,

66

মৃত মানুষকেও প্রমোশন দেয়া হয় এ দেশে

হাওর বার্তা ডেস্কঃ নজরুল ইসলাম খান, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি জাদুঘরের কিউরেটর এবং সাবেক সচিব। শিক্ষা সচিবের দায়িত্ব পালনকালে শিক্ষা ব্যবস্থার সংস্কারে গুরুত্বপূর্ণ উদ্যোগ নিয়েছিলেন। এবারের এইচএসসি পরীক্ষার ফল বিপর্যয় নিয়ে মুখোমুখি হন জাগো নিউজ’র। কথা হয় শিক্ষা, শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও পাঠ্যপুস্তকের মান নিয়েও। দীর্ঘ আলোচনায় তুলে ধরেন শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ মতামত।

আপনি শিক্ষা প্রশাসনে ছিলেন। শিক্ষা প্রশাসনে মূলত কোথায় ঘাটতি আছে বলে মনে করেন?
নজরুল ইসলাম খান:
 শিক্ষা ব্যবস্থা তো একটি সামগ্রিক বিষয়। কিন্তু শিক্ষার মান, শিক্ষার বিশেষ সেক্টর ধরে যে বিশেষ কোনো গবেষণা আছে তা বলা যাবে না। যেমন- একটি কলেজের শিক্ষার্থীরা শিক্ষকদের কাছ থেকে কত ঘণ্টা পায় তার কোনো স্টাডি নেই। আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের চেয়ে কলেজ শিক্ষকদের কর্মঘণ্টা কম। এসএসসি পরীক্ষার পর ভর্তি ত্বরান্বিতের সুযোগ তৈরি হয়েছে। তবে আরও ত্বরান্বিত করার সুযোগ আছে বলে মনে করি।

কিভাবে?
নজরুল ইসলাম খান: 
এসএসসি পরীক্ষার পরপরই শিক্ষার্থীদের কাছে অপশন চাইতে হবে যে, তারা কোন কলেজে ভর্তি হবে। ভর্তির সফটওয়ারের সঙ্গে রেজাল্টের সফটওয়ারের সমন্বয় করতে হবে। রেজাল্টের পরপরই শিক্ষার্থীরা জানতে পারবে, তারা কোন কোন কলেজে ভর্তির সুযোগ পাচ্ছে। শিক্ষার্থী তার পছন্দের কলেজের নাম জানার পর তাকে আরও এক সপ্তাহ সময় দিতে হবে শিফট করার সুযোগ হিসেবে। এটি করতে পারলে শিক্ষক ও শিক্ষার্থী উভয়ই প্রস্তুত নিয়ে থাকতে পারবে। একইভাবে পরীক্ষার রুটিনও আগে জানিয়ে দিতে হবে।

এতে দুই/তিন মাস বেশি সময় পাবে শিক্ষার্থীরা। দায়িত্ব পালনকালে অনেক শিক্ষক ক্ষমতা বা অন্যান্য কারণে ক্লাসে আসেন না। এখানেও সফটওয়ার চালু করতে হবে। মন্ত্রণালয় থেকেই শিক্ষকদের কার্যক্রম মনিটরিং করা যাবে। একইভাবে শিক্ষার্থীদের জন্য একটি ব্যবস্থা করে দিতে হবে যাতে তারা শিক্ষকদের ব্যাপারে মূল্যায়ন করার সুযোগ পায় এবং সেটিও হতে হবে প্রযুক্তি নির্ভর।

এর জন্য প্রযুক্তির ব্যাপক ব্যবহার প্রয়োজন।
নজরুল ইসলাম খান: 
মোটেও না। একেকটি কলেজের জন্য তিন থেকে চার লাখ টাকা খরচ করলেই হয়ে যাবে। পরিকল্পনাটাই বড় বিষয়। এতে শিক্ষকরা সতর্ক হয়ে যাবেন। রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে যারা পড়াতে মনোযোগী নন, তারাও এলার্ট হয়ে যাবেন। চাইলেও কেউ আর ফাঁকি দিতে পারবেন না। তখন আর এত গোয়েন্দাগিরিরও দরকার পড়বে না।

শিক্ষার্থীদের মধ্যেও মনোযোগী হওয়ার ব্যাপার রয়েছে।
নজরুল ইসলাম খান:
 হ্যাঁ। আপনি দেখবেন, এখন আর বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীরা ক্লাসে আসতে চায় না। তারা ইন্টারনেটের মাধ্যমে ইউটিউব থেকেই সব জানতে পারছে। ইন্টারনেটের মাধ্যমে যত সহজে একটি বিষয় জানার সুযোগ পায়, তা শ্রেণিকক্ষে পায় না।

আইসিটি মন্ত্রণালয়ের সচিব ছিলেন। আপনার সময়ে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল কি না?
নজরুল ইসলাম খান:
 আমি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ইন্টারনেট সংযোগের সুপারিশ করেছিলাম। নীতিমালা করে দিয়েছিলাম। কতটুকু সময়ে কয়টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ইন্টারনেট চালু হবে তার খসড়া করা হয়েছিল। শিক্ষকরা মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে শিক্ষা দিতে পারবে। এখন মোবাইল ফোনের মাধ্যমেও লাইভ করার সুযোগ রয়েছে।

আপনার সেই নীতিমালা কী অবস্থায় আছে?
নজরুল ইসলাম খান:
 আমার করা নীতিমালা কেউ পড়ে দেখছে বলেও মনে হয় না। আমি মাত্র এক বছর সেখানে দায়িত্ব পালন করেছি। বাস্তবায়ন করা সময় সাপেক্ষ ব্যাপার ছিল। পরে কী অবস্থায় আছে আর জানা হয়নি।

সরকারি কলেজের শিক্ষকদের ব্যাপারে আরেকটি বিষয়ে বলি। সরকারি কলেজের অনেকেই মনে করেন তার সঠিক পোস্টিং হয়নি। আমি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে দায়িত্বে থাকার সময় এটি খুব ভালো লক্ষ্য করেছি। হয়ত কোনো একদিন আমি ঢাকার বাইরে গিয়েছি। এডিশনাল সেক্রেটারি যিনি আমার দায়িত্বে ছিলেন, আমাকে না জানিয়েই হয়ত ২০০ শিক্ষককে একদিনে বদলি করে দিয়েছেন।

শিক্ষা প্রশাসনে স্বচ্ছতা-জবাবদিহিতার অভাবেই সর্বনাশ হচ্ছে। কুমিল্লা বোর্ডের ফলাফল খারাপ নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে। কুমিল্লা বোর্ডে একজন কলেজ পরিদর্শক ছিলেন। তিনি সেসিপে (সেকেন্ডারি অ্যাডুকেশন সেক্টর ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম) ছিলেন। তার বিরুদ্ধে আমাকে এডিবি থেকে নানা অভিযোগ করা হয়েছিল। ভাউচার নিয়ে তার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ ছিল। এরপর তাকে অনেক কষ্টে সেসিপ থেকে সরিয়ে আনলাম। এরপর দেখলাম, তাকে দেয়া হলো কুমিল্লা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক পদ। তার মতো লোক কলেজ পরিদর্শক হলে ফলাফল খারাপ ছাড়া ভালো হবে- এমনটি মনে করার কোনো কারণ নেই। কুমিল্লায় নানা অভিযোগ ওঠার পর তাকে বদলি করে রাজশাহীতে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক হিসেবে পাঠানো হয়।

এই যদি শিক্ষা প্রশাসনের অবস্থা হয়, তাহলে ভালো ফল আশা করবেন কী করে? প্রশাসন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। প্রশাসনের কারণেই শিক্ষায় সুশাসন আসছে না।

আইটি সুবিধার জন্য অনেক বড় ফান্ড রয়েছে। এই টাকা দিয়েই প্রশাসন স্কুল-কলেজে ইন্টারনেট সংযোগ দিতে পারে।
কলেজ পরিদর্শন নিয়ে আমি একটি নীতিমালা করেছিলাম। এক কলেজের শিক্ষক দ্বারা আরেক কলেজ পরিদর্শন করা। সেটিও আর গুরুত্ব দেয়া হলো না।

কাজ না করলে সুশাসন আসে না। এমপিও’র জন্য প্রতি বছর ৪০ কোটি টাকা আসে। আমি থাকতেও এসেছে। রাজনৈতিক কারণে এই টাকা বণ্টন করা হয় না। বলা হয়, এক সংসদ সদস্যকে দিলে আরেকজন বেজার হবেন।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে শত শত কোটি টাকা সোনালি ব্যাংকে রয়ে গেছে। আমি কয়েকবার মিটিং করে এই টাকার ব্যাপারে অবগত হয়েছি।

এরপরের বিষয় হচ্ছে দুষ্টের দমন, সৃষ্টের পালন। আমি যখন যুগ্ম সচিব ছিলাম, তখন নীতিমালা করেছিলাম। যে প্রতিষ্ঠান থেকে একজন শিক্ষার্থীও পাস করবে না, তার এমপিও বন্ধ করে দেয়া হবে। জনগণের টাকায় শিক্ষার ব্যয়, এত অবহেলা তো চলতে পারে না। কিন্তু আসলে প্রভাবশালী মহলের কারণে চাইলেও অনেক কিছু করা যায় না। অনেকেই সাপের মুখেও চুমো দেয় আবার ব্যাংকের মুখেও চুমো দেয়।

এতে কোনো লাভ হয় না। একটি সময় সমস্যা প্রকট হয়ে দেখা দেয়। এখন যেমনটি হচ্ছে।

তার মানে এসব সমস্যার উত্তরণ ঘটালেই ফলাফল ভালো হতে পারে?
নজরুল ইসলাম খান: 
শিক্ষা প্রশাসনের যে দুর্বলতার কথা বললাম, সেগুলো যদি কাটিয়ে ওঠা যায় তাহলে শতভাগ না হলেও ৯৯ ভাগ শিক্ষার্থী পাবলিক পরীক্ষায় পাস করবেই।

শিক্ষা হচ্ছে জীবনের জন্য প্রস্তুতি। শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট দিয়েই শিক্ষার গুণগত পরিবর্তন আনতে হয়। কিন্তু কলেজে শিক্ষার্থীদের কোনো অ্যাসাইনমেন্ট লিখতে দেয়া হয় না। শিক্ষকরা বলেন, অ্যাসাইনমেন্ট শিক্ষার্থীরা কম্পিউটার থেকে প্রিন্ট করে নেই। এটি দেখার দায়িত্ব তো শিক্ষকদের।

এটি তো দায়ের ব্যাপার। শিক্ষকদেরও জানতে হয়।
নজরুল ইসলাম খান: 
অবশ্যই। শুধু শিক্ষর্থীদের পড়তে বলা হয়। আমি মনে করি, শিক্ষকদেরই অধিক পড়তে হয়। এক ঘণ্টা পড়াতে একজন শিক্ষককে একশ ঘণ্টা পড়তে হয়। শিক্ষার্থীরা শিক্ষকদের কাছ থেকে নির্যাসটুকু নেবে। শিক্ষকদের বই পড়ার সুযোগ করে দিতে হবে।

স্কুল-কলেজের লাইব্রেরিতে বই পড়ার সুযোগ পায় না শিক্ষার্থীরা। দুপুর না হতেই কলেজে তালা। শিক্ষার্থীদের নানামুখী বই পড়ানোর সুযোগ করে দিতে হবে। প্রয়োজনে পাড়ায় পাড়ায় লাইব্রেরি করে দিতে হবে। অনলাইনে বা প্রযুক্তির মাধ্যমেও বই পড়ানোর ব্যবস্থা করতে হবে। এগুলো কোনো কঠিন কাজ নয়। রিফর্ম করতে হবে। সাইকেল হাতে নিয়ে রকেটের গতি প্রত্যাশা করা যায় না।

গোটা সিস্টেমই তো ত্রুটিপূর্ণ। উত্তরণের প্রত্যাশা করা যায়?
নজরুল ইসলাম খান: 
কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ বলেছেন, ‘দ্বার রুদ্ধ করে দিয়ে ভ্রমটাকে রুখি, সত্য বলে আমি তবে কোথা দিয়ে ঢুকি?’

সচিব থাকা অবস্থায় দেখেছি, মৃত মানুষকেও প্রমোশন দেয়া হয় এ দেশে। অনেকে ভয়ঙ্কর তথ্যও আছে। সব বিষয় বলা যায় না। কোনো কোনো সময় বলাও ঠিক না।

উপায় কী? শিক্ষা প্রশাসনের সংকট মোকাবেলায় আপনার কোনো পরামর্শ আছে কি না?
নজরুল ইসলাম খান: 
প্রথমত রিফর্ম মাইন্ডেড মানুষদের দায়িত্ব দিতে হবে। রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ এবং আমলাদের এক সঙ্গে কাজ করতে হবে। আমলাদের টেনে ধরলে চলবে না। আবার রাজনৈতিক সিদ্ধান্তকেও গুরুত্ব দিতে হবে। সবাই হয়ত সঠিক বলবে না। তবে অনেক সিদ্ধান্ত থেকে সঠিকটি বেছে নিতে হবে।

বাংলাদেশে প্রধান সমস্যা হচ্ছে রিফর্ম করার মানসিকতার অভাব।

সূত্র: জাগো নিউজ।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর