,

16

নামাজে মনোযোগ ঠিক রাখবেন যেভাবে

হাওর বার্তা ডেস্কঃ আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘নিশ্চয়ই শয়তান মানুষের প্রকাশ্য দুশমন।’ কোনো কাজে মনোযোগ নষ্ট না হলেও নামাজে দাঁড়ালেই নামাজি ব্যক্তির মনোযোগ ছিন্ন হয়ে যায়। এটি শয়তানের কাজ। নামাজের সময় হলে যেমন অন্য কাজের স্পৃহা বেড়ে যায়, তেমনি নামাজে বার বার মনোযোগ ছিন্ন হয়ে যায়। এ থেকে বাঁচতে কিছু আমল করা যেতে পারে। তাহলো-

স্থির মনোভাব ও নিয়ত
নামাজের জন্য ওজু করতে যাওয়ার সময়ই এ মনোভাব পোষণ করা যে, মহাবিশ্বের প্রতিপালক আল্লাহ তাআলার দরবারর হাজিরা দেয়ার জন্য ওজুর করছেন। আর মনকে এ চিন্তা-চেতনায় তৈরি করা যে, নামাজ শুধু আল্লাহর জন্য। সুতরাং নামাজের জন্য শারীরিক, মানসিক ও আত্মিক প্রস্তুতি গ্রহণ করা।

যথাযথ নিয়ম পরিপূর্ণভাবে ওজু করা
নামাজে মনোযোগ ধরে রাখতে সুন্দরভাবে ওজু করা জরুরি। ওজু হলো নামাজের সুন্দর প্রস্তুতির প্রথম উৎস। আর নামাজ শুদ্ধ হওয়ার জন্য ওজু অন্যতম আমল। এ কারণেই প্রচণ্ড শীত ও গ্রীষ্মের সময় ঠাণ্ডা ও গরমকে উপক্ষো করে ঈমানদার মুমিন নামাজের জন্য ওজু করে থাকে। হাদিসে এসেছে-
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি অজু ব্যতিত নামাজ পড়বে, তার নামাজ কবুল হবেনা।’

বিশেষ করে ওজুর শুরুতে বিসমিল্লাহ বলে শুরু করা। হাদিসে এসেছে- রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি ওজুতে আল্লাহর নাম স্মরণ করা না হয় সে ওজু অপরিপূর্ণ! তাই ওজু শুরু করার আগে অবশ্যই ‘বিসমিল্লাহ’ পড়ে ওজু শুরু করা।

ওজুতে প্রত্যেক অঙ্গ ভালভাবে ধুয়ে নেয়া
ওজু যেন দ্রুত না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখা জরুরি। ওজুতে যেন শরীরের কোনো অঙ্গ বাদ না পড়ে বা শুকনো না থাকে সেদিকে দৃষ্টি রাখা। হাদিসে এসেছে-
হজরত ওমর বিন খাত্তাব রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, ‘একবার এক ব্যক্তি নামাজের জন্য ওজু করে এল। কিন্তু নখের সমপরিমাণ ওজুর যায়গা তাতে বাদ পড়ে যায়। আল্লাহর রাসুল সেটি দেখলেন এবং লোকটিকে বললেন, ‘আবার ভাল করে অজু করো’। তখন লোকটি আবারও ওজু করে এসে নামাজ আদায় করে।’

বিশেষ করে পা এবং বাহু ধোয়ার সময় ভালোভাবে পানি ব্যবহার করা জরুরি। হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু ওজু করার সময় মুখমণ্ডল খুব ভালোভাবে ধুয়ে নিতেন। তারপর আগে ডান ও পরে বাম বাহু ধুয়েছেন। উভয় হাত বাহুর দিকে একটু বাড়িয়ে ধুয়েছেন। মাথা মাসেহ করেছেন। আগে ডান পা ও পরে বাম পা ধুয়েছেন। পায়ের নলিসহ উভয় পা ধুয়েছেন। আর শেষে তিনি বলেছেন, ‘আমি এভাবেই আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে ওজু করতে দেখেছি।’

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু আরও বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘তোমাদের পরিপূর্ণ ওজুর কারণে কেয়ামতের দিন তোমাদের হাত-পা এবং চেহারাকে দীপ্তিমান দেখাবে। তোমাদের মধ্যে যে সামর্থ্যবান, সে যেন তার হাত-পা এবং চেহারার উজ্জল্য বাড়িয়ে নেয়।’

প্রত্যেক ওয়াক্ত নামাজের জন্য নতুনভাবে ওজু করা
এক ওজুতে একাধিক ওয়াক্ত নামাজ না পড়ে প্রত্যেক ওয়াক্ত নামাজের জন্য নতুনভাবে ওজু করে নামাজের প্রতি মনোযোগী হওয়ার চেষ্টা করা। যদিও ‘অজু ভাঙ্গার কোনো কারণ সংঘটিত না হলে’ এক অজুতেই একাধিক নামাজ আদায় করা যায়। তবে প্রতি ওয়াক্ত নামাজ পড়ার জন্য সুন্নাত হলো নতুনভাবে ওজু করা। হাদিসে এসেছে-
হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহুকে ওজু সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয়েছিল। তিনি বলেছেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রত্যেক ওয়াক্ত নামাজের জন্য আলাদা অজু করতেন আর আমরা একই অজু দিয়ে অনেক নামাজ আদায় করতাম।।’

– ওজুতে মেসওয়াক ব্যবহার করা
ওজুর সময় মেসওয়াক ব্যবহারে যত্নবান হওয়া। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যদি না আমার উম্মতের জন্য এটি কষ্টকর মনে করতাম, তবে প্রতি নামাজের সময় তাদেরকে মেসওয়াক করার জন্য নির্দেশ দিতাম।’

ওজুর পর দোয়া পড়া
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘কেউ যদি পরিপূর্ণভাবে ওজু করার পর নিচের দোয়াটি পড়ে-
اَشْهَدُ ان لاَ اِلَهَ اِلَّا اللهُ وَحْدَهُ لَا شَرِيْكَ لَهُ وَ اَشْهَدُ اَنَّ مُحَمَّدً عَبْدُهُ وَ رَسُوْلُهُ
উচ্চারণ : ‘আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারিকা লাহু, ওয়া আশহাদু আন্না মুহাম্মাদান আবদুহু ওয়া রাসুলুল্লাহ’
অর্থ : ‘আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, আল্লাহ ব্যতিত আর কোনো উপাস্য নেই। তিনি এক, তাঁর কোনো শরিক নেই। আমি আরও সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, মুহাম্মাদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) আল্লাহর বান্দা ও রাসুল। তাঁর জন্য (এ দোয়াটি যে পাঠ করবে তাঁর জন্য) জান্নাতের আটটি দরজাই খুলে দেয়া হবে এবং তাঁর ইচ্ছেমত যে কোনো দরজা দিয়েই সে জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে।’

মূল কথা হলো
নামাজে মনোযোগী হওয়ার জন্য ভালো ওজু করার বিকল্প নেই। যে ব্যক্তি যথাযথভাবে আল্লাহর স্মরণে সুন্দরভাবে ওজু সম্পন্ন করবে তার জন্য নামাজ হবে সুন্দর ও উত্তম।

উল্লেখ্য, উত্তমভাবে ওজু করার ফলে মানুষ অনেক গোনাহ থেকে মুক্ত হয়ে যায়। কারণ হক আদায় করে ওজু করলে হাত ধোয়ার সঙ্গে সঙ্গে হাত দ্বারা করা গোনাহ পানির সঙ্গে চলে যায়। এমনিভাবে প্রতিটি অঙ্গ ধোয়ার সঙ্গে সে অঙ্গের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট গোনাহও ধুয়ে মুছে ওজুকারী ব্যক্তি পাক-সাফ হয়ে যায়। আর তাতে পূর্ণ মনোযোগের সঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারে মুমিন।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে মনোযোগের সঙ্গে নামাজ আদায়ে সুন্দর ও উত্তমভাবে ধীরস্থিরতার সঙ্গে ওজু করার তাওফিক দান করুন। নামাজে মনোযোগী হয়ে শুধু মহান আল্লাহর জন্য নামাজ পড়ার তাওফিক দান করুন। দুনিয়ার সব চিন্তা-চেতনা থেকে মুক্ত থাকার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর