,

n36

নায়ক থেকে খলনায়ক রবার্ট মুগাবে

হাওর বার্তা ডেস্কঃ জিম্বাবুয়ের স্বাধীনতাপরবর্তী প্রথম প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে ৯৫ বছর বয়সে মারা গেছেন। তিন দশক ক্ষমতায় থাকার পর ২০১৭ সালের নভেম্বরে সেনা অভ্যুত্থানের মুখে ক্ষমতাচ্যুত হন। জিম্বাবুয়ের স্বাধীনতার পর হওয়া প্রথম নির্বাচনে ১৯৮০ সালে জয় লাভ করে প্রধানমন্ত্রী হন তিনি। ১৯৮৭ সালে প্রধানমন্ত্রীর দফতর বিলুপ্ত ঘোষণা করে দেশের প্রেসিডেন্ট হন।

১৯২৪ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন রোডেশিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন রবার্ট মুগাবে। ১৯৬৪ সালে রোডেশিয়ার সরকারের সমালোচনা করায় এক দশকেরও বেশি সময় কারাবাস করেন তিনি। তাকে কী বলা যাবে? নায়ক, নাকি খলনায়ক?

তিনি একসময় কৃষ্ণাঙ্গদের নায়ক ছিলেন কিন্তু মৃত্যুর আগে খলনায়ক হিসেবে বিশ্ব নিন্দিত হন। স্বাধীন জিম্বাবুয়ের প্রতিষ্ঠাতা। দীর্ঘ ৩৭ বছর তিনি দেশ শাসন করেছেন। ব্রিটিশ শাসন থেকে ১৯৮০ সালের ১৮ এপ্রিল জিম্বাবুয়েকে স্বাধীনতা দিয়েছিলেন রবার্ট মুগাবে। নেলসন ম্যান্ডেলার পরে তিনি কৃষ্ণাঙ্গদের কাছে অন্যতম জনপ্রিয় ও শ্রদ্ধেয় নেতা ছিলেন।

১৯৮০ সালে ব্রিটিশ শাসন থেকে স্বাধীন হওয়ার পর টানা ৩৭ বছর দেশটির কর্তা ছিলেন মুগাবে। ২০১৭ সালের ২১ নভেম্বরে এক সামরিক অভ্যুত্থানে প্রেসিডেন্ট পদ থেকে তাকে উৎখাত করা হয়। এককালে তার সহযোগী বর্তমানে জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট এমারসন এমানগাগোয়া মুগাবে মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করেন।

শোকবার্তায় তিনি জানান, গভীর শোকের সঙ্গে জিম্বাবুয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবের মৃত্যু সংবাদ আমাকে জানাতে হচ্ছে। তিনি ছিলেন আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রতীক, প্যান-আফ্রিকা মতবাদের একজন সমর্থক, যিনি তার জীবন উৎসর্গ করেছিলেন জনগণের মুক্তি আর ক্ষমতায়নের জন্য। একটা সময় রবার্ট মুগাবে সত্যি নায়ক ছিলেন। জিম্বাবুয়ের শ্বেতাঙ্গ সংখ্যালঘু শাসনের অবসান ঘটানো মুগাবে তার দেশে অনেকের কাছেই একজন মহানায়ক।

কৃষ্ণাঙ্গ জনগোষ্ঠীর জন্য শিক্ষা ও চিকিৎসা সেবার সুযোগ বাড়িয়ে শুরুর দিকে তিনি পুরো বিশ্বেই প্রশংসা পেয়েছিলেন। পরে তার ভূমি সংস্কার কার্যক্রম ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দেয়, অর্থনীতি ভেঙে পড়ে। ধীরে ধীরে তার নামের সঙ্গে জড়িয়ে যায় মানবাধিকার লঙ্ঘন ও দুর্নীতির নানা অভিযোগ। তিনি নায়ক থেকে রাতারাতি খলনায়ক হয়ে ওঠেন। আন্তর্জাতিক মহলে তিনি হয়ে ওঠেন কুখ্যাত স্বৈরাচারী শাসক।

১৯২৪ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি রবার্ট মুগাবের যখন জন্ম হয়, জিম্বাবুয়ের নাম তখন রোডেশিয়া। এক সময়ের এই ব্রিটিশ কলোনিতে তখনো সংখ্যালঘু শ্বেতাঙ্গদের শাসন চলছে। রোডেশিয়া সরকারের সমালোচনা করায় এক দশকের বেশি সময় বিনা বিচারে বন্দি থাকতে হয় মুগাবেকে।

১৯৭৩ সালে কারাগারে থাকা অবস্থায় জিম্বাবুয়ে আফ্রিকান ন্যাশনাল ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট হন মুগাবে। কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়ার পর মুগাবে চলে যান মোজাম্বিকে। সেখান থেকে রোডেশিয়া সরকারের বিরুদ্ধে শুরু করেন গেরিলাযুদ্ধ। সেই সঙ্গে চলে আলোচনা।

আর সেই আলোচনার পথ ধরেই জন্ম নেয় নতুন রাষ্ট্র রিপাবলিক অব জিম্বাবুয়ে। স্বাধীনতার একজন যোদ্ধা হিসেবে বীরোচিত সম্মান পান মুগাবে। জিম্বাবুয়ের নেলসন ম্যান্ডেলা আখ্যা পান তিনি। স্বাধীন জিম্বাবুয়ের প্রথম নির্বাচনে মুগাবের বিপুল বিজয় হয়। ১৯৮০ সালে তিনি জিম্বাবুয়ের প্রথম প্রধানমন্ত্রী।

১৯৮৭ সালে তিনি প্রেসিডেন্ট শাসিত রাষ্ট্রব্যবস্থা চালু করে নিজে সেই পদে বসেন। ১৯৮১ সালে মুগাবে নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্যও মনোনীত হয়েছিলেন।

প্রতিবেশী দক্ষিণ আফ্রিকায় ১৯৯৪ সালে তিনি জাতিগত বিদ্বেষ অবসানের অন্যতম দৃঢ় সমর্থক ছিলেন। জিম্বাবুয়ে ও ইংল্যান্ডের মধ্যকার সম্পর্ক উন্নয়নে অবদানের জন্য নাইট উপাধিতেও ভূষিত হয়েছিলেন মুগাবে। ১৯৯৪ সালে রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ তাকে নাইটহুড দেন।

সময়ের সঙ্গে মুগাবের প্রতি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে থাকে। তার বিভিন্ন পদক্ষেপ তৈরি করে তিক্ততা। অর্থনীতির ভঙ্গুর দশা, বিচার ও গণতন্ত্রহীনতায় নিজের দেশেও মুগাবের ভাবমূর্তি বদলাতে শুরু করে। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষদের বিরুদ্ধে কঠোর হাতে দমন করায় মহানায়ক মুগাবে মানুষের চোখে স্বৈরশাসক হয়ে ওঠেন।

Print Friendly, PDF & Email

     এ ক্যাটাগরীর আরো খবর