,

download (4)

৩০০ টাকায় গরুর মাংস পেলো ৪৭২ পরিবার

হাওর বার্তা ডেস্কঃ যশোরে মধ্যবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত ব্যক্তিদের কাছে ৩০০ টাকা করে (প্রতি কেজি) গরুর মাংস, ৫০ টাকা কেজি পোলাও চাল আর ৫০ টাকায় চিনি বিক্রি করেছে আইডিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থা। মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) এ দামে ৪৭২টি পরিবার ঈদ বাজার করে। মাংস, পোলাও চাল, চিনি কিনে সেমাই, মাংসের মসলা, বাদাম, কিসমিস উপহার হিসেবে পান তারা।

আইডিয়া থেকে ঈদ বাজার করতে আসা খড়কি পীরবাড়ি এলাকার ইজিবাইক চালক জামাল উদ্দিন বলেন, ‘আমাদের মতো মানুষের গরুর মাংস কেনার সামর্থ্য নেই। এখানে সাড়ে ৬শ টাকার গরুর মাংস ৩শ টাকা, ১২০ টাকার পোলাও চাল ৫০ টাকায় ও ৯০ টাকার চিনি ৫০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। আমরা এ দামে ঈদের বাজার করতে পেরে খুশি।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে খড়কি এলাকার এক ব্যক্তি বলেন, ‘করোনার ধাক্কায় অর্থনৈতিক অবস্থা এত নিচে নেমে গেছে যে, শেষ কবে গরুর মাংস খেয়েছি তা মনে পড়ছে না। এই সংগঠনটির কল্যাণে ঈদের দিন পরিবারের সদস্যদের মুখে গরুর মাংস তুলে দিতে পারবো।’

খড়কি দক্ষিণপাড়া এলাকার ইলেকট্রিক মিস্ত্রি আব্দুল আলীম বলেন, ‘৩০০ টাকায় গরুর মাংস, ৫০ টাকায় পোলাও চাল, চিনি কিনতে পেরেছি। এর সঙ্গে সেমাই, মাংসের মসলা পেয়েছি। খুব আনন্দ লাগছে।’

বিভিন্ন মেসে রান্না করেন গাজীর বাজার এলাকার সাজেদা বেগম। তিনি বলেন, ‘রমজান মাসে কম দামে চাল, তেল, চিড়ে, ছোলা কিনিছি। এখন অর্ধেক দামে গরুর মাংস, পোলাও চাল পাচ্ছি। আমি আল্লাহর কাছে দোয়া করি, এরা যেন আর বেশি বেশি মানষির জন্যি করতি পারে।’

 

আইডিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থার প্রধান উপদেষ্টা যশোর সরকারি এমএম কলেজের সহকারী অধ্যাপক হামিদুল হক শাহীন বলেন, পবিত্র রমজানে মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত শ্রেণির পাশে দাঁড়াতে আইডিয়া লস প্রজেক্ট শুরু করেছিল আইডিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থা। তিনি বলেন, সমাজের উচ্চবিত্তরা সবকিছুই কিনতে পারেন। নিম্নবিত্তের মানুষ সরকারি বা বেসরকারি বিভিন্ন ত্রাণ সুবিধার জন্য মানুষের কাছে হাত পাততে পারলেও চক্ষুলজ্জার খাতিরে মধ্যবিত্তরা তাদের কান্না লুকিয়েই রাখেন। এ শ্রেণির মানুষের জন্য আমাদের ক্ষুদ্র এ উদ্যোগ।

এর আগে রমজানের শুরুতে লস প্রজেক্টের অধীন ৪৭২টি পরিবারের কাছে লোকসানে পণ্য বিক্রি করে সংস্থাটি। পরিবারপ্রতি ৫০ টাকা কেজি দরের চাল ২৫ টাকায় ৫ কেজি, ১৬৮ টাকা লিটারের সয়াবিন তেল ১২০ টাকায়, দেড়শ টাকার খেজুর ৮০ টাকায়, ৩৫০ টাকা দরের খেজুর ২০০ টাকায়, ৪০ টাকা দামের ২ কেজি আলু ২০ টাকায়, ৫০ টাকার চিড়া ৩৫ টাকায়, ৮০ টাকা কেজির ছোলা ৫০ টাকায়, ৮০ টাকা কেজি দরের চিনি ৫০ টাকায়, ৯০ টাকা কেজি দরের মসুর ডাল ৬০ টাকায় এবং ৩০ টাকা কেজি দরের পেঁয়াজ ১৫ টাকায় বিক্রি করে। সবমিলিয়ে রমজান মাসের এ প্রজেক্টে তিন লক্ষাধিক টাকা ভর্তুকি দিয়ে লস প্রজেক্ট শেষ করে আইডিয়া সমাজ কল্যাণ সংস্থা।

আইডিয়ার লস প্রজেক্টের কো-অর্ডিনেটর হারুন অর রশিদ জানান, আইডিয়া সমাজকল্যাণ সংস্থা শিক্ষার্থীদের দ্বারা পরিচালিত সমাজকল্যাণমূলক স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান। এই প্রজেক্টের আওতায় শিক্ষার্থীরা পবিত্র রমজান মাসজুড়ে ‘লস’ করার উদ্দেশ্যেই নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রীর ব্যবসা করেছেন। তারা বেশি দামে জিনিস কিনে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তের মাঝে কম দামে বিক্রি করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর