,

image-510027-1642418086

মন্ত্রীর তিন ভাগিনা ভোটযুদ্ধে

হাওর বার্তা ডেস্কঃ আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় এবার আলোচনার শীর্ষে মন্ত্রীর তিন ভাগিনা। তারা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোটযুদ্ধে অংশ নিয়েছেন।

তারা হলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের তিন ভাগিনা। ভোট যুদ্ধে অবতীর্ণ হওয়া এ তিন ভাগিনা হলেন- ২নং চরপার্বতী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রশিদ মঞ্জু, ৬নং রামপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী রামপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সিরাজিস সালেকিন রিমন এবং ৫নং চরফকিরা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জায়দল হক কচি। সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মঞ্জু ও রিমন দুইজনই মন্ত্রীর আপন দুই বোনের ছেলে এবং কচি সেতুমন্ত্রীর ফুফাতো বোনের ছেলে।

জানা গেছে, মন্ত্রীর এ তিন ভাগিনা ভোটের ময়দানে এবারই প্রথম। ইতোপূর্বে এ তিনজনের কেউ কোনো প্রকার নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেননি। তবে তিন ভাগিনা এবার তিন ইউনিয়নেই আলোচনার শীর্ষে আছেন বলে জানা গেছে ভোটারদের প্রতিক্রিয়ায়।

তিন ইউনিয়নের ভোটারদের সঙ্গে আলাপকালে তারা জানান, ভোটারদের মাঝেও তারা ব্যাপক সাড়া জাগাতে সক্ষম হয়েছেন।

চরপার্বতী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের ভোটার, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক জুলফিকার হায়দার মোহন বলেন, একজন দক্ষ সংগঠক মঞ্জু। তাছাড়া তিনি সেতুমন্ত্রীর বোনদের মাঝে সবার বড়বোনের ছেলে। মন্ত্রীর ভাগিনা হওয়ায় তিনি ইউনিয়নে ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করতে পারবেন। তাই ভোটাররা এবার তার দিকেই ঝুঁকছে।

অপরদিকে বয়সে একেবারেই তরুণ সালেকিন রিমনের মা মেরী মন্ত্রীর বোনদের মাঝে তৃতীয়। এলাকার যুব সমাজকে ঐক্যবদ্ধ করার পাশাপাশি মার্জিত আচরণের কারণে বয়োবৃদ্ধ ভোটারদেরও পছন্দ তরুণ রিমন।

রামপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ব্যবসায়ী কাশেদ চৌধুরী জানান, বর্তমান চেয়ারম্যানের ব্যর্থতা ও অনৈতিক কর্মকাণ্ডের কারণেই ভোটাররা এবার রিমনকে নির্বাচিত করবে।

চরফকিরায় প্রার্থী মন্ত্রীর ফুফাতো বোন নূর জাহান বেগমের ছেলে জায়দল হক কচি সাবেক ছাত্রনেতা এবং একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী।

চরফকিরা ইউনিয়নের ভোটার মাসুদুর রহমান মিল্টন বলেন, নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার কথা মাথায় রেখেই গত তিনবছর এলাকায় নিয়মিত কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছেন কচি। তাছাড়া চরফকিরার রাজনীতিতে একচ্ছত্র প্রভাব বিস্তার করা জনপ্রিয় সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের মুল স্রোতধারার শীর্ষ নেতা মিজানুর রহমান বাদলের সমর্থন কচির বিজয়ের পথকে আরও সুগম করবে বলেও মতামত ব্যক্ত করেন তিনি।

উল্লেখ্য, আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য সপ্তম ধাপের নির্বাচনে চরপার্বতী, চরফকিরা ও রামপুর এ তিনটিসহ উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তবে কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের মধ্যে চলমান রাজনৈতিক বিরোধের কারণে এখানে দলের কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত মোতাবেক কোনো প্রার্থীকে নৌকা প্রতীক না দিয়ে নির্বাচনকে উন্মুক্ত রাখা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর