,

1491667231_2

অস্পষ্টই রয়ে গেল দুই পক্ষের বাণিজ্য সম্পর্কের ভবিষ্যৎ

যুক্তরাষ্ট্র সফররত চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং-এর সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বৈঠক করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ বৈঠকে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে পারস্পরিক সহযোগিতার ওপর জোর দেয়া হলেও অস্পষ্টই রয়ে গেছে বাণিজ্য সম্পর্কের ভবিষ্যত। যদিও চীনা প্রেসিডেন্ট বাণিজ্য বিষয়টির ওপর জোর দিয়েছেন। এছাড়া স্পর্শকাতর নিরাপত্তা ইস্যু নিয়েও কথা হয় দুই নেতার। খবরে বলা হয়, বাণিজ্যযুদ্ধ এড়ানোর বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছে চীন ও যুক্তরাষ্ট্র। যদিও ট্রাম্প নির্বাচনী প্রতিশ্রæতি অনুযায়ী বেইজিংয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ইচ্ছুক। আরো এক দফা টুইটার বিতর্ক ও যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য ঘাটতি নিয়ে পর্যালোচনার আহŸানের পর শি-ট্রাম্প বৈঠক সত্তে¡ও দুই পক্ষের বাণিজ্য সম্পর্কের ভবিষ্যত অস্পষ্ট রয়ে গেছে। সংবাদ মাধ্যম জানায়, ট্রাম্পের সঙ্গে শি জিনপিং-এর এটাই প্রথম দ্বিপাক্ষিক বৈঠক। এ বৈঠকে ট্রাম্পকে যুক্তরাষ্ট্র সফরের আমন্ত্রণ জানান চীনা প্রেসিডেন্ট। এর আগে বৃহস্পতিবার ফ্লোরিডার মার-এ-লাগো রিসোর্টে চীনা নেতাকে স্বাগত জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট। পর আনুষ্ঠানিক নৈশভোজে অংশ নেন দুই নেতা। দুই দেশের ফার্স্ট লেডিরাও এ ডিনারে যোগ দেন। এ সময় শি জিনপিং-এর সঙ্গে নিজের বন্ধুত্ব গড়ে উঠেছে বলে মন্তব্য করেন ট্রাম্প। ট্রাম্প বলেন, তার প্রত্যাশা চীন উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক উচ্চাকাক্সক্ষাকে নিবৃত্ত করবে। রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শি জিনপিং-এর দুই দিনের এ সফরে বড় ধরনের কোনো চুক্তির সম্ভাবনা নেই। তবে দুই পক্ষই বাণিজ্যিক সম্পর্কোন্নয়নের দিকে মনোযোগী হবে। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, শি জিনপিং মার্কিন প্রেসিডেন্টকে বলেছেন, চীন-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্ককে সঠিক পথে রাখার হাজারো কারণ রয়েছে। আর এ সম্পর্ক বিনষ্টের একটিও কারণ নেই। দুই নেতার সাক্ষাতের আগে এক নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এ বৈঠক নিয়ে কথা বলেন চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লু কাং। রয়টার্স, দ্য নিউইয়র্ক টাইমস।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর