদিন পর ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার স্কুলছাত্রীকে যৌন নির্যাতনের ঘটনায় মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার বিকালে মামলাটি হয়।

ওই দিন হাসপাতাল থেকে ভুক্তভোগী মেয়েটি বাড়িতে যায়। কিন্তু বাড়িতে তার বাবা ও ভাই কেউ নেই। বৃদ্ধ মা ও দাদি আছে। তবে কোনো পুরুষ মানুষ বাড়িতে না থাকায় ভয়ে আছে এ পরিবারটি।

মামলার আসামিরা হলেন- মেয়েটির একজন সম্পর্কিত চাচা উপজেলার বেলসাড়া গ্রামের বাবুল ও বোবড়া গ্রামের তালেব ও আসলাম। এই দুজন বাবুলের নিকটতম আত্মীয়।

গ্রামের আবুল হোসেন জানান, মেয়েটির বাবা-ভাইরা সবাই কারাগারে বন্দি আছে। এক ভাই পালিয়ে বেড়াচ্ছে পুলিশের ভয়ে। এর মধ্যে সে ধর্ষণের শিকার হয়। হাসপাতালে ৪ দিন চিকিৎসা চিকিৎসা শেষে বাড়িতে ফিরে সে। ভুক্তভোগী মেয়েটি কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলে- বাড়িতে ফিরে ভয় করছে তার। কখন যেন কী হয় এই বলে সে কেঁদে দেয়!

গত শুক্রবার দুপুর ১টায় বালিয়াডাঙ্গী থেকে থ্রি হুইলারে করে বাবা-ভাইকে দেখতে কারাগারে যাচ্ছিল সে। পথে ৫-৬ জন দুর্বৃত্ত গাড়িটির গতি রোধ করে উঠে পরে। এ সময় গাড়ির ভেতরে ধারালো অস্ত্র দেখিয়ে (ছুরি) হত্যার হুমকি দিয়ে জোরপূর্বক তাকে অজ্ঞাত একটি স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে দুর্বৃত্তরা। একপর্যায়ে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তাকে রাস্তার পাশে ফেলে রেখে পালিয়ে যায় নির্যাতনকারীরা।

তবে কিশোরীর দাবি, দুর্বৃত্তদের ৬ জনের মধ্যে ৩ জন তার এলাকার এবং আত্মীয়। ওই চিহ্নিত ৩ ব্যক্তির সঙ্গে তাদের জমি সংক্রান্ত  বিরোধ চলছে। অপর তিনজন মাস্ক পরা থাকায় তাদের চিনতে পারেনি সে।

অভিযুক্ত বাবুল বলেন- মেয়েটি বাবা আমার ফুফাতো ভাই । তার সঙ্গে জমি নিয়ে মামলা চলছে। জমির বিরোধকে কেন্দ্র করে আমার বাবার মৃত্যু হয়। এরপর বিবাদ লেগে আছে। একটি কুচক্রী মহলের উস্কানিতে মেয়েটি বাবা মোশারফ হোসেন মুসা আমাকে হয়রানি করছে।

বড়পলাশবাড়ী ইউপির চেয়ারম্যান মো. শাহাব উদ্দিন মিয়া বলেন, রেকর্ডভুক্ত রাস্তায় ঘর বাড়ি তৈরি করার অপরাধে মেয়েটির বাবা ও ভাই জেল খাটছে। অপর এক ভাই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে এক মামলায় সাজা ভোগ করছে। আরেক ভাই চুরি মামলার আসামি। তবে পরিবারটির নিরাপত্তার সমস্যা হলে ইউনিয়ন পরিষদ খোঁজখবর রাখবে।

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার রাকিবুল ইসলাম চয়ন বলেন, মেয়েটি এখন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে।

বালিয়াডাঙ্গী থানার ওসি খায়রুল আনাম বলেন, তিনজনকে আসামি করে ওই স্কুলছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় মামলা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর