,

71

ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের বাড়িতে বঙ্গবন্ধু জাদুঘর

হাওর বার্তা ডেস্কঃ ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের বাড়িতে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জীবনের অনেক গুরুত্বপূর্ণ সময় কাটিয়েছেন। আর এ বাড়িতেই তিনি ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে সপরিবারে শহীদ হন। তার স্মৃতি ধরে রাখতেই এ বাড়িটিকে তার নামানুসারে জাদুঘর হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে।
১৯৮১ সালে শেখ হাসিনার কাছে এ বাড়িটি হস্তান্তর করা হয়। শেখ হাসিনা বাড়িটিকে জাদুঘরে রূপান্তরের জন্য বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের কাছে হস্তান্তর করেন। বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্ট বাড়িটিকে জাদুঘরে রূপান্তরিত করে।
জাদুঘরটির প্রথম তলায় দেখা যাবে বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন আলোকচিত্র। এসব আলোকচিত্রের মধ্যে আছে সে সময়কার বিভিন্ন দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর আলাপচারিতা ও শুভেচ্ছা বিনিময়ের দৃশ্য। প্রথম তলার কক্ষটি ছিল বঙ্গবন্ধুর ড্রইং রুম। এখানে বসে তিনি দেশ-বিদেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। এ কক্ষের পাশের কক্ষটি ছিল তার পড়ার ঘর। এখানে বসে তিনি লেখালেখিও করেছেন।
সিঁড়ি বেয়ে উপরে ওঠার সময় দেখা যাবে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতের ভয়াবহতার কিছু নিদর্শন। বঙ্গবন্ধু উপর তলা থেকে নিচতলায় এ সিঁড়ি বেয়ে নামার সময়ই ঘাতকরা তাকে গুলি করে। গুলি খেয়ে বঙ্গবন্ধু এ সিঁড়িতেই পড়ে যান। এখানে শিল্পীর তুলিতে আঁকা বঙ্গবন্ধুর গুলিবিদ্ধ অবস্থার একটি প্রতিকৃতি আছে।
দোতলার প্রথমে যে কক্ষটি আছে এটি বঙ্গবন্ধুর বাসকক্ষ। এর পরের প্রথমে কক্ষটি তার শোবার ঘর, তার পরের কক্ষটি শেখ রেহানার শোবার ঘর। এ কক্ষগুলোতে এখন দেখা যাবে বঙ্গবন্ধু এবং তার পরিবারের নানা স্মৃতিচিহ্ন।
এ কক্ষগুলোয় থাকা নিদর্শনের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর ব্যবহৃত পাইপ, চশমাসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র, শেখ রাসেলের খেলার সামগ্রী- বল, হিকস্টিক, ব্যাট, হেলমেট, সুলতানা কামালের সঙ্গে তার ছবিসহ বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের নানা নিদর্শন।
জাদুঘরটিতে একটি বিক্রয় কেন্দ্র আছে। এখানে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা বই ও নানা স্মারক পাওয়া যাবে।
বুধবার ছাড়া সপ্তাহের বাকি ৬ দিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকে এ জাদুঘরটি। প্রবেশমূল্য প্রতিজন ৫ টাকা।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর