,

269526_maracana

প্রতিবাদের মুখে আটকে গেল ‘মেসি-ব্রাজিলের দুঃখ’ মারাকানার নাম বদল

হাওর বার্তা ডেস্কঃ এস্তাদিও দে মারাকানায় রচিত হয়েছে কত হাসি-কান্নার কাব্য। ১৯৫০ বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনালে উরুগুয়ের কাছে ব্রাজিলের সেই হার। ২০১৪ বিশ্বকাপের ফাইনালে লিওনেল মেসির হৃদয়ে ক্ষত তৈরি করা ১-০ গোলে জার্মানির কাছে আর্জেন্টিনার পরাজয়। ব্রাজিলের ঐতিহাসিক স্টেডিয়ামটির নাম বদলে ‘কিং পেলে স্টেডিয়াম’ করতে চেয়েছিল রিও ডি জেনিরো রাজ্য সরকার। কিংবদন্তি পেলের প্রতি সম্মান দেখাতেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তারা।

স্থানীয় অধিবাসীরা মনে করেন, অন্য রাজ্যের কারো নামে স্টেডিয়ামের নাম রাখা উচিত নয়। কিংবদন্তি পেলের জন্ম হয়েছিল ব্রাজিলের মিনাস জেরাইস রাজ্যে। এরপর জীবনের একটা বড় সময় কাটিয়েছেন সাও পাওলোয়। রিওতে কখনোই থিতু হননি তিনি।

১৯৫০ ও ২০১৪ বিশ্বকাপ ফাইনালের পাশাপাশি এই মাঠে হয়েছে ২০১৬ অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান।

অনেক আগে স্টেডিয়ামটির নামকরণ করা হয়েছিল মারিও ফিলহোর নামে, যিনি ছিলেন একজন সাংবাদিক। তিনি ১৯৪০ সালে স্টেডিয়ামটি নির্মাণের পক্ষে তদবির করেছিলেন। অধিকাংশ ব্রাজিলিয়ান এটাকে ডাকেন শুধুই মারাকানা নামে। নাম পরিবর্তনের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করাদের মধ্যে আছেন পেলের ১৯৭০ বিশ্বকাপজয়ী দলের সতীর্থ জেরসন এবং মারিও ফিলহোর নাতি। জেরসন এটাকে ‘অযৌক্তিক’ বলে মত দেন।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর