,

12

কিশোরগঞ্জে ৬১৬টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার জমি ও ঘর পাচ্ছে

হাওর বার্তা ডেস্কঃ ‘মুজিব শতবর্ষে বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না’- প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশনা অনুযায়ী কিশোরগঞ্জ জেলায় ৬১৬টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান করা হচ্ছে। এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভা করেছে জেলা প্রশাসন।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) দুলাল চন্দ্র সূত্রধরের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব কে এম শাখাওয়াত মুন।

এতে অন্যদের মধ্যে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উবায়দুর রহমান সাহেলসহ জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম জানান, কিশোরগঞ্জ জেলার ১৩ উপজেলায় ৬১৬টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান এবং ব্যারাক হাউজ নির্মাণের মাধ্যমে ইটনা উপজেলার আড়ালিয়া ও মজলিশপুর আশ্রয়ণ প্রকল্পে মোট ২৭০টি পরিবারকে পুনর্বাসিত করা হচ্ছে।

শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টায় গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে সারা দেশে একযোগে মোট ৬৬ হাজার ১৮৯টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে দুই শতাংশ জমিসহ গৃহের কবুলিয়ত দলিল, নামজারি, গৃহ প্রদানের সনদ, ডিসিআর কপি ও ঘরের চাবি এবং ৩ হাজার ৭১৫টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ব্যারাক হাউজের কবুলিয়ত দলিল, নামজারি, গৃহ প্রদানের সনদ, ডিসিআর কপি ও ঘরের চাবি হস্তান্তর কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করবেন।

জেলা প্রশাসক আরো জানান, ইতোমধ্যে ঘরসমূহের বিদ্যুৎ ও খাবার পানীয়ের জন্য টিউবওয়েল স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়া গৃহ নির্মাণের ক্ষেত্রে অনুমোদিত প্রাক্কলন ও ডিজাইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ গুণগতমান বজায় রেখে নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানিয়েছে, জেলার ১৩টি উপজেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ১০টি, হোসেনপুর উপজেলায় ২৯টি, কটিয়াদী উপজেলায় ৫৯টি, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৫১টি, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৩১টি, তাড়াইল উপজেলায় ৫০টি, ইটনা উপজেলায় ১৯৯টি, মিঠামইন উপজেলায় ৯টি, অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৩৭টি, বাজিতপুর উপজেলায় ৪৯টি, নিকলী উপজেলায় ২৪টি, কুলিয়ারচর উপজেলায় ২৯টি এবং ভৈরব উপজেলায় ৩৯টি ঘর বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

এছাড়া ইটনা উপজেলায় দুইটি ব্যারাকে মোট ২৭০টি ঘর গৃহহীনদের মাঝে হস্তান্তর করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর