,

উত্তরা দুর্ঘটনায় বেঁচে রইলেন শুধু নবদম্পতি

হাওর বার্তা ডেস্কঃ রাজধানীর উত্তরায় দুর্ঘটনাকবলিত প্রাইভেট কারটিতে ‘বউভাতের’ অনুষ্ঠান শেষ করে ফিরছিলেন পরিবারের সদস্যরা। ওই গাড়িতে নবদম্পতিও ছিলেন। দুর্ঘটনায় আহত অবস্থায় বেঁচে থাকা দুজনই বর-কনে। এ ঘটনায় গাড়ি থেকে পাঁচজনের মৃতদেহ উদ্ধার করেছেন ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা।

তবে আহত নবদম্পতির অবস্থাও আশঙ্কাজনক।সোমবার বিকেল ৪টা ২০ মিনিটের দিকে উত্তরার জসীমউদ্দীন এলাকায় আড়ংয়ের সামনে গাড়ির ওপর গার্ডার পড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এর প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা পর সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে গার্ডার সরিয়ে পাঁচজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন মো. রুবেল (৬০), ফাহিমা (৪০), ঝরনা (২৮), ঝরনার দুই সন্তান জান্নাত (৬) ও জাকারিয়া (২)। ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়েছে। আহতরা হলেন হৃদয় (২৬) ও রিয়া মনি (২১)। তাদের গুরুতর অবস্থায় স্থানীয় হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

লাশগুলো উদ্ধারের পর রাত পৌনে ৮টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক সাইফুজ্জামান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে একজন পুরুষ, দুজন নারী ও দুটি শিশু রয়েছে। তাদের সবার লাশ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

প্রাইভেট কারের ওপর থেকে গার্ডার সরাতে এত দেরি হওয়ার কারণ জানতে চাইলে ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা সাইফুজ্জামান বলেন, ‘এত বড় গার্ডার সরানোর সক্ষমতা ফায়ার সার্ভিসের নেই। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান যারা এখানে কাজটি করছে, তাদের লোকজন আসার পর গার্ডারটি সরানোর প্রক্রিয়া শুরু করা হয়। তাদের আসতে সময় লাগায় দেরি হয়েছে। ’

পুলিশ ও স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঢাকায় একটি বউভাতের অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে ফেরার পথে দুর্ঘটনার শিকার হন হতাহত ব্যক্তিরা। ঘটনার পরপরই দুজনকে আহত অবস্থায় প্রাইভেট কার থেকে বের করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। তখন গার্ডারের নিচে চাপা পড়া গাড়িটির ভেতরে পাঁচজন ছিলেন। তখন তাদের কয়েকজনকে বাইরে থেকে দেখা যাচ্ছিল।

ঢাকা মহানগর পুলিশের উত্তরা বিভাগের ডিসি মোর্শেদ আলম বলেন, ‘উত্তরা এলাকায় বিআরটিএর উড়াল সড়ক হচ্ছে বর্তমান সড়কের মাঝ বরাবর। আর প্রাইভেট কারটি যাচ্ছিল রাস্তার একপাশ দিয়ে। ঘটনার আগে বিআরটিএর একটি গার্ডার তোলার সময় একপাশে কাত হয়ে ওই প্রাইভেট কারের ওপর পড়ে। ’

প্রাথমিক তদন্তে পাওয়া তথ্যের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, ‘এখন পর্যন্ত যতটুকু জানা গেছে, তারা একটি বউভাতের অনুষ্ঠান থেকে ফেরার পথে দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। স্বজনরা জানিয়েছেন, তারা আশুলিয়ায় যাচ্ছেলেন। ’

জানা গেছে, শরীয়তপুর সদরের ঢালী বাজার এলাকার বাসিন্দা এবং আহত হৃদয়ের বাবা মো. রুবেল (বর্তমান ঠিকানা-কাওলা) গাড়িটি চালাচ্ছিলেন। গত শনিবার হৃদয়-রিয়া মনির বিয়ে হয়েছে। আজ কাওলায় হৃদয়দের বাড়িতে ছিল বউভাতের অনুষ্ঠান।

এ বিষয়ে ফায়ার সার্ভিসের ঢাকা জোন-৩ উপসহকারী পরিচালক সাইফুজ্জামান বলেন, ‘১৫০ টন ওজনের গার্ডার হওয়ায় উদ্ধারকাজ শুরু করা যায়নি। পরে এক্সকাভেটর আনা হয়। এক্সকাভেটর আনতে দেরি হওয়ায় উদ্ধারকাজ বিলম্ব হয়। এক্সকাভেটর দিয়ে গার্ডার একটু উঁচু করে প্রাইভে কারের ভেতর থেকে পাঁচজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ’

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর