,

8

রূপালী ব্যাংকের ১৫.১৯ শতাংশ শেয়ার দ্রুত বাজারে আসছে

হাওর বার্তা ডেস্কঃ দেশের শেয়ার বাজারের চাহিদা মেটাতে সরকারি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার বাজারে ছাড়ার প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে রূপালী ব্যাংক লিমিটেডের শেয়ার অফলোড-এর উদ্যোগ নিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ। প্রতিষ্ঠানটির ১৫ দশমিক ১৯ শতাংশ শেয়ার দ্রুত সময়ে বাজারে ছাড়ার উদ্যোগ চলমান রয়েছে।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর গত ৯ ফেব্রুয়ারি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে এ সংক্রান্ত একটি বৈঠক অনু্ষ্ঠিত হয়। বৈঠকে রূপালী ব্যাংকের ১৫ দশমিক ১৯ শতাংশ শেয়ার দ্রুত সময়ে বাজারে ছাড়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অর্থমন্ত্রী নির্দেশনা দেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৮ আগস্ট আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আবদুল্লাহ হারুন পাশার সভাপতিত্বে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সূত্র জানায়, ওই সভায় দেশের পুঁজিবাজারে রূপালী ব্যাংকের উল্লেখিত পরিমাণ শেয়ার অফলোড-এর কার্যক্রম সঠিকভাবে ও দ্রুততার সঙ্গে পরিপালনের জন্য আইসিবি’র সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান আইসিবি ক‌্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড, রূপালী ব্যাংক লিমিটেড, বিএসইসি’র প্রতিনিধিদের সঙ্গে বিষয়টি স্পষ্টকরণের বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

সভায় আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের যুগ্ম-সচিব (পুঁজিবাজার) ড. নাহিদ হোসেন রূপালী ব্যাংকের শেয়ার অফলোড-এর বিষয়ে অর্থমন্ত্রীর নির্দেশনার কথা তুলে ধরেন।

ড. নাহিদ হোসেন বলেন, ‘এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স (বিএবি) এর আলোচনা হয়েছে। রূপালী ব্যাংক ১৯৮৬ সাল থেকে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার অফলোড-এর কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির ৯ দশমিক ৮১ শতাংশ শেয়ার মার্কেটে আছে এবং ১৫ দশমিক ১৯ শতাংশ শেয়ার অফলোড-এর বিষয়টি রূপালী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে ১১৩৫তম সভায় অনুমোদিত হয়েছে এবং আইসিবি সিকিউরিটিজ ট্রেডিং কোম্পানি লিমিটেড শেয়ার অফলোড-এর দায়িত্ব পালন করবে।’

সভায় রূপালী ব্যাংকের চিফ ফিন্যান্সিয়াল অফিসার মো. শওকত জাহান খান শেয়ার অফলোড-এর জন্য বিভিন্ন সময়ে নেওয়া পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন যে, পুঁজিবাজারের উত্থান-পতনের পর রূপালী ব্যাংক লিমিটেড এর ১৫ দশমিক ১৯ শতাংশ শেয়ার অফলোড-এর বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল, যা পরবর্তীতে থেমে যায়।

বাংলাদেশ সিকিউিরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) এর নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান বলেন, ‘‘শেয়ার আফলোড করার ক্ষেত্রে কিছু রেগুলেটরি বিষয় আছে যা কমপ্লাই করে রূপালী ব্যাংকের ১৫ দশমিক ১৯ শতাংশ শেয়ার অফলোড করা যেতে পারে। সিকিউরিটিজ ও এক্সচেঞ্জ কমিশন (সুবিধাভোগী ব্যবসা নিষিদ্ধকরণ বিধিমালা, ১৯৯৫ এর ধারা-২) পরিপালন সাপেক্ষে পুঁজিবাজারে লিস্টিং রেগুলেশনের সিডিউল-১ অনুযায়ী আবেদন করতে হবে।

‘রূপালী ব্যাংকের ১৫ দশমিক ১৯ শেয়ার হিসেবে মোট ৬,২৬,০০,৬৭৬টি শেয়ার পর্যায়ক্রমে বাজার দরে অফলোড করার অনুমোদন দিতে পারে সরকার। এখানে শেয়ারের দর উত্থান-পতন ও চাহিদা যোগানের কথা বিবেচনা করে সময়সূচি তৈরি করতে হবে। পুঁজিবাজার ভালো হলে ১৫ দশমিক ১৯ শতাংশ শেয়ার অফলোড কার্যক্রম সহজ হবে এবং সরকারের মালিকানা ছেড়ে দেওয়ার বিষয়টিও বিবেচনা করা যেতে পারে।”

সভায় আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি লিমিটেডের সিইও শুক্লা দাস বলেন, ‘বাজারমূল্যে সরকারের শেয়ার অফলোড করতে হবে এবং আইসিবি সিকিউরিটিজ ট্রেডিং কোম্পানি লিমিটেড থেকে রূপালী ব্যাংকের ৬,২৬,০০,৬৭৬টি শেয়ার রূপালী ব্যাংক সিকিউরিটিজ লিমিটেড-এ ট্রান্সফার কস্ট এবং শেয়ার স্থানান্তরের আগেই জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে ৫ শতাংশ হারে অ্যাডভান্স ট্যাক্স বিবেচনা করতে হবে। তবে ট্যাক্স ওয়েভারের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের অনুমোদন নেওয়া যেতে পারে। শেয়ার অফলোড-এর বিষয়টি অর্থমন্ত্রী কর্তৃক অনুমোদনের সময় মূলধন পুনর্ভরণ এবং পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি লিমিটেডের শেয়ার অফলোড-এর সময়কাল বিবেচনা করতে হবে।’

এ বিষয়ে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর শেয়ার বাজারে ছাড়ার বিষয়ে তৎকালীন তত্বাবধায়ক সরকারে অর্থ উপদেষ্টা এবি মির্জা আজিজুল ইসলাম উদ্যোগ নিয়েছিলেন। এরপর সাবেক অর্থমন্ত্রী এএমএ মুহিতও একাধিকবার বিষয়টি নিয়ে সভা করেছেন। তখন নানা জটিলতার কারণে শেয়ার অফলোড করা সম্ভব হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘এছাড়াও গত কয়েক বছর দেশের শেয়ার বাজারে অবস্থা ভাল যাচ্ছিলো না। ওই সময় শেয়ার ছাড়াটা অনেকটা ঝুঁকি ছিল। এখন অবস্থা অনেকটা ভাল হয়েছে। এছাড়া বর্তমান অর্থমন্ত্রী  রূপালী ব্যাংকের শেয়ার বাজারে ছাড়ার বিষয়ে বিশেষ নজর দিচ্ছেন। কাজ চলছে। সবকিছু ঠিকমতো হলে রূপালী ব্যাংকের শেয়ার বাজারে ছাড়ার বিষয়ে অর্থমন্ত্রীর চূড়ান্ত অনুমোদন নিয়ে দ্রুত শেয়ার ছাড়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর